শুক্রবার, ২৬ জুলাই ২০২৪, ১১ শ্রাবন ১৪৩১, ১৯ মুহাররম ১৪৪৬ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ইরানে বন্দিদের কঠিন শর্তে সাধারণ ক্ষমা

| প্রকাশের সময় : ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : ইরানে সরকারবিরোধী আন্দোলনের সময় গ্রেফতার হওয়া বন্দিদের জন্য সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা হয়েছে। গত সেপ্টেম্বরে আন্দোলন শুরুর পর দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে যাদের গ্রেফতার করা হয়েছিল তারা এই ক্ষমার আওতায় পড়বেন। রোববার দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেন। ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যমগুলো জানিয়েছে, দেশটিতে ১৯৭৯ সালের ইসলামি বিপ্লবের ৪৪তম বার্ষিকী উপলক্ষে এই সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা হলো। তবে মুক্তি পেতে হলে বেশ কিছু শর্ত মানতে হবে তাদের। ঘোষণায় জানানো হয়েছে, বন্দিদের মধ্যে যাদের দ্বৈত নাগরিকত্ব রয়েছে, তারা এই ক্ষমার আওতায় পড়বেন না। এছাড়া সামাজিক বা রাজনৈতিক অস্থিরতা ছড়ানো, বিদেশি গুপ্তচর হিসেবে কাজ করা এবং সরকারবিরোধী শক্তিগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক রাখার অভিযোগ রয়েছে যাদের বিরুদ্ধে, তারাও এই সাধারণ ক্ষমা পাবেন না। ধর্মীয় বিশ্বাস ভাঙা বা রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা লঙ্ঘনের অভিযোগ থাকলেও কাউকে মুক্তি দেওয়া হবে না। গত সেপ্টেম্বরে ২২ বছর বয়সী কুর্দি তরুণী মাহশা আমিনি পুলিশ হেফাজতে মারা যাওয়ার পর ইরানে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়া সামাজিক বা রাজনৈতিক অস্থিরতা ছড়ানো, বিদেশি গুপ্তচর হিসেবে কাজ করা এবং সরকারবিরোধী শক্তিগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক রাখার অভিযোগ রয়েছে যাদের বিরুদ্ধে, তারাও এই সাধারণ ক্ষমা পাবেন না। ঠিকমতো হিজাব না পরার অভিযোগে ১৩ সেপ্টেম্বর তাকে গ্রেফতার করে তেহরানের পুলিশ। পুলিশের দাবি, মাহশা অসুস্থ হয়ে পড়লে ১৬ সেপ্টেম্বর তাকে হাসপাতালে নেয়া হয় এবং সেখানে তার মৃত্যু হয়। তার মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পুরো ইরান। নারীদের ওপর নিপীড়ন ও দুঃশাসনের প্রতিবাদে রাস্তায় নামে লাখো মানুষ। বিক্ষোভ দ্রুত সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে। অনেক নারী বিক্ষোভের প্রতি সমর্থন জানিয়ে নিজেদের হিজাব খুলে ফেলেন। বিক্ষোভে পুলিশের হামলায় ৩০০ জনের মৃত্যু হয়। এদিকে রোববার সাধারণ ক্ষমা ঘোষণার দিনই এলনাজ মোহাম্মাদি নামে এক নারী সাংবাদিককে আটক করা হয়। সংস্কারবাদী ‹হাম্মিহান› পত্রিকায় কাজ করেন এলনাজ। তার বোন এলাহি মোহাম্মাদিও সাংবাদিক। এলাহ গত সেপ্টেম্বরে মাহশা আমিনির শেষকৃত্যানুষ্ঠানের প্রতিবেদন করার পর গ্রেফতার হয়েছিলেন। ইরানে প্রায় প্রতি বছরই ইসলামি বিপ্লবের বার্ষিকীর আগে এরকম সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা হয়। তবে এবারের ঘোষণাটিকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। কারণ এবারের সরকার বিরোধী আন্দোলনকে ১৯৭৯ এর ইসলামি বিপ্লবের পর ক্ষমতাসীনদের ওপর সবচেয়ে বড় ধাক্কা হিসেবে দেখা হচ্ছে। ইরানের বিচার বিভাগের প্রধান গোলাম হোসেইন মোহসেনি এজেই এর অনুরোধে বন্দিদের জন্য সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা হলো বলে জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনা। বিচার বিভাগের উপপ্রধান সাদেক রাহিমির বরাত দিয়ে সংস্থাটি জানায়, মুক্তি পাওয়ার জন্য বন্দিদের ‹অনুশোচনা› প্রকাশ করতে হবে। তারা আর কখনোই আগের মতো কার্যক্রমে যুক্ত হবে না বলে মুচলেকাও দিতে হবে। ঠিক কত জনকে সাধারণ ক্ষমার আওতায় মুক্তি দেওয়া বা কত জনের সাজা কমানো হবে তা জানাতে পারেনি ইরানি সংবাদ মাধ্যমগুলো। তবে মানবাধিকার নিয়ে কর্মরত সংগঠনগুলো জানিয়েছে, আন্দোলনের কারণে ২০ হাজারের মতো মানুষকে গ্রেফতার করা হয়। এর মধ্যে অন্তত ১০০ জনকে মৃত্যুদ- দেওয়া হবে। বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, এরিমধ্যে ১৮ জনের মৃত্যুদ- কার্যকরও করা হয়ে গেছে। এদিকে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সুর মিলিয়ে ইরানের সাবেক রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ খাতামি ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী মীর হোসাইন মৌসাভি গত সপ্তাহে রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন। ডয়চে ভেলে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন