ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ০৮ ভাদ্র ১৪২৬, ২১ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

জাতীয় সংবাদ

স্ত্রী মিন্নি গ্রেফতার

বরগুনায় রিফাত হত্যা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৭ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রধান সাক্ষী ও নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

এর আগে গতকাল সকাল সোয়া ১০টার দিকে বরগুনা পৌরসভার মাইঠা এলাকার নিজ বাসা থেকে তাকে পুলিশ লাইন্সে আনা হয়। রাতে তাকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন।
পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন বলেন, রিফাত শরীফ হত্যা মামলার ১ নম্বর সাক্ষী ও প্রত্যক্ষদর্শী মিন্নি। তার বক্তব্য রেকর্ড ও তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বরগুনা পুলিশ লাইন্সে আনা হয়। রাতে তাকে এ মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় পুলিশ ১৩ জনকে গ্রেফতার করেছে। মামলার প্রধান আসামি নয়ন বন্ড গত ২ জুলাই পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছে।
গ্রেফতারকৃত আসামিদের মধ্যে এখন পর্যন্ত ১০ জন আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে। বাকি ৩ জন এখনো রিমান্ডে রয়েছে বলে জানান তিনি।
সকালে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মিন্নিকে পুলিশ লাইন্সে আনার সময় তার সঙ্গে বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরও আসেন। মোবাইল ফোনে পুলিশ লাইন্স থেকে বলেন, রিফাত শরীফ হত্যাকান্ডে জড়িত এক অভিযুক্তকে শনাক্ত করার জন্য মিন্নিকে বরগুনার পুলিশ লাইন্সে আনা হয়েছে। শনাক্তকরণ শেষ হলে মিন্নিকে বাড়ি নিয়ে যাওয়া হবে। কিন্তু এরই মধ্যে তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
এর আগে গত শনিবার রাত ৮টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করেন নিহত রিফাত শরীফের বাবা মিন্নির শ্বশুর আব্দুল হালিম দুলাল শরীফ। তিনি রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানান।
তিনি বলেন, আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি আগে নয়ন বন্ডকে বিয়ে করেছিল। ওই বিয়ে গোপন করে রিফাত শরীফকে বিয়ে করে সে। বিষয়টি আমাদের জানায়নি মিন্নি এবং তার পরিবার। কাজেই রিফাত শরীফ হত্যার পেছনে মিন্নির মদদ রয়েছে। তাকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনলে সব বিষয় পরিস্কার হয়ে যাবে।
আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির চাচা আবু সালেহ জানান, মিন্নির বাবার বাড়িতে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ১০ সদস্যের পুলিশ টিম এখনো অবস্থান করছে। সকাল পৌনে ১০টার দিকে মিন্নিকে আনার জন্য নারী পুলিশের একটি দল মোজাম্মেল হোসেন কিশোরের বাড়িতে যায়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
Taslima Hasan Toma ১৭ জুলাই, ২০১৯, ৩:২৬ এএম says : 0
আলহামদুলিল্লাহ। অবশেষে, পুলিশ প্রশাসন একটা ভাল কাজ করেছে!! প্রাণঢালা অভিনন্দন
Total Reply(0)
Ali hossain Arif ১৭ জুলাই, ২০১৯, ৩:২৭ এএম says : 0
Excellent job, Thanks administration of police.
Total Reply(0)
Siddique ১৭ জুলাই, ২০১৯, ৩:২৮ এএম says : 0
আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি, কোন হতভাগা মায়ের সন্তানের কপালে যেন মিন্নির মত মেয়ে না জুটে, এই রকম মেয়ে দেশ ও জাতির জন্য অভিশাপ।
Total Reply(0)
Sohel Rana ১৭ জুলাই, ২০১৯, ৩:২৮ এএম says : 0
পুলিশ প্রশাসনের কাছে আকুল আবেদন মিন্নি অপরাধী হলে তার শাস্তি একান্তই কাম্য কিন্তু রাঘব বোয়াল গুলো যেন বেঁচে না যায়।
Total Reply(0)
Mazedur Rahaman ১৭ জুলাই, ২০১৯, ৩:২৯ এএম says : 0
অবশেষে আমার সন্দেহ টা সঠিক হলো।তার আচরণ ভঙ্গিমা পূর্বের ঘটনা জেনে আগেই বলেছিলাম মিন্নি পুরো ঘটনার সাথে জরিত।কতো ............... মহিলা।ইতিমধ্যে দুজন বিদায় পৃথিবী থেকে আরো দশ বার জন বিচারের অপেক্ষাই ।
Total Reply(0)
Ruby Afroza ১৭ জুলাই, ২০১৯, ৩:৩০ এএম says : 0
যদি ঘটনা সত্যি হয় তাহলে এমন শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক যা আজীবনের জন্য উদাহরণ হিসেবে থাকে। এখানে সে একজন নারী এটা ভাবার যেন কারণ না থাকে। খুনী খুনীই হয়। পুরুষ বা মহিলা নয়।
Total Reply(0)
Swapnil Mithun ১৭ জুলাই, ২০১৯, ৩:৩০ এএম says : 0
মিন্নি যদি জড়িত থাকতো তাহলে তো এতদিনে ওর পালানোর কথা। যাই হোক ঘটনার সত্যতা বেরিয়ে আসুক সেটাই কাম্য। আমরা এটা চাই না যে কোন প্রভাবশালীর খাতিরে কাউকে গ্রেফতার হতে হচ্ছে না তো!
Total Reply(0)
Saleh Ahamed Nomani ১৭ জুলাই, ২০১৯, ৩:৩১ এএম says : 0
মেয়ে মানুষের উপর দোষ চাপানো গেলেই রাজনীতিবিদের অপকর্ম ঢাকা পড়বে। সেই প্রচেষ্টা হলে বিষয়টা দুঃখজনক।
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন