বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯, ১২ মুহাররম ১৪৪৪

জাতীয় সংবাদ

দুর্নীতি দমন কমিশন বিল ২০১৬ সংসদে পাস

প্রকাশের সময় : ১০ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার ঃ দুর্নীতি দমন কমিশন আইন ২০০৪-এর তফসিলভুক্ত দন্ডবিধি ১৮৬০-এর কতিপয় ধারা পূর্বের মতো পুলিশ কর্তৃক তদন্তযোগ্য এবং জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক বিচার্য হওয়ার বিধান করে আজ সংসদে দুর্নীতি দমন কমিশন (সংশোধন) বিল-২০১৬ সংশোধিত আকারে পাস করা হয়েছে। এ বিলের ফলে দুদকের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ক্ষমতা কমে আসবে।
বৃহস্পতিবার সাংসদ কার্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের দায়িত্বে নিয়োজিত কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বিলটি পাসের প্রস্তাব করেন। বিলে বিদ্যমান আইনের ধারা ২-এর (ক) দফা (কক) দফা সংখ্যায়িত করা হয়। সংখ্যায়িত (কক) এর পূর্বে দফা (ক) সন্নিবেশ করা হয়। নতুন দফায় বলা হয়, ‘অনুসন্ধান’ অর্থ তফসিলভুক্ত কোন অপরাধ সংক্রান্ত অভিযোগপ্রাপ্ত বা জ্ঞাত হওয়ার পর উহা কমিশন কর্তৃক তদন্ত অনুষ্ঠানের জন্য গৃহীত ও লিপিবদ্ধ হওয়ার পূর্বে উক্ত অভিযোগের প্রাথমিক সভ্যতা উদ্ঘাটনের লক্ষ্যে কমিশন বা তদকর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন ব্যক্তি কর্তৃক পরিচালিত কার্যক্রম।
বিলে বিদ্যমান আইনের তফসিলের পরিবর্তে নতুন তফসিল প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। নতুন তফসিলে বলা হয়, এই আইনের অপরাধসমূহ হচ্ছে দন্ডবিধির বিভিন্ন সেকশনের অধীন অপরাধসমূহ এবং সেকশন ৪২০, ৪৬৭, ৪৬৮, ৪৭১, ৪৭৭এ-এর অধীন কোন অপরাধ সরকারি সম্পর্কিত হলে অথবা সরকারি কর্মচারী বা ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারী বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্ত-কর্মচারী কর্তৃক দায়িত্ব পালনকালে সংগঠিত হলে কেবল সেই ক্ষেত্রে বর্ণিত অপরাধসমূহ দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন-১৯৪৭-এর অধীন অপরাধসমূহ, মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন-২০১২’র অধীন ঘুষ ও দুর্নীতি সংক্রান্ত্র অপরাধসমূহ, দন্ডবিধি ১০৯, ১২০বি এবং ৫১১-এর অধীন অপরাধসমূহ। বিলে এসব অপরাধসমূহ দুর্নীতি দমন কমিশনে অনুসন্ধানাতীত তদন্তাধীন, বিবেচনাধীন থাকলে তা এখতিয়ার তদন্ত সংস্থা ও সম্পন্ন আদালতে স্থানান্তরিত করার বিধান করা হয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন