ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬, ১৪ সফর ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ব্যর্থ সরকার জুয়ায় আশ্রয় নিয়েছে : বিএনপি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

দেশ এখন জুয়াড়িদের দেশে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, এই সরকারকে যদি আমি বলি জুয়াড়ি সরকার, আমার অপরাধ হতে পারে না। কারণ, সরকার সব দিক থেকে ব্যর্থ হয়ে এখন জুয়ায় আশ্রয় নিয়েছে। তারা ভাবছে জুয়া খেলে যদি কোনো রকমে ক্ষমতায় টিকে থাকা যায়। কিন্তু যাবে না, কারণ এটা হচ্ছে গণতন্ত্রকামী মানুষের দেশ। এটা স্বাধীনতা যুদ্ধে গড়া বাংলাদেশ।

গতকাল (রোববার) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।
ভোটারবিহীন অবৈধ বর্তমান স্বৈরাচার সরকারের এই মুহূর্তে পদত্যাগ করা উচিত মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, অন্যথায় জনগণ অতীতে যেভাবে রায় দিয়েছে, সেভাবেই আপনাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেবে এবং আপনাদেরকে বাধ্য করবে জনগণের সরকার গঠন করার জন্য, পার্লামেন্ট গঠন করার জন্য এবং নির্বাচন করার জন্য। বিএনপি মহাসচিব বলেন, চিন্তা করতে পারেন! ছাত্রনেতা, ছাত্রলীগের প্রেসিডেন্ট তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলরকে বলেছেন যে, আপনার ৪০০-৫০০ কোটি টাকার যে প্রজেক্ট আছে এজন্য আমাকেই দিতে হবে ৮৬ কোটি টাকা। সেটাকে বলছে ফেয়ার শেয়ার। সেটা নাকি তার ভাগ। তিনি বলেন, আজকের খবরের কাগজে দেখবেন, এই যে শামীম (জি কে শামীম)। সে ৫০০ কোটি টাকার কাজ করছে বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে এবং এটা সম্পূর্ণ সে পায় সরকারের নির্দেশেই। আজকে প্রত্যেক আওয়ামী লীগের ছোট নেতা, বড় নেতা, পাতিনেতা, তাদের দাপটে বাংলাদেশে আর কেউ থাকতে পারছে না। সরকারি কর্মচারীরা চুপে চুপে চলে যান মানসম্মান, ইজ্জত নিয়ে। যা হুকুম করে তাই করতে হয়- চাঁদা দাও, নইলে যাও। টেন্ডার দাও, নইলে যাও। এই হচ্ছে অবস্থা।

অর্থনীতির ছাত্র ফখরুল বলেন, অর্থনীতি নাকি মডেল হয়ে গেছে, সাংঘাতিক রোলিং অর্থনীতি। এমন মডেল হয়েছে যে, মুখ থুবড়ে পড়েছে। ব্যাংকে গেলে- টাকা নাই। আপনি দুই লাখ টাকার চেক নিয়ে যান- বলবে ভাই আজকে দেয়া যাবে না, কালকে আসুন। ১০ লাখ তো প্রশ্নই ওঠে না। আর কী করছেন? যারা ঋণখেলাপি, তাদের ঋণ মাফ করে দিচ্ছেন। কারণ, আপনাদের বড় বড় নেতা-মন্ত্রী-অ্যাডভাইজার হাজার হাজার কোটি টাকার ঋণ নিয়েছে। আজকের পত্রিকায় আছে, এই যে ক্যাসিনো, এই ক্যাসিনোতে চাকরি করে কারা? বিদেশিরা, তারা টাকা পাচার করে। এক বছরে ২৭ হাজার কোটি টাকা পাচার হয়ে গেছে।

তিনি বলেন, কানাডায় বেগমপাড়াতে বাড়ি কিনে, মালয়েশিয়াতে সেকেন্ড হোম কিনে, লন্ডনের সবচাইতে উন্নত এলাকা আছে, সেখানে বাড়ি কেনা হয়। আমরা সব খবরই রাখি। কে কত টাকা পাচার করছেন, কে কতটি বাড়ি কিনছেন, কে কতগুলো ব্যবসা করছেন, সুইস ব্যাংকে কার কত টাকা জমা হচ্ছে- এদেশের মানুষ সমস্ত খবরই রাখে।

সরকারকে উদ্দেশ করে মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা চাই এখনও আপনাদের শুভবুদ্ধির উদয় হোক। দেশের মানুষের গণতন্ত্র ফিরিয়ে দিন এবং খালেদা জিয়ার মুক্তিতে কোনো বাধা হবেন না। তাকে আইনগতভাবে মুক্তি দিন। ভোট চুরি করে যে পার্লামেন্ট গঠন করেছেন তা বাতিল করেন। নিরপেক্ষ কমিশনের অধীনে নির্বাচন দিন।
তিনি বলেন, আজকে সকারের লোকেরা ইচ্ছামতো মানুষ খুন করে, ক্রসফায়ার করে। বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড হচ্ছে অবাধে। আমাদের নেতাকর্মীদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয়, জিজ্ঞাসা করলে বলা হয় জানি না। নিখুঁতভাবে গুম হয়ে যায় মানুষ। আমাদের এমপিও পর্যন্ত বাদ যায়নি।

খালেদা জিয়ার অসুস্থতার কথা জানিয়ে বিএনপির এই নেতা বলেন, আমরা একবারও বলি নাই বেগম জিয়াকে দয়া করে ছেড়ে দিন। দেশের একজন নাগরিক হিসেবে তার যেটা প্রাপ্য সে অধিকার থেকে থাকে বঞ্চিত করা হচ্ছে।
মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা কোর্টে যাই জামিনের জন্য। বিচারপতি সব বক্তব্য শুনে চলে যান। বলেন, ‘পরে আদেশ দেবো’। যখন ওপর থেকে নির্দেশ আসে পরে তিনি আদেশ দেন। এখন দেশে বিচার বিভাগের কোনো স্বাধীনতা নেই। সরকার বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রণ করছে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, অনেকে দোষারোপ করেন পুলিশকে। পুলিশ কী করবে? ওপর মহল থেকে যা হুকুম হয়, নির্দেশ হয় পুলিশের তা পালন করতে হয়। তারা হুকুম দিয়েছে ‘দেশে যারা গণতন্ত্র চায়, তাদের মারো’, পুলিশ হুকুম মতো মেরেছে। হুকুম দিয়েছে ‘নির্বাচনের সকল কেন্দ্র দখল করো’, পুলিশ করেছে।
আয়োজক সংগঠনের সভাপতি আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে মহিলা দলের সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খানসহ মহিলা দলের নেতারা বক্তব্য রাখেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন