শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯, ০২ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

গণগ্রেফতার বন্ধের আহ্বান হিউম্যান রাইটস ওয়াচের

প্রকাশের সময় : ১৮ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম | আপডেট : ১১:০৬ পিএম, ১৭ জুন, ২০১৬

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশে গণগ্রেফতারের ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়েছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)। সেই সাথে সেকুলার লেখক, সমকামী অধিকার কর্মী ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা তদন্ত করা এবং দোষীদের বাংলাদেশী কর্তৃপক্ষের বিচারের আওতায় আনা উচিৎ। কিন্তু, অপরাধের যথাযথ প্রমাণ ছাড়া বাছবিচারহীনভাবে মানুষকে গ্রেপ্তার করা অবিলম্বে বন্ধ করাও উচিৎ বলে মনে করে সংস্থাটি। গত বৃহস্পতিবার সংস্থার ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, অপরাধ ছাড়া শুধু সন্দেহের বশে গ্রেফতার করা অযৌক্তিক। গণগ্রেফতার বন্ধেও বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি।
বিবৃতিতে বলা হয়, জুনের ১০ থেকে ১৬ তারিখ পর্যন্ত দেশে ১১ হাজার মানুষকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এক্ষেত্রে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর উচিত নিয়ম মেনেই তা করা। সেক্ষেত্রে অপরাধমূলক কর্মকা-ের বিশ্বাসযোগ্য প্রমাণ সাপেক্ষে অভিযোগ আনাই শ্রেয়। সংস্থাটি জানায়, গ্রেফতারের পর বিচারের জন্য তাৎক্ষণিকভাবে আটকদের আদালতে হাজির করা উচিত। একই সাথে অভিযোগ প্রমাণিত না হলে শুধু শুধু হয়রানি না করে তাদের ছেড়ে দেয়ার বিষয়েও বিবৃতিতে তাগিদ দেয় সংস্থাটি।
বিবৃতিতে সংস্থার এশিয়া অঞ্চলের প্রধান ব্র্যাড অ্যাডামস জানান, এসব ভয়ঙ্কর হামলায় মন্থর ও প্রসন্ন প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনীগুলো। এখন তারা কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে সুষ্ঠু তদন্ত করার বদলে, গড়পড়তা সন্দেহভাজন’দের ধরপাকড় করার পুরোনো অভ্যাসে ফিরে গেছে।
তিনি আরও বলেন, এই হত্যাকা-গুলো বন্ধে ও দায়ীদের বিচারের মুখোমুখি করতে সরকারের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু সরকারকে এসব করতে হবে নিজেদের ফৌজধারি দ-বিধি ও আন্তর্জাতিক আইনে বেঁধে দেয়া যথাযথ নিয়মের মধ্য দিয়ে।
হিউম্যান রাইটস ওয়াচ লিখেছে, ওই হত্যাকা-ের প্রতিক্রিয়ায় কর্তৃপক্ষ প্রথম দিকে ছিল মন্থর। কয়েকটি মামলায় অল্প ক’জনকে আটক করা হয়। এ ধরনের কয়েকটি মামলায়, এইচআরডব্লিউ দেখতে পেয়েছে যে, ওই আটককৃতদের আনুষ্ঠানিকভাবে হত্যার দায়ে অভিযুক্ত করার কয়েক সপ্তাহ আগেই পুলিশ তাদের আটক করেছিল। তখন তাদের অবস্থান স¤পর্কে পরিবারকে কিছুই জানানো হয়নি। এদেরকে আইনি সহায়তা লাভের সুযোগ দিতেও ব্যর্থ হয়েছে পুলিশ।
তবে, ২৫ এপ্রিল দুই সমকামী অধিকার কর্মীর আলোচিত হত্যাকা- এবং ৫ জুন সন্ত্রাসবাদবিরোধী অভিযানের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত এক জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীকে হত্যার পর, এসব হত্যাকা- অবসানে চরমপন্থীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার ঘোষণা দেয় সরকার। এরপরই গণগ্রেপ্তার শুরু হয়।
প্রেক্ষাপট ব্যাখ্যা করতে গিয়ে এইচআরডব্লিউ লিখেছে, ইসলামী মূল্যবোধ ধারণ করে না, কথিত এমন ব্লগার ও অন্যদের হত্যা শুরু হয় ২০১৩ সালের দিকে। ২০১৪ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে স্থগিত ছিল এই হত্যাযজ্ঞ। ২০১৫ সালে আবারও শুরু হয়, যা এখনও চলছে। এই ‘চাপাতি হামলা’ প্রথমদিকে শুধু ব্লগারদের ওপরই হতো, যারা প্রকাশ্যে ধর্মনিরপেক্ষ বা নাস্তিক্যবাদী মূল্যবোধ নিয়ে লেখালেখি করতেন। কিন্তু পরে ধর্মীয় সংখ্যালঘু গোষ্ঠী, অধ্যাপক, শিক্ষার্থী, প্রকাশক ও সর্বশেষ সমকামী অধিকার কর্মীদের টার্গেট করা শুরু হয়।
সরকারের প্রাথমিক প্রতিক্রিয়ায় হত্যাকা-ের নিন্দা জানানো হতো বটে। কিন্তু, যারা টার্গেট হয়েছেন, তাদের প্রতি আহ্বান জানানো হতো এসব কর্মকা- বন্ধ করতে কিংবা লেখালেখি সেন্সর করতে। ২০১৩ সালে, কর্তৃপক্ষ চার ব্লগারকে ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত’ দেয়ার অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি করে। ২০১৫ সালে, ব্লগার নিলাদ্রি চ্যাটার্জি নিলয়ের হত্যাকা-ের পর, বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক মত প্রকাশের অধিকার সুরক্ষিত করার বদলে ব্লগারদের সতর্ক করে দিয়ে বলেন, ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়া একটি অপরাধ’।
সাম্প্রতিক ধরপাকড়ের অকল্পনীয় বিবরণ ইঙ্গিত দেয় যে, এসব অতীতের ধরপাকড়ের মতোই। পুলিশ নির্দিষ্ট কিছু জিনিসের সঙ্গে মিলে গেলেই লোকদের থামাচ্ছে। বিশেষ করে, যেসব এলাকায় পুলিশের সন্দেহ জঙ্গিদের আনাগোনা রয়েছে, সেখানে তরুণদের সঙ্গে এমনটা করা হয়। পুলিশের নিজেদের সূত্রই বলছে যে, আটককৃত ১১ হাজারেরও বেশি মানুষের মধ্যে মাত্র ১৪৫ জন কোন জঙ্গি সংগঠনের সদস্য। এসব অপরাধের সঙ্গে কোন ব্যক্তিবিশেষকে জড়িত করতে কোন সংগঠনের সদস্য হওয়াটাই যথেষ্ট প্রমাণ নয়।
গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, আটককৃতদের অনেককেই তাদের মুক্তির বিনিময়ে ঘুষ দিতে বাধ্য করা হয়েছে। এটি বাংলাদেশে সাধারণ চিত্র। উদাহরণস্বরূপ, এইচআরডব্লিউর কাছে জানানো হয়েছে চলমান ধরপাকড়ের একটি ঘটনা। তাতে দেখা যাচ্ছে, পুলিশ একজন তরুণকে আটক করেছে। তাকে নিজেদের হেফাজতে (কাস্টোডি) নিয়ে মারধোর করে। এরপর তার কাছ থেকে এক লাখ টাকা ঘুষ দাবি করে। অন্যথায়, তাকে সন্দেহভাজন মৌলবাদীদের তালিকায় ঢুকিয়ে দেয়ার হুমকি দেয় পুলিশ।
বাংলাদেশে নির্যাতন ও হেফাজতকালীন (কাস্টোডিয়াল) নির্যাতনের বেশ ভালো নথিবদ্ধ ইতিহাস রয়েছে। তাই আটক বা জিজ্ঞাসাবাদকালীন অবস্থায় আটককৃত ব্যাক্তির ক্ষতি হওয়ার সত্যিকার ঝুঁকি রয়েছে। এইচআরডব্লিউ নিজেই বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে আটককৃতদের নির্যাতন ও কাস্টোডিয়াল নির্যাতনের বিষয়টি নথিবদ্ধ করেছে। ২০০৮ সালে সংস্থাটির নিজেদেরই একজন পরামর্শকের (তাসনিম খলিল) ঘটনাও নথিভুক্ত ঘটনাসমূহের মধ্যে রয়েছে।
২০১২ সালে এইচআরডব্লিউ’র একটি প্রতিবেদনে নথিবদ্ধ করা হয়েছে বাংলাদেশ রাইফেলস কর্তৃক ২০০৯ সালের বিদ্রোহের ঘটনায় জড়িত সন্দেহভাজনদের গণগ্রেপ্তার, নির্যাতন ও হেফাজতকালীন মৃত্যুর ঘটনাসমূহ। এইচআরডব্লিউর পরবর্তী তদন্তসমূহে দেখা গেছে, ২০১৪ সালের জানুয়ারির সহিংস নির্বাচনের আগে ও পরে বাছবিচারহীনভাবে অবৈধ গ্রেপ্তার হয়েছে। কয়েকটি ঘটনায় অনেকের মৃত্যু ও গুমের ঘটনা ঘটেছে।
এইচআরডব্লিউ উল্লেখ করেছে যে, নির্যাতন ও বিচারহীনতার প্রতি ‘জিরো টলারেন্স’ প্রদর্শনের প্রতিশ্রুতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার দিয়েছিল।
ব্রাড অ্যাডামস বলেন, মাত্র কয়েকদিনের মাথায় হাজার হাজার মানুষের গণগ্রেপ্তার বাংলাদেশে একটি পরিচিত দৃশ্য। কিন্তু, এর মাধ্যমে ওই ভয়াবহ হত্যাকা- থামবে বা সুষ্ঠু প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হবে, তার ভরসা খুবই কম।’ তিনি বলেন, ‘দুনিয়াকে সংক্ষুব্ধ করে দেয়া ধারাবাহিক হত্যাকা-গুলোর পরিকল্পনা ও সেগুলো বাস্তবায়নের জন্য দায়ীদের খুঁজে বের করতে আন্তরিক তদন্ত পরিচালনা করা প্রয়োজন কর্তৃপক্ষের।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
Saiful Islam ১৮ জুন, ২০১৬, ১২:৩৪ পিএম says : 0
ওদের কথা এই দেশে কেউ শুনে?
Total Reply(0)
jamal ১৮ জুন, ২০১৬, ৪:৫৬ পিএম says : 0
manobadiker bole deshe kisu nai
Total Reply(0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps