ঢাকা, রোববার , ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১০ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

কক্সবাজারে লাখ লাখ টন লবণ মজুদ

শামসুল হক, শারেক, কক্সবাজার থেকে | প্রকাশের সময় : ২০ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:৪৭ এএম

২০১৮ সালের জমা আছে ৪ লাখ ৩৩ হাজার মে টন

দেশে লবণের কোন ঘাটতি নেই। কক্সবাজারে লাখ লাখ টন লবণ মজুত রয়েছে। লবণের বাজার স্বাভাবিক রয়েছে। কোন ধরনের মূল্যবৃদ্ধি হয়নি। বর্তমান যে পরিমাণ লবণ উদ্বৃত্ত রয়েছে তা দিয়ে আরো অন্তত দুই মাস চলবে। আর নতুন করে লবণ উৎপাদন চলছে। কক্সবাজারের লবণ চাষী ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দেশে লবণ সঙ্কটের কোনো আশঙ্কা নেই। বরং প্রতিবছর বিপুল পরিমাণ লবণ নষ্ট হয়ে যায়।
বিসিকের সূত্র মতে গত বছরের উৎপাদিত প্রায় ৪ লাখ ৩৩ হাজার মেট্রিক টন লবণ জমা আছে। আগামী অন্তবর্তী সময়ে লবণ ঘাটতির কোন আশঙ্কা নেই। গত ১৫ নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছে লবণ উৎপাদনের নতুন মৌসুম। গতকাল মঙ্গলবার সকালে কক্সবাজারে বাংলাদেশ লবণ মিল মালিক সমিতির সাধারণ সভায় মিল মালিকরা এসব কথা বলেন।

শহরের তারকা মানের একটি আবাসিক হোটেলের কনফারেন্স হল অনুষ্ঠিত মিল মালিক সভায় সমিতির সভাপতি নুরুল কবির বলেছেন, বর্তমানে তিন লক্ষ মেট্রিক টনের ওপরে লবণ উদ্বৃত্ত। কিছু মিল মালিকের কারণে মানব স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর সোডিয়াম সালফেট বাজারে সয়লাব হয়ে গেছে। বন্ড লাইসেন্স, কাস্টিং সল্ট ইত্যাদি নামে লবণ আমদানি করছিল একটা শ্রেণি। আমাদের কঠোরতায় ওই রকম লবণ আমদানি বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছি।
লবণের জাতীয় চাহিদা নিরূপণে সবাইকে এক টেবিলে বসতে হবে। আমরা লবণ ব্যবসায়ী ঐক্যবদ্ধ হলে এই খাতকে বাঁচানো সম্ভব। তাদের মতে ঘরের সমস্যা ঘরেই সমাধান করতে হবে।

লবণ ব্যবসায়ীরা বলেন, দেশের বাজারে লবণের কোন সঙ্কট নেই। অথচ গত সোমবার সন্ধ্যা রাতে এই লবণ নিয়ে ঘটে গেছে তুঘলকি কা-। সিলেট নয়, পুরো বিভাগজুড়েই একটি অসাধু ব্যবসায়ী চক্র অসৎ উদ্দেশ্যে গুজব ছড়িয়ে ফায়দা লুটার চেষ্টা করছে। সাধারণ মানুষকে বোকা বানিয়ে ফায়দা লুটছে একটি চক্র। তবে রাতেই ওই চক্রকে গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে। সাধারণ ক্রেতাদের বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানানো হয়েছে ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে।

লবণ মিল মালিকদের ওই সভায় বক্তব্য রাখেন -সমিতির সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম, আফতাব হোসেন, মাস্টার আব্দুল কাদের, এম কায়সার ইদ্রিস, মো. ফজলুল হক, ওমর ফারুক মিঠু, সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী। সভায় কার্যনির্বাহী সদস্য মো. আবু হানিফ ভূঁইয়া, মো. শহিদুজ্জামান শরিফ, আলহাজ মো. কামাল দেওয়ান, মো. আবুল কালাম আজাদ, হাজি এসএম ইজ্জত আলী, মীর আহম্মদ, সাদেক মোহাম্মদ, এম এ তাহের, গাজী সাব্বির আহমদ, অহিদুস সামাদ হেলাল, মো. কুতুব উদ্দিন, ফরিদুল ইসলাম, শেখ ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, অছিয়র রহমান চেয়ারম্যান, জাফর আহম্মদ, মো. কামাল শরীফসহ সমিতির সদস্য ও দেড় শতাধিক মিল মালিক উপস্থিত ছিলেন।


মিল মালিকরা বলেন, আয়োডিনের সর্বোচ্চ মূল্য ১০০০ থেকে ১২০০ হওয়া দরকার। কিন্তু আমাদের কিনতে হচ্ছে ৩০০০ টাকা পর্যন্ত দামে। আয়োডিনের দাম কমানো প্রয়োজন।

সভায় লবণ মিল মালিক বলেন, কালোবাজারী, উৎপাদিত লবণের ন্যায্য মূল্য না পাওয়া ও বিষাক্ত সোডিয়াম সালফেটের কারণে ধ্বংস হচ্ছে দেশীয় লবণ শিল্প। মাঠে ও মিলে পড়ে রয়েছে অন্তত ৬ লাখ মেট্রিক টন অবিক্রিত লবণ। কৃত্রিম সঙ্কট দেখিয়ে কালোবাজারীদের লবণ আমদানির কারণে দেশীয় লবণ খাত মাথা উচু করে দাঁড়াতে পারছেনা। পিছিয়ে যাচ্ছে দেশের এই স্বনির্ভর গুরুত্বপূর্ণ খাত। দরপতন অব্যাহত থাকলে চলতি মৌসুমে লবণ চাষিরা মাঠে যাবে কি না সন্দেহ রয়েছে।

লবণ মিল মালিক, ব্যবসায়ী, চাষিসহ সংশ্লিষ্টদের দাাব, দেশীয় লবণশিল্প বাঁচাতে সমস্ত লবণ আমদানি বন্ধ করতে হবে। ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে না পারলে মাঠে ফেরানো যাবে না চাষিদের। পরনির্ভর হবে দেশ। বাড়বে বেকারত্ব। সোডিয়াম সালফেটের আড়ালে যারা ইন্ডাস্ট্রিয়াল সল্ট, সোডিয়াম ক্লোরাইড আমদানি তাদের কঠোর হস্তে দমন করতে হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ৮০ কেজির লবণের বস্তা মাঠ পর্যায়ে বিক্রি হচ্ছে ৩০০-৩৫০ টাকা দরে। সে হিসেবে কেজিতে পড়ছে মাত্র ৪ টাকা। যা দিয়ে মজুরি বা উৎপাদন খরচও সামাল দিতে পারছেনা চাষিরা। অথচ বাজারে প্যাকেটজাত লবণ কেজিতে বিক্রি করা হয় প্রায় ৪০ টাকা। উৎপাদনের পর থেকে বাজারে পৌঁছা পর্যন্ত অন্তত ৩টি হাত বদল হয় লবণের।

লবণ মিল মালিকদের একটি সূত্র জানায়, অপরিশোধিত লবণ পরিশোধিত তথা খাবার উপযুক্ত ও বাজারজাত করতে কেজিতে সর্বোচ্চ ১ থেকে দেড় টাকা খরচ পড়বে। সে হিসেবে এক কেজি লবণের দাম হওয়ার কথা সাড়ে ৫ টাকার নিচে। কিন্তু বাজারে ভোক্তারা কিনছে প্রায় ৪০ টাকা। নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু হয়েছে লবণের মৌসুম। ইতোমধ্যে উপকূলীয় এলাকাগুলোতে লবণ উৎপাদন হচ্ছে। গেল মৌসুমেও অন্তত ৬ লাখ মেট্রিন লবণ উদ্বৃত্ত ছিল।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) কক্সবাজারের লবণ শিল্প উন্নয়ন প্রকল্প কার্যালয় সূত্র জানায়, ২০১৯-২০ মৌসুমে বিসিকের চাহিদা ১৮ লাখ ৪৯ হাজার মেট্রিন। লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৮ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিন। ২০১৮-১৯ মৌসুমে কক্সবাজার জেলায় উৎপাদনযোগ্য লবণ জমির পরিমাণ ছিল ৬০ হাজার ৫৯৬ একর। চাষির সংখ্যা ২৯ হাজার ২৮৭ জন। এই মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৮ লাখ মেট্রিক টন। বিপরীতে উৎপাদন হয়েছে ১৮ লাখ ২৪ হাজার টন। যা বিগত ৫৮ বছরের লবণ উৎপাদনের রেকর্ড ছাড়িয়েছে।

 

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন