ঢাকা, শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৫ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন স্থিতিশীল

মন্ত্রী মাইকেল গোভ আইসোলেশনে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ এপ্রিল, ২০২০, ৮:৪৬ পিএম

করোনভাইরাসে আক্রান্ত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন আইসিইউতে স্থিতিশীল এবং ভাল আছেন বলে জানিয়েছে ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটের একজন মুুখপাত্র। তিনি বলেছেন, ৫৫ বছর বয়সী প্রধানমন্ত্রী রাতে স্থির ছিলেন, তাকে অক্সিজেন দেয়া হচ্ছে এবং কোনও ভেন্টিলেটারে ছিলেন না। মি. জনসন রোববার লন্ডনের সেন্ট থমাস হাসপাতালে কোভিড-১৯ এর ‘ক্রমাগত লক্ষণ’ নিয়ে ভর্তি হয়েছিলেন এবং লক্ষণগুলো আরও খারাপ হওয়ার পরে সোমবার তাকে আইসিইউতে স্থানান্তরিত করা হয়।
গতকাল ডাউনিং স্ট্রিটের এক মুখপাত্র বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী রাতে স্থিতিশীল ছিলেন এবং ভাল প্রফুল্ল রয়েছেন। তিনি অক্সিজেনের মানসম্মত চিকিৎসা নিচ্ছেন এবং অন্য কোনও সহায়তা ছাড়াই শ্বাস নিচ্ছেন। ‘তার জন্য যান্ত্রিক বায়ুচলাচল বা আক্রমণাত্মক অ-আক্রমণাত্মক শ্বাসযন্ত্রের সমর্থন প্রয়োজন নেই’।
প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের অসুস্থতাজনিত অনুপস্থিতিতে সরকার পরিচালনায় নেতৃত্ব দেবেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী ডমিনিক রব। বরিস জনসন সুস্থ হওয়ার আগ পর্যস্ত দেশের বর্তমান বৃহত্তম জনস্বাস্থ্য সঙ্কটকালে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেন। ২৩ মার্চ ব্রিটেনকে তিন সপ্তাহের জন্য লকডাউনের ঘোষণা দেয়ার তিন দিনের মাথায় নিজে করোনা আক্রান্ত হওয়ার কথা প্রকাশ করেন বরিস জনসন। প্রথমে তিনি আইসোলেশনে ছিলেন। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সরকার পরিচালনায় প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিচ্ছিলেন তিনি।
রোববার শারীরিক পরিস্থিতির দ্রুত অবনতি হলে ডমিনিককে দায়িত্ব পালনের সিদ্ধান্ত দেন প্রধানমন্ত্রী। বরিস জনসনের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ডমিনিকের নামই অবশ্যই আলোচনা হচ্ছিল সকল মহলে। ইতিমধ্যে ডমিনিকের দুইদফা করোনা পরীক্ষায় নেগেটিভ ফলাফল আসে। ডাউনিং স্ট্রিটের একজন মুখপাত্র রোববার সন্ধ্যায় বলেন, বরিস জনসন আইসিইউতে ভর্তি হওয়ার সময় সচেতন ছিলেন। সাবধানতা হিসেবেই তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়েছে। স্বাস্থ্য সচিব ম্যাট হ্যানকক বলেছেন, যুক্তরাজ্যের নেতা ‘আমাদের দুর্দান্ত ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের কাছ থেকে সেরা যতœ’ পাবে। সোমবার সকালে বিবিসি রেডিও ফোর এর প্রোগ্রামে ডাচি অব লাংকাস্টারের চ্যাঞ্চেলর বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীকে কিছুটা অক্সিজেন সাপোর্ট দেয়া হয়েছিল। এখন অতিরিক্ত শ্বাসপ্রশ্বাসের প্রয়োজন হচ্ছে না।
বরিস জনসনের হাসপাতালে ভর্তি এবং ডমিনিক রাবকে আপতকালীন দায়িত্ব দেয়ার পর থেকে নানা আলোচনা শুরু হয়েছে গণমাধ্যমে। বরিসের অসুস্থতা দীর্ঘায়িত হলে কি হবে? ডমিনিক কতদিন ধরে নেতৃত্ব দেবেন? সেক্ষেত্রে কি রানী নতুন প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দেবেন? কনজারভেটিভ দল কি নতুন নেতৃত্ব নির্ধারণ করবে? এইসব দূরবর্তী প্রশ্নের পাশাপাশি কিছু প্রশ্ন এখন মুখোমুখি। সরকার কখন ঘোষিত লকডাউনটি মুক্ত করবে? এটি স্বল্পমেয়াদে আরও কঠোর করা হবে? সরকার কি করোনা পরীক্ষার সুযোগ বৃদ্ধি ও ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম সরবরাহ করতে পারবে। লকডাউনের কারণে নিন্ম আয়ের লোকজনের অর্থনৈতিক পরিণতিতে কী করা দরকার? বরিস জনসন তার সরকারকে সাধারণ নির্বাচনের বিজয়ী করতে যে দক্ষ নেতৃত্ব দিয়েছিলেন রাব তার কতটুকু ভার বহন করতে পারবেন?
দলের সাবেক কনজারভেটিভ নেতা ও প্রধানমন্ত্রীর বন্ধু ইয়ান ডানকান স্মিথ গণমাধ্যমকে বলেছেন, রাবের উপর পূর্ণ আস্থা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। তিনি প্রধানমন্ত্রীর অত্যন্ত ঘনিষ্ট এবং তার কর্মপরিকল্পনা, পদ্ধতি ও দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কে সবচেয়ে ভালো ধারণা রাখেন। বর্তমান পরিস্থিতিতে উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত নয়। ডমিনিক এই ভূমিকা পালনে সক্ষমের চেয়েও বেশি দক্ষ এবং সরকারে রয়েছে তার দুর্দান্ত অভিজ্ঞতা।
গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, বরিস জনসন যদি দ্রুত সুস্থ না হন বা দায়িত্ব পালনে অক্ষম হন সেক্ষেত্রে রানীকে নতুন প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ করতে হবে। এটার কোন বিকল্প নেই। কারণ ডমিনিক রাব স্বল্পমেয়াদে মন্ত্রিসভার নেতৃত্ব দিতে পারবেন। তবে তিনি পরবর্তী ডি জুরি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার বিষয়ে কোন নিশ্চয়তা নেই। ফলে রানীকে নতুন প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ করতে হবে। কনজানভেটিভ পার্টিতেও শক্তিশালী সংখ্যাগরিষ্ঠের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচনের প্রয়োজন হতে পারে। তবে করোনাভাইরাসজনিত সৃষ্ট পরিস্থিতির কারণে সেটা কখন হবে সেটা নিয়েও রয়েছে প্রশ্ন। আবার একটি জাতীয় সরকার গঠিত হওয়ার সম্ভাবনাও তৈরি হয়েছে। অন্যসব দলের সদস্যরা সঙ্কটকালীন সময়ে একটি সরকারকে সমর্থন করতে পারেন। এছাড়া বর্তমান সঙ্কটকালে কনজারভেটিভ দলের নেতৃত্ব নির্বাচনে নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী। যদিও সে সম্ভাবনা দূরবর্তী।
ব্রিটেনের অতীত নজির
ব্রিটেনের সরকার ব্যবস্থায় ডেপুটি প্রাইম মিনিস্টারের সাংবিধানিক কোনো তাৎপর্য নেই। আবার তাত্ত্বিকভাবে ব্রিটিশ রাজতন্ত্রের রয়েছে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের একচ্ছত্র অধিকার। তবে বিগত দুই শতাব্দী ধরে এটার কোন প্রায়োগিক বাস্তবতা নেই। ফলে কিছু আইনজীবী ডেপুটি প্রধানমন্ত্রীর অবস্থানকে সেটা দিয়ে বিবেচনা করেন। তবে ব্রিটেনের ইতিহাসে বিভিন্ন সময়ে নানাজন উপ-প্রধানমন্ত্রীর ভূমিকা পালন করেছেন। দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের সময় স্যার উইনস্টন চার্চিলের সাথে যুদ্ধকালীন সরকারে এ পদের দায়িত্ব পালন করেছেন ক্লেমেট অ্যাটলি। ২০১০ সালে ডেভিড ক্যামেরনের সাথে এই দায়িত্ব পালন করেছেন নিক ক্লেলগ। একইভাবে জন প্রেসকোট ছিলেন টনি ব্লেয়ারের ডেপুটি। জন মেজরের কার্যকালের শেষদিকে এ পদে কাজ করেছেন মাইকেল হেলসটাইন। ব্রিটেনের ইতিহাসে লৌহ মানবী খ্যাত মার্গারেট থ্যাচারের আমলে একজন ডেপুটি ছিলেন স্বল্প সময়। তবে সাম্প্রতিককালে থেরেসা মে বা গর্ডন ব্রাউনের সময় কোন উপ-প্রধানমন্ত্রী ছিলেন না।
ব্রিটেনে উপ-প্রধানমন্ত্রীর পদটি একটি অবৈতনিক চাকরি। ফলে যিনি এই পদে থাকেন তাকে অন্য একটি পদেও থাকতে হয়। চার্চিলের উপপ্রধানমন্ত্রী ক্লেইগকে রানীর প্রিভি কাউন্সিলের তত্ত্বাবধানে কাউন্সিলের লর্ড প্রেসিডেন্ট নিযুক্ত করা হয়েছিল। আর প্রেসকোট ও হেলস্টাইন ছিলেন ফার্স্ট সেক্রেটারি অফ স্টেট। এখন প্রশ্ন দাঁড়াচ্ছে- ফার্স্ট সেক্রেটারি অফ স্টেট কি? ব্রিটেনের সরকার ব্যবস্থায় ফার্স্ট সেক্রেটারি অফ স্টেটের ভূমিকাকে কখনও কখনও ‘ডি ফ্যাক্টো উপ-প্রধানমন্ত্রী‘ হিসাবে উল্লেখ করা হয়। উপ-প্রধানমন্ত্রী পদে আনুষ্ঠানিকভাবে নিয়োগের রীতি না থাকলেও পদবিটি মন্ত্রিপরিষদের অন্যমন্ত্রীদের চেয়ে প্রাধান্য দিয়ে তৈরি করা হয়। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে পদোন্নতি দেয়ার যোগ্যতা সম্পন্ন ব্যক্তিকেই ওইপদে নিয়োগ দেয়া হয়। বরিস জনসনের সাথে যেমন এই পদে ডমিনিক রাব দায়িত্ব পালন করছেন তেমনি তেরেসা মে‘র সাথে ড্যামিয়ান গ্রিন, ডেভিট ক্যামেরনের সাথে জর্জ ওসবার্ন ও উইলিয়াম হেগ, গর্ডন ব্রাউনের অধীনে মিটার ম্যান্ডেলসন ডেপুটির ট্যাগ ছাড়াই দায়িত্ব পালন করেন।
রাষ্ট্রপ্রধানদের শুভকামনা
বরিস জনসনের অসুস্থতার খবর পেয়ে দ্রুত আরোগ্যের জন্য শুভ কামনা জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বরিসকে ভালো বন্ধু আখ্যায়িত করে তার সুস্থতার জন্য সমস্ত আমেরিকান প্রার্থনা করবে বলে মন্তব্য করেন। ট্রাম্প বলেছেন, তিনি (বরিস) একজন দুর্দান্ত ভদ্রলোক এবং একজন মহান তো। আমি আশাবাদী এবং নিশ্চিত যে, তিনি ভাল হতে চলেছেন।
কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো দ্রুত আরোগ্যের প্রত্যাশা করে বলেছেন, শিগগিরই আপনাকে ১০ নম্বরে দেখব আশা করি। ফরাসী প্রেসিডেন্ট বলেছেন, এই ‘কঠিন মুহূর্তে’ প্রধানমন্ত্রী ও ব্রিটিশ জনগণের কাছে তার পূর্ণ সমর্থন জানাচ্ছেন। আমি এই পরীক্ষার সময়ে তার দ্রুত পুনরুদ্ধার কামনা করছি। স্কটল্যান্ডের প্রথম মন্ত্রী নিকোলা স্টারজিন টুইটে বরিস জনসন ও তার পরিবারকে শুভকামনা জানিয়েছেন। অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন, স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেড্রো সানচেজ শুভ কামনা জানিয়েছেন। এছাড়া নতুন লেবার নেতা স্যার কিরে প্রধানমন্ত্রীর অসুস্থতাকে ভয়াবহ দুঃখজনক সংবাদ উল্লেখ করে টুইটে বলেছেন, এই অবিশ্বাস্যভাবে কঠিন সময়ে প্রধানমন্ত্রী এবং তার পরিবারের সাথে রয়েছে পুরো দেশ।
সাবেক লেবার নেতা জেরেমি করবিন, লন্ডনের মেয়র সাদিক খান, সাবেক প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন, থেরেসা মে বরিসের প্রতি শুভ কামনা জানিয়েছেন।
ব্রিটিশ মন্ত্রী মাইকেল গোভ আইসোলেশনে
ব্রিটেনের ক্যাবিনেট মন্ত্রী মাইকেল গোভ বাসায় স্বেচ্ছা আইসোলেশন শুরু করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, তার পরিবারের একজন সদস্যের করোনাভাইরাস উপসর্গ দেখা দিয়েছে। বিবিসি টিভির সাময়িক ঘটনাবলীর অনুষ্ঠান নিউজনাইটের নীতি বিষয়ক সম্পাদক লুইস গুডল জানাচ্ছেন, ‘মি. গোভ যদিও বলছেন তিনি ডিজিটালি তার কাজকর্ম যথারীতি চালিয়ে যাবেন, কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর অনুপস্থিতিতে ক্যাবিনেট মন্ত্রিসভার দায়িত্ব এখন খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে’। ‘মি. গোভ সম্বন্বয়ের ক্ষেত্রে একটা কেন্দ্রীয় দায়িত্ব পালন করছিলেন- তার আইসোলেশনে যাওয়া পরিস্থিতিকে আরও কঠিন করে তুলবে’। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন আইসেলোশনে থাকা অবস্থা মিঃ গোভ কয়েকবার সরকারি দৈনিক ব্রিফিংও করেছেন। সূত্র : বিবিসি, রয়টার্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন