ঢাকা, মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৯ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

র‌্যাপিড ডট ব্লট সরকারের অনুমতি পাবে তবে...

সেমিনারে ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ মে, ২০২০, ১২:০২ এএম

গনস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) পরীক্ষায় পরীক্ষা পাসের পর অবশ্যই গনস্বাস্থ্যের কিট সরকারের অনুমতি পাবে বলে বিশ্বাস করি।

তারা র‌্যাপিড ডট ব্লট কিটের বিকল্প কোন বিকল্প বিবেচনা করছে না। তিনি বলেন, আমি শতভাগ নিশ্চিত কিট বিএসএমএমইউতে ট্রায়ালটি পাস করবে।
কিন্তু আমলাতান্ত্রিক জটিলতার জন্য এখন আক্রান্তদের সংখ্যা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশবাসীর জন্য যে কিটগুলির প্রয়াজনীয় উৎপাদন বিলম্বিত হয়েছে।

গতকাল গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে অনুষ্ঠিত কিটের উপর এক সেমিনারে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী এ সব কথা বলেন।
ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, যে প্রয়োজনীয়তা কোনও আইন জানে না, এই সংঙ্কটের মুহুর্তে যদি সরকারী সংস্থাগুলি এগিয়ে আসে তবে ড. বিজন কুমার সিলের আবিষ্কার থেকে আরও বেশি লোক উপকৃত হবেন। কিন্তু আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে এটি অনেক সময় নিচ্ছে।

তিনি সন্দেহ প্রকাশ করে বলেন, যে সরকারের বিলম্ব স্বীকৃতির কারণে অন্য বিজ্ঞানী উদ্ভাবক হিসাবে বিজনের কৃতিত্ব নিয়ে নিতে পেতে পারেন।
ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী এ সময় কিটের পর্যাপ্ত বিশাল উৎপাদনের জন্য লোন হিসাবে সরকারের কাছে ৫০ কোটি টাকা দাবি করেন।

বিজন শিল বলেন, তিনি এই কিটটি অ্যান্টি-বডি এবং অ্যান্টি-জেন উভয় পরীক্ষার জন্য লালা এবং এমনকি সোয়াব নমুনার নমুনা পরীক্ষা করার জন্য তৈরি করেছিলেন।
জিজ্ঞাসাবাদে জিকে’র কোনও কর্মকর্তাই নিশ্চিত হননি যে তারা কখন অনুমতি পাবে তবে তারা বলেছিল যে অনুমতি পাওয়ার সাথে সাথে তারা ব্যাপক উৎপাদনে যাবে যাতে সরকার প্রতিদিন ৫০ হাজার সন্দেহভাজনকে পরীক্ষা করতে পারে।

গত ১৩ মে জিকে তার কভিড -১৯ এর পরীক্ষা ২০০ টি কিট পরবর্তীতে আরো ২০০ টি মোট ৪০০ কিট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়কে তার পারফরম্যান্স ট্রায়ালের জন্য হস্তান্তর করা হয়েছে এবং ব্যয় হিসাবে বিএসএমএমইউ’র কাছে ৪ দশমিক ৩৫ লাখ টাকা জমা দিতে রাজি আছে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএসএমএমইউর সাবেক ভিসি প্রফেসর ডা. নজরুল ইসলাম এবং প্রফেসর কামরুল হাসান খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর একে একে আজাদ চৌধুরী এবং প্রফেসর মোজাহেরুল হক প্রমুখ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (13)
Bazlur Alo ২১ মে, ২০২০, ১:০৯ এএম says : 0
এই কারণেই পৃথিবীতে করোনার আবির্ভাব ঘটেছে। হিংসা, মানুষ হয়ে মানুষকে মূল্যায়ন করতে অনিহা, নানা অপরাধ, অপকর্মে জড়িয়ে পড়া। হীন মানসিকতা পরিহার করে মানুষ মানুষের জন্য কাজ করতে হবে। কারো মাধ্যমে কারো নূ্্যনতম খতি না করা। একদিন সবাইকে তার অপকর্মের জন্য জবাবদিহি করতে হবে।
Total Reply(0)
Md Solayman ২১ মে, ২০২০, ১:০৯ এএম says : 0
ভুল দেশে জন্ম নিয়েছেন স্যার। সমবেদনা ছাড়া আর কিছুই দেয়ার নেই আপনাকে। আল্লাহ আপনার সহায় হোক।
Total Reply(0)
Monir Hossain Moni ২১ মে, ২০২০, ১:০৯ এএম says : 0
গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের করোণা টেস্টিং কিট অনুমোদন দিলে তো ঔষধ প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দুর্নীতি করতে পারবেন না। সেজন্যই কালক্ষেপণ করছেন। কিভাবে এটাকে পরীক্ষায় ফেল দেখানো যায়।
Total Reply(0)
Rokon Biswas ২১ মে, ২০২০, ১:১০ এএম says : 0
হবে না হবে না। এ মাটিতে মীর জাফর খন্দকার মোশতাক এর দাপট বেশি। আজ পর্যন্ত ওদের ছায়া থেকে কেউ বের হয়ে আসতে পারে নাই বলবো না কারণ ওদের কেই বেশি পছন্দ
Total Reply(0)
Harun Rashid ২১ মে, ২০২০, ১:১০ এএম says : 0
ফর্মুলা বেচে দেন বিদেশে নতুন নামে আমদানি করে আনবে সরকার।ব্যবসা হবে ভাল।আমরা বলীর পাঠা জনগন মরলে তাতে কার কি।
Total Reply(0)
Shankor Dutta ২১ মে, ২০২০, ১:১০ এএম says : 0
ওই কিট আর বাংলাদেশে চলবে না ? চললে আরো আগে চলতো। ওই চিন্তা বাদ দেন? আপনি গোরাতে ভুল করে ফেলছেন । বুঝলে বুজে নেন না হয় ....
Total Reply(0)
Md Dewan Dewan ২১ মে, ২০২০, ১:১১ এএম says : 0
এখনো যদি সরকারের ম্যাকানিজমের ইস্পেয়ার পার্টসগুলো নড়বড়ে হয়ে থাকে তাহলে দুর্ঘটনা অনিবার্য
Total Reply(0)
Nur Alam ২১ মে, ২০২০, ১:১১ এএম says : 0
ওরা চায় দেশে ইতালির মত অবস্তা হউক তাহলে তারা ক্ষমতাধর লোক তাদের সম্পদ লুটপাট করে খেতে পারবে।
Total Reply(0)
Tareq Anam ২১ মে, ২০২০, ১:১১ এএম says : 0
দুর্নীতিবাজ এসব লুটপাট কারী প্রশাসন দেশ ও জাতির শত্রু। এরা যত বড় মহামারি ই হোকনা কেনো, লুটপাটে ব্যস্ত ও হারাম নীতি ই এদের এখন আদর্শ। এরা ই জালিম করোনা ভাইরাসের অন্য রুপ।
Total Reply(0)
Mohammed Shah Alam Khan ২১ মে, ২০২০, ১১:০৬ পিএম says : 0
ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী এই সংবাদ অনুযায়ী এখনও বিএসএমএমইউ’র ব্যয় হিসাবে ৪ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা এখনও জমা দেননি এটাকে নিন্দুকেরা আইন অমান্য করা বলছে। জাফরুল্লাহ সাহেব এই কিট নিয়ে এর জন্মলগ্ন থেকেই সরকারকে এক হাত দেখে নেয়ার জন্যেই বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন আইন অমান্য করে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করে জনগণকে সরকারের বিরুদ্ধে দাড়করানোর প্রচেষ্টায় আছে বলে নিন্দুকেরা উক্তি করেছেন। নিন্দুকেরা আরো বলেন, এভাবেই বিরোধী দলিয় তথাকথিত (গ্রাম মানে না আমিই মোড়ল) বুদ্ধিজীবী জাফরুল্লাহ সাহেবের সরকার বিরোধী লুকিচুরি খেলার একটা অভ্যাস। এনারা ২০০ কিটের পরিবর্তে ৪০০ কিট দিয়েছেন এটা ডাঃ জাফরুল্লাহ সাহেবের একটা মশকাড়া করেছেন বলে নিন্দুকেরা বলছে। নিয়ম অনুযায়ী দেয়ার কথা ২০০ কিট ও ব্যয় বাবদ ৪ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা সেটা না করে ডাক্তার সাহেব কিট দিয়েছে ২০০ যায়গায় ৪০০ কিন্তু এটা পরীক্ষা করার জন্যে যে ব্যয় দেয়ার কথা সেটা দেননি তাহলে আইন মতে এখন পরীক্ষা কিভাবে অগ্রসর হবে এটা একটা প্রশ্নের সৃষ্টি করেছে। নিন্দুকেরা মনে করে এখন ডাঃ জাফরুল্লাহ সাহেবের এসব দুষ্টু বুদ্ধি বাদ দিয়ে নিয়ম মাফিক কাজ করে যাওয়া উচিৎ। আল্লাহ্‌ আমাদের দেশের দুষ্টু বুদ্ধিজীবীদেরকে দুষ্টু বুদ্ধি বাদ দিয়ে সঠিক পথে চলার ক্ষমতা দান করুন। আমিন
Total Reply(0)
Amir Hossain ২২ মে, ২০২০, ৩:৫৫ এএম says : 0
I want urgent realisation by the authority.
Total Reply(0)
Amir Hossain ২২ মে, ২০২০, ৩:৫৫ এএম says : 0
I want urgent realisation by the authority.
Total Reply(0)
Amir Hossain ২২ মে, ২০২০, ৩:৫৫ এএম says : 0
I want urgent realisation by the authority.
Total Reply(0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন