ঢাকা, বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৩ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

মাথায় গুরুতর জখম নিয়ে হাসপাতালের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও মেলেনি চিকিৎসা

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২২ মে, ২০২০, ৭:১৬ পিএম

রাজধানীর অন্তন ১০টি হাসপাতাল ঘুরেও চিকিৎসা মেলেনি মোছাদবর আলী (৬০) নামের এক বৃদ্ধার। তার মাথা ফেটে গুরুত্বর আহত অবস্থায় হাসপাতালের দ্বারে দ্বারে ঘুরলেও কেউ ভর্তি নেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন স্বজনেরা। তারা জানান, করোনার কোনো লক্ষণ না থাকলেও গতকাল শুক্রবার রাজধানীর কোনো হাসপাতালই মোছাদবরকে ভর্তি করেনি। মাথা ফাটার পাশাপাশি ডায়াবেটিক ও হার্টের সমস্যাও রয়েছে মোছাদবরের। রাজধানীর মালিবাগের ৪১২/ বি চৌধুরীপাড়ার বাসায় বৃহস্পতিবার রাতে সেহেরী খাওয়ার পর হঠাৎ পড়ে যান মোছাদবর আলী। এসময় তার মাথা ফেটে গেলে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে তার মাথায় ৬টি সেলাই দেয়া হয়। পরে ওই রাতেই তাকে বাসায় নিয়ে আসেন। পরদিন গতকাল শুক্রবার তার অবস্থার অবনতি হলে দিনভর বিভিন্ন হাসপাতাল ঘুরলেও তাকে কেউ ভর্তি নেয়নি।
মোছাদবর আলীর স্ত্রী পারভীন আলী জানান, বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে সেহেরী খাওয়ার জন্য ওঠে মোছাদবর। এসময় হঠাৎ পড়ে গিয়ে মাথা ফেটে রক্ত পড়তে থাকে। তিনি এ সময় জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। তাকে দ্রুত স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিলে মাথায় ৬ টি সেলাই দিয়ে বাসায় পাঠিয়ে দেয় হাসপাতালের চিকিৎসকরা। মোছাদবর আলীর ডায়াবেটিক রয়েছে। এছাড়া তার হার্টে রিং পড়ানো আছে। ফলে শুক্রবার সকালে তার অবস্থার অবনতি হয়। এ অবস্থায় প্রথমে খিলগাঁও খিদমা হাসপাতালে নিলে সেখানে ভর্তি করতে অস্বীকৃতি জানায় হাসপাতাল কতৃপক্ষ। তার করোনার কোনো লক্ষণ না থাকলেও তারা ভর্তি করেনি। পরে হৃদরোগ ইনস্টিটিউট, ল্যাবএইডসহ অন্তত ১০টি হাসপাতালে গেলেও কেউ ভর্তি করেনি। দিনভর বিভিন্ন হাসপাতালে ঘুরে ভর্তি করাতে না পেড়ে নিরুপায় হয়ে বাসায় ফিরে আসি।
তিনি বলেন, মোছাদবর আলীর শরীরে করোনার কোনো লক্ষণ নেই। তার পরও কোনো হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়নি। এমন অবস্থা হলে আমরা কোথায় যাবো। বিনা চিকিৎসায় মারা যাওয়া ছাড়া কোন লক্ষন নেই। তবে একজন পরিচিত চিকিৎসকের টেলিফোনের পরামর্শে চিকিৎসা চলছে বলে মোছাদবর আলীর স্ত্রী পারভীন আলী জানান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন