ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

পানির ভেতরে ঈদের জামাত নিয়ে স্যোশাল মিডিয়ার প্রতিক্রিয়া

সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ মে, ২০২০, ৮:৪০ পিএম

কোমর পানির ভেতর দাঁড়িয়ে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন খুলনার কয়রার মানুষ। ঘূর্ণিঝড় ‘আমফান’-এ মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে কয়রা উপজেলার। এতে উপজেলার ২১ জায়গায় ৪০ কিলোমিটারের অধিক বেড়িবাঁধ ভেঙে গেছে। সোমবার পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিনও বাঁধ নির্মাণে কাজ করছেন উপজেলার হাজারো মানুষ। শুধু তাই নয়, বন্যার পানিতে দাঁড়িয়েই ঈদের নামাজও আদায় করেন তারা। বিষয়টি নিয়ে স্যোশাল মিডিয়ার নানা প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন নেটিজেনরা।

এ বিষয়ে আমিনুল ইসলাম তার ফেইসবুকে লিখেন, ‘ইয়া আল্লাহ এই সমস্ত অসহায় মানুষদের কান্না আর চোখের পানির বিনিময়ে বাংলার জমিন থেকে যাবতীয় বাংলা মুসিবত উঠিয়ে নাও।’

‘ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে থাকবে ঈদুল ফিতর ২০২০।’ - এসএম শাহিন আলমের মন্তব্য।

ক্ষোভ প্রকাশ করে এমডি কাসেম লিখেন, ‘এই বেড়িবাঁধের সমস্যা আজকের না, এই কয়েক বছর আগের, পানি উন্নায়ন বোর্ড এতো বছর আশা দিয়ে এসেছে কিছু করে নাই, দূর্যোগ আসলে তাদের মুখ খুলে। তারপর ঘুমিয়ে যায়, উন্নায়নের জোয়ারের পানির ঠেলায় বাঁধ ভেঙ্গে গেছে।’

মো. মঞ্জুর উল ইসলাম লিখেন, ‘আমার কাছে মনে হচ্ছে, এই সেজদাগুলা আল্লাহর কাছে সবচেয়ে বেশি পছন্দনীয় হয়েছে। আল্লাহ সবার উপর রহম করুন।’

জাহিদুর রহমান লিখেন, ‘কোমর পানির ভেতর দাঁড়িয়ে ঈদের নামাজ আদায়ে ইসলামি শরীয়তের বিধান আমার জানা নেই। কিন্তু নামাজ আদায়ে তাদের এই ত্যাগ ও প্রচেষ্টা আমার খুব ভালো লেগেছে। তাদের সকলে প্রতি রইলো অনেক দোয়া, ভালোবাসা ও সম্মান।’

এমডি জাবের লিখেন, ‘হে আল্লাহ তুমি সকলের এবাদত কবুল করে নেও, আমিন।’

‘আল্লাহ্ তুমি কয়রাবাসী জনগণের উপর রহম করো।’ - নজরুল ইসলাম কামরুলের প্রার্থনা।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
শওকত আকবর ২৭ মে, ২০২০, ৮:১৩ এএম says : 0
এ দৃস্য দেখে হতবাক।একবার পত্রিকায় দেখেছিলাম মাঠি তলিয়ে থাকায় লাশ দাফন করতে না পাড়ায় কলাগাছের ভেলায় চিরকুট লিখে নদীতে ভাসিয়ে দিয়াছিল।ইত্তেফাকের মুলাদি সংবাদদাতা দুঃখ করে বলে ছিলেন যে মুলাদি এলাকাটাও তখন পানীর তলদেশে যার জন্য লাশটি আবার নদীতে ভাসিয়ে দেওয়া হয়।ইনকিলাবের একজন প্রথিতযষা কলামিষ্ট মোবায়েদুর রহমান দুঃখ করে লিখেছিলেন এইযখন দেশের অবস্থা তখন রাজধানীর প্রেখ্খাগৃহে অশ্লিল ব্যাহায়াপনা কুরুচিপুর্ন চলচিত্র প্রর্দশিত হয় কি করে।আজও দেশের এ অবস্হায় মাদক চোরাচালানি নারীশিশু ধর্ষন অহরহ ঘটছে কেমনে??
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন