ঢাকা, সোমবার, ০৬ জুলাই ২০২০, ২২ আষাঢ় ১৪২৭, ১৪ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

ইসলামী জীবন

কুসংস্কাররোধে খলিফা উমর (রা.)-’র ঐতিহাসিক চিঠি : তারপরে আর শুষ্ক হয়নি নীলনদ

মোহাম্মদ আবদুল অদুদ | প্রকাশের সময় : ৩১ মে, ২০২০, ১:৩৭ পিএম

হযরত উমর (রা.) ছিলেন ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা এবং প্রধান সাহাবীদের অন্যতম। আবু বকরের (রা.) মৃত্যুর পর তিনি দ্বিতীয় খলিফা হিসেবে দায়িত্ব নেন। উমর (রা.) ইসলামি আইনের একজন অভিজ্ঞ আইনজ্ঞ ছিলেন। ন্যায়ের পক্ষাবলম্বন করার কারণে তাকে আল ফারুক (সত্য মিথ্যার পার্থক্যকারী) উপাধি দেয়া হয়। আমীরুল মুমিনীন উপাধিটি সর্বপ্রথম তার ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়েছে। ইতিহাসে তাকেই প্রথম উমর হিসেবে উল্লেখ করা হয়।
২০ হিজরি সনে দ্বিতীয় খলিফা হযরত উমর (রা.)-এর শাসনামলে বিখ্যাত সাহাবি আমর ইবনুল ‘আছ (রা.)-এর নেতৃত্বে সর্বপ্রথম মিশর বিজিত হয়। মিশরে তখন প্রবল খরা। নীলনদ পানিশূন্য হয়ে পড়েছে। সেনাপতি আমরের নিকট সেখানকার অধিবাসীরা অভিযোগ তুললেন, হে আমীর! নীলনদ তো একটি নির্দিষ্ট নিয়ম পালন ছাড়া প্রবাহিত হয় না। তিনি বললেন, সেটা কি? তারা বলল, এ মাসের ১৮ দিন অতিবাহিত হওয়ার পর আমরা কোনো এক সুন্দরী যুবতীকে নির্বাচন করব। অতঃপর তার পিতা-মাতাকে রাজি করিয়ে তাকে সুন্দরতম অলংকারাদি ও উত্তম পোশাক পরিধান করানোর পর নীলনদে নিক্ষেপ করব।
আমর ইবনুল আছ (রা.) তাদেরকে বললেন, ইসলামে এ কাজের কোনো অনুমোদন নেই। কেননা, ইসলাম প্রাচীন সব জাহেলী রীতি-নীতিকে ধ্বংস করে দেয়। অতঃপর তারা পর পর তিন মাস পানির অপেক্ষায় কাটিয়ে দিল। কিন্তু নীলনদের পানিতে হ্রাস-বৃদ্ধি কিছুই পরিলক্ষিত হ’ল না। অতঃপর সেখানকার অধিবাসীরা দেশত্যাগের কথা চিন্তা করতে লাগলো। এ দুর্যোগময় অবস্থা দৃষ্টে সেনাপতি আমর ইবনুল আছ (রা.) খলীফা উমর (রা.)-এর নিকটে পত্র প্রেরণ করলেন।

উত্তরে ওমর (রা.) লিখলেন, ‘হে আমর! তুমি যা করেছ ঠিকই করেছ। আমি এ পত্রের মাঝে একটি পৃষ্ঠা প্রেরণ করলাম, যা তুমি নীলনদে নিক্ষেপ করবে।’ ওমরের (রা.) পত্র যখন আমরের নিকটে পৌঁছালো, তখন তিনি পত্রটি খুলে তাতে এ বাক্যগুলো লিখিত দেখলেন, ‘আল্লাহর বান্দা আমীরুল মুমিনীন উমর-এর পক্ষ থেকে মিসরের নীলনদের প্রতি। যদি তুমি নিজে নিজেই প্রবাহিত হয়ে থাক, তবে খলিফা হিসেবে নির্দেশ দিচ্ছি প্রবাহিত হও। আর যদি একক সত্তা, মহাপরাক্রমশালী আল্লাহ তোমাকে প্রবাহিত করান, তবে আমরা আল্লাহর নিকটে প্রার্থনা করছি, যেন তিনি তোমাকে প্রবাহিত করেন।’

অতঃপর আমর (রা.) পত্রটি নীলনদে নিক্ষেপ করলেন। পর দিন শনিবার সকালে মিশরবাসী দেখল, আল্লাহ তা‘আলা এক রাত্রে নীলনদের পানিকে ১৬ গজ উচ্চতায় প্রবাহিত করে দিয়েছেন। তারপর থেকে আজও পর্যন্ত নীলনদ প্রবাহিতই রয়েছে। কখনো শুষ্ক হয়নি।

(তথ্যসূত্র : আল-বিদায়াহ ৭/১০০; তারীখু দিমাশক ৪৪/৩৩৭; তাবাকাতুশ শাফিয়া আল-কুবরা ২/৩২৬)।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (28)
kamal uddin ১ জুন, ২০২০, ৬:০৮ এএম says : 0
আলহামদুলিল্লাহ। আল্লাহু আকবার।
Total Reply(0)
Harun ২ জুন, ২০২০, ৮:৫৬ এএম says : 0
amin
Total Reply(0)
মোহাম্মদ মহিউদ্দিন শাহিন ২ জুন, ২০২০, ৩:৪৬ পিএম says : 0
ছোবাহান আল্লাহ।
Total Reply(0)
md mahmud ৪ জুন, ২০২০, ৬:২৮ পিএম says : 0
Subhanallah
Total Reply(0)
মাকসুদুর রহমান ৫ জুন, ২০২০, ৭:৪৫ পিএম says : 0
আলহামদু লিল্লাহ সব আল্লাহর ইচ্ছা ।
Total Reply(0)
শহীদুল ইসলাম ৭ জুন, ২০২০, ৬:২৮ এএম says : 0
মাশাআল্লাহ
Total Reply(0)
Md Nazmul ৯ জুন, ২০২০, ৩:১৭ পিএম says : 0
আল্লাহু আকবার আলহামদু লিল্লাহ সব আল্লাহর ইচ্ছা ।
Total Reply(0)
KADIR AHMED ১৪ জুন, ২০২০, ১০:১৯ পিএম says : 0
আলহামদু লিল্লাহ সব আল্লাহর ইচ্ছা
Total Reply(0)
Md.Rocky ১৬ জুন, ২০২০, ৯:২৯ এএম says : 0
সুবহান আল্লাহ
Total Reply(0)
সুবহান আল্লাহ ১৭ জুন, ২০২০, ১:১২ পিএম says : 0
সবই মহান আল্লাহ পাকের ইচ্ছা।
Total Reply(0)
khaiul islam ১৮ জুন, ২০২০, ৮:৫২ এএম says : 0
bortoman musolmander shei emani shokti nei
Total Reply(0)
ইবনে কাশিম ২০ জুন, ২০২০, ৬:৪১ পিএম says : 0
~যদি তুমি নিজে নিজেই প্রবাহিত হয়ে থাক, তবে তোমার পানির কোন প্রয়োজন নেই। আর যদি একক সত্তা, মহাপরাক্রমশালী আল্লাহ পাক উনার নির্দেশ মুবারকে যদি প্রবাহিত হও তাহলে আমদের পানির প্রয়োজন আছে। এই বাক্যটা এটা এইরকম হবে।
Total Reply(1)
Zahid ২২ জুন, ২০২০, ১:৪৪ পিএম says : 0
Alhamdulillah
Sohel Mahmud ২৩ জুন, ২০২০, ৩:৫২ পিএম says : 0
This is called of emani shokti
Total Reply(0)
Sohel Mahmud ২৩ জুন, ২০২০, ৩:৫২ পিএম says : 0
This is called of emani shokti
Total Reply(0)
Nazmul Huda ২৩ জুন, ২০২০, ৫:৪৭ পিএম says : 0
আল্লাহু আকবার
Total Reply(0)
Nazmul Huda ২৩ জুন, ২০২০, ৫:০৯ পিএম says : 0
আল্লাহু আকবার
Total Reply(0)
Nazmul Huda ২৩ জুন, ২০২০, ৬:১৬ পিএম says : 0
হজরত আমর (রা.) সংযুক্ত পত্রটি দেখলেন, এতে লেখা আছে— ‘এ পত্র আল্লাহর বান্দা আমীরুল মুমিনীন ওমর (রা.)-এর পক্ষ থেকে মিসরে প্রবাহিত নীল নদের প্রতি— হামদ ও সালাতের পর, ‘হে নীল নদ! তুমি যদি নিজ ক্ষমতায় প্রবাহিত হয়ে থাক, তবে তোমার পুনরায় প্রবাহিত হওয়ার প্রয়োজন নেই। আর যদি তোমাকে আল্লাহতায়ালা প্রবাহিত করে থাকেন, তবে আমি মহান পরাক্রমশালী আল্লাহর দরবারে দোয়া করি, তিনি যেন তোমাকে পুনরায় পূর্বের ন্যায় প্রবাহিত করে দেন।’
Total Reply(0)
Md. Imran Hossain ২৪ জুন, ২০২০, ৫:০৪ পিএম says : 0
amin
Total Reply(0)
Saydul ২৬ জুন, ২০২০, ২:৫৩ পিএম says : 0
Subhan Allah
Total Reply(0)
milton ২৮ জুন, ২০২০, ৩:৫৫ পিএম says : 0
আলহামদুলিল্লাহ। আল্লাহু আকবার।
Total Reply(0)
md.Amzad hossain ২৯ জুন, ২০২০, ৩:২৯ পিএম says : 0
আলহামদু লিল্লাহ সব আল্লাহর ইচ্ছা ।
Total Reply(0)
md. fazlul karim ৩০ জুন, ২০২০, ৯:১৮ পিএম says : 0
বলুন, এটি ওমর রাঃ এর কারামাত
Total Reply(0)
মোঃ ইসমাইল ৫ জুলাই, ২০২০, ১২:৪০ পিএম says : 0
আল্লাহু আকবার
Total Reply(0)
মোঃ ইসমাইল ৫ জুলাই, ২০২০, ১২:৪০ পিএম says : 0
আলহামদুলিল্লাহ। আল্লাহু আকবার।
Total Reply(0)
মোঃ ইসমাইল ৫ জুলাই, ২০২০, ১২:৪১ পিএম says : 0
আলহামদুলিল্লাহ্
Total Reply(0)
MD HANIF MIAH ৬ জুলাই, ২০২০, ১:৫৭ পিএম says : 0
আলহামদুলিল্লাহ। আল্লাহু আকবার।
Total Reply(0)
MD HANIF MIAH ৬ জুলাই, ২০২০, ১:৫৭ পিএম says : 0
আলহামদুলিল্লাহ। আল্লাহু আকবার।
Total Reply(0)
zillur rahman ৬ জুলাই, ২০২০, ১২:৩২ পিএম says : 0
Alhumdlillhah
Total Reply(0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন