ঢাকা সোমবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২১, ০৪ মাঘ ১৪২৭, ০৪ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

নিয়ন্ত্রণে শিবির-ছাত্রদল!

ফেঞ্চুগঞ্জ ছাত্রলীগের কমিটি, কার্যক্রম স্থগিত : তদন্ত কমিটি ম্যানেজের চেষ্টা

সিলেট ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ২৬ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম

অনুপ্রবেশকারী তথা ছাত্রশিবির ও ছাত্রদলের নিয়ন্ত্রণে সিলেট ফেঞ্চুগঞ্জ ছাত্রলীগের কমিটি। সেই সাথে বিবাহিতরাও এ কমিটিতে। এ কমিটির অধীনে উপজেলার স্থানীয় ইউনিয়নগুলোতে একই অবস্থা। ২০১৭ সাল থেকে চিত্র এমন হলেও নির্বাক ছিলেন সংশ্লিষ্টরা। বরং শিবির-ছাত্রদলের অনুপ্রবেশকারীদের তোয়াজ করেই জয় বাংলা শ্লোগান তুলতে হয়েছে ছাত্রলীগের স্থানীয় সাধারণ নেতাকর্মীদের।

তবে বোধোদয় ঘটেছে দলের শীর্ষ নীতিনির্ধারকদের। গত সোমবার স্থগিত করা হয়েছে বিতর্কিত কমিটিকে। ছাত্রলীগ কেন্দ্রিয় কমিটির সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ স্থগিতাদেশ দেয়া হয়। পাশাপাশি অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ে দুই সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ৭ দিনের মধ্যে সুপারিশসহ তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে তাদেরকে।

সম্প্রতি, ফেঞ্চুগঞ্জ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এ এম ফারহান সাদিকের কিছু স্থিরচিত্র ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। ২০০৮ সালের এ ছবিগুলো ছিল ছাত্রশিবিরের তৎকালীন স্থানীয় শীর্ষ নেতৃবৃন্দের সাথে। ছবির ভাষায় অনুমেয় হয় ছাত্রশিবিরের সাথে ফারহানের অতীত সখ্যতা। তারপরও ফেঞ্চুগঞ্জ ছাত্রলীগে ফারহানের দাপুটে অবস্থানে কোণঠাসা ছিল মূলধারার মুজিব আদর্শের কর্মীরা। কমিটি ছাত্রলীগের হলেও তৃণমূলে ছাত্রলীগের কমিটিতেও শক্ত অবস্থানে গড়ে তোলে শিবির-ছাত্রদলের চিহ্নিত নেতাকর্মীরা। এতে ছাত্রলীগের মোড়কে পাকাপোক্ত অবস্থানে পৌঁছে শিবির-ছাত্রদলের দাপট।

স্থানীয় সূত্র জানায়, স্থগিত কমিটির সভাপতি মো. জুনেদ আহমদ আওয়ামী পরিবারের সদস্য হলেও শিবির-ছাত্রদলের সাথে তার সখ্যতা প্রশ্নবিদ্ধ। তার এ আপোষ চরিত্রকে মেনে নিতে পারেনি সাধারণ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। সভাপতি হওয়ার পর থেকে দল গোছানোর পরিবর্তে ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলে ব্যাপক তৎপর হয়ে উঠেন তিনি। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে বালু জুনেদ নামে পরিচিত লাভ করেন। তার বিরুদ্ধে কুশিয়ারা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের অভিযোগ দেয়া হয় দুদকসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বরাবরে। মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি নিয়ে বালু মহাল নিয়ন্ত্রণের নামে কোটি কোটি টাকা পকেটস্থ করেন এবং দলের রাজনীতিকে করেন বিতর্কিত। তার অন্যতম সহযোগী ফেঞ্চুগঞ্জ ছাত্রলীগ কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক তোফায়েল আহমদ ইমন বালুখেকো চক্রের চিহ্নিত এক সদস্য। এক কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক জাবেদুর রহমান ড্যানিস ছিলেন তালামীযে ইসলামীয়ার ২নং মাইজগাঁও ইউনিয়ন সভাপতি। তার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারসহ চাঁদাবাজির ব্যাপক অভিযোগ রয়েছে।

ইতোমধ্যে সহ-সভাপতি মো. জালাল আহমদ, সহ-সভাপতি মো. আরিফ আহমদ ও সাংগঠনিক সম্পাদক জাবেদুর রহমান ড্যানিসকে চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপের অভিযোগে বহিষ্কার করেছিল ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সংসদ। তৎকালীন কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসেন এ বহিষ্কারাদেশ প্রদান করেছিলেন। স্থগিতাদেশ কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ টিটু ছাত্রদল রাজনীতিতে ছিল সক্রিয়। ছাত্রদলের বিভিন্ন কর্মসূচীতে অংশ গ্রহণের ছবি এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হচ্ছে ভাইরাল।

এর মধ্যে কমিটির অপর এক সহ-সভাপতি মুহিত আহমদ শাহ, নাহিদ সুলতান পাশা এখন বিবাহিত। আরেক সহ-সভাপতি মেহরাব হোসেন জুনেল এক সময় ছাত্রদল রাজনীতিতে ছিলেন সক্রিয়। ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ কমিটি শিবির ছাত্রদলের নিয়ন্ত্রণে চলে যাওয়ায় তৃণমূলেও পড়েছে প্রভাব।

এদিকে, কেন্দ্রের নির্দেশনা অনুযায়ী ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ কমিটির উপর আরোপিত অভিযোগ তদন্তে গতকাল বুধবার সিলেটে এসে পৌঁছেছেন ২ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির সদস্যরা। ২ দিন সিলেটে তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা শেষে আগামী শুক্রবার ঢাকায় ফিরবেন তারা। একাধিক সূত্র জানিয়েছে, তদন্ত কমিটিকে ম্যানেজ করতে নানামুখী তৎপরতা চালাচ্ছেন স্থগিত কমিটির কয়েকজন নেতাকর্মী। বিভিন্নভাবে টাকা সংগ্রহ করছেন ম্যানেজ কারার জন্য।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ৯ জানুয়ারী ফেঞ্জুগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন দেয় সিলেট জেলা কমিটি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন