মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯, ১০ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ভূ-রাজনীতিতে চীন কীভাবে যুক্তরাষ্ট্রকে পেছনে ফেলছে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩১ জানুয়ারি, ২০২১, ৫:১৫ পিএম

দাবা নিয়ে তৈরি নেটফ্লিক্সের ‘দ্য কুইনস গ্যাম্বিট’ সিরিয়ালটি জনপ্রিয়তার তালিকায় উপরেই রয়েছে। এখন সম্ভবত ‘দ্য রাইজ অব ফিনিক্স’ দেখার সময় হয়েছে, যা ওয়েইকিকে নিয়ে তৈরি হয়েছে। প্রায়শই বলা হয় যে, পশ্চিমে কৌশলগত খেলার মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় হচ্ছে দাবা। চীনের ক্ষেত্রে সেটি হচ্ছে ওয়েইকি (এগিয়ে যাও)।

দেশ দুইটির রাজনৈতিক নেতারাও যে খেলাগুলো খেলেন তার সাথে তাদের নিজ নিজ দেশের খেলার মিল রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র যেখানে ‘মোডাস অপারেন্ডি’ নীতির আলোকে শাসক পরিবর্তনের মাধ্যমেই কর্তৃত্ব কায়েম করতে পছন্দ করে, চীন সেখানে ওয়েইকি খেলোয়ারের মতো আরও বেশি মনোযোগি, আরও বেশি অঞ্চল অর্জন করার জন্য তাকে চারপাশ থেকে ঘিরে ধরে। বিগত দশকগুলোতে, যুক্তরাষ্ট্র আফ্রিকা, পূর্ব ইউরোপ এবং মধ্য প্রাচ্যের বিভিন্ন দেশকে লক্ষ্য করে বহু নির্বাচনের ক্ষেত্রে সামরিক পদক্ষেপ, নিষেধাজ্ঞা ও হস্তক্ষেপ করেছে। তবে গত দশ বছরে, চীন তার পরিকল্পনাগুলোকে ওয়েইকি বোর্ডের মতো অবস্থানে চালিত করছে। পশ্চিমা বিশ্ব যে অঞ্চলকে তার খেলার মাঠ মনে করে, চীন সেখানে ধীরে ধীরে তবে অবশ্যই বাণিজ্য, অবকাঠামো, মূল সংস্থান এবং বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের মতো পরিকল্পনাগুলো বিচক্ষণতার সাথে ব্যবহার করে নিজেদের আয়ত্বে নিয়ে এসেছে।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের চাপানো বাণিজ্য যুদ্ধ এবং তার পার্থিব ব্যক্তিত্ব শি জিনপিংয়ের অবিচল হাতে মোকাবেলা করেছেন। করোনা মহামারি মোকাবেলায় ব্যর্থতার পাশাপাশি পাশ্চাত্যে যখন গণতান্ত্রিক ও রাজনৈতিক অস্থিরতা চলছে, চীন তখন তার ক্ষতিগ্রস্থ অর্থনীতি পুনরুদ্ধার করার পাশাপাশি, রেকর্ড বাণিজ্য উদ্বৃত্ত অর্জন করেছে। এই রাউন্ডে নিশ্চিতভাবেই বিজয়ী শি জিনপিং। এই দশকের বাকি অংশের জন্য, পশ্চিমারা জেগে উঠছে এবং বুঝতে পেরেছে যে, চীন তাদেরকে সম্পূর্ণরূপে ঘিরে ফেলেছে ভবিষ্যতে শীর্ষে উঠার পথে এগিয়ে চলেছে। এর একটি ভালো উদাহারন হচ্ছে হুয়াওয়ে।

প্রযুক্তি, সরবরাহের চেইন, বাণিজ্য রুট এবং নতুন বাজারগুলো হবে নতুন যুদ্ধের নতুন অঙ্গন। জো বাইডেন প্রশাসন নিঃসন্দেহে চীনের বিপক্ষে নেতৃত্ব অব্যাহত রাখবে এবং তার পরামর্শদাতারা ওয়েইকির মতো কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করলে ভাল করবে। সত্যি বলতে গেলে, সে ক্ষেত্রে এর অর্থ হবে আফ্রিকাতে আরও বিনিয়োগ, যুক্তরাষ্ট্রে নতুন উৎপাদন ক্ষমতা সৃষ্টি এবং উচ্চতর মানের জীবনযাত্রা। সূত্র: সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন