ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

শাহজালালে অস্ত্রসহ বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত দুই জার্মান আটক

প্রকাশের সময় : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে নয়টি পিস্তলসহ বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ২ জার্মান নাগরিককে আটক করেছে ঢাকা কাস্টমস হাউজ। আটকরা হলেন- আনিস ও মনির।
গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে বিমানবন্দরের গ্রিন চ্যানেল এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা কাস্টমস হাউজের সহকারী কমিশনার এইচ এম আহসানুল কবির। তিনি জানান, বিমান থেকে নামার পর তাদের পিস্তলসহ আটক করা হয়। প্রথমে তারা এগুলো খেলনা পিস্তল বললেও পরে আমরা পরীক্ষা করে দেখি, পিস্তলগুলো আসল ছিল।
আনিসুল ইসলাম ও মনির বিন আলী নামের ওই দুই ব্যক্তি জার্মান পাসপোর্টধারী। খেলনা পিস্তলের ঘোষণা দিয়ে আনা অস্ত্রগুলো নিয়ে তারা বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন বলে কাস্টমস কর্মকর্তাদের ভাষ্য।
শুল্ক বিভাগ জানায়, মঙ্গলবার সকালে দুবাই থেকে আসার সময় গ্রিন চ্যানেল থেকে দুইজনকে আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে জার্মানের তৈরি নাইন এমএমপিএকে মডেলের চারটি ও তুরস্কের তৈরি নাইন এমএম মডেলের পাঁচটি পিস্তল ও বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ১২ বোতল মদ উদ্ধার করা হয়।
তবে ঢাকা কাস্টম হাউসের কমিশনার লুৎফর রহমান বলেন, এমিরেটসের একটি ফ্লাইটে দুবাই হয়ে মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকায় নামেন ওই দুই ব্যক্তি। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গ্রিন চ্যানেল পার হওয়ার সময় তাদের আটক করা হয়।
কাস্টম হাউসের সহকারী কমিশনার এইচ এম আহসানুল কবীর আরো জানান, খেলনা পিস্তল ঘোষণা দিয়ে একটি কার্টনে করে অস্ত্রগুলো আনা হয়। দুইজনকে আটক করার পর অস্ত্রগুলো পরীক্ষা করার জন্য র‌্যাবের বিশেষজ্ঞকে ডেকে আনা হয়। বিশেষজ্ঞরা সেগুলো ‘আসল’ বলে জানালে বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ওই দুই জার্মান যাত্রীকে আটক করা হয়।
কাস্টমস কর্মকর্তারা জানান, নয়টি বিদেশী পিস্তলসহ ওই দুইজনকে আটক করা হয়। আটক দুইজন হলেনÑ মনির বিন আলী ও আনিসুল ইসলাম তালুকদার। তাদের দু’জনেরই বাড়ি মুন্সীগঞ্জে। তবে আটকদের একজন দাবি করেছেন, আটক হওয়া বস্তুগুলো খেলনা পিস্তল।
ঢাকা কাস্টম হাউসের এক কর্মকর্তা বলেন, সকাল ৮টা ৪০ মিনিটে দুবাই থেকে আসা এমিরেটস এয়ারলাইন্সের ইকে-৫৮২ নম্বর ফ্লাইটযোগে ঢাকায় আসেন ওই দুইজন। গ্রিন চ্যানেল অতিক্রম করার সময় তাদের ব্যাগ স্ক্যানিং করে পিস্তলগুলো উদ্ধার করা হয়। আটক দুইজনের বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় মামলা করার প্রক্রিয়া চলছে। আনিসুল ইসলামের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান থানার জইনাসার গ্রামে ও মনির বিন আলীর বাড়ি মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর থানার কেউটখালী গ্রামে।
আটক আনিসুল ইসলামের দাবি, এগুলো খেলনা পিস্তল। তিনি জানান, জার্মানির মিউনিখে মনির বিন আলীর সঙ্গে তিনি মিউনিখ শহরে থাকেন, সেখানে তারা দুইজন ব্যবসা করেন।
আনিসুল ইসলামের এই দাবির বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা কাস্টমস হাউসের যুগ্ম কমিশনার এস এম সোহেল রহমান বলেন, এগুলো খেলনা নাকি আসল পিস্তল তা যাচাইয়ের জন্য বিশেষজ্ঞদের ডাকা হয়েছে। তাদের মতামতের আলোকে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন