মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০, ১৬ শাবান সানি ১৪৪৫ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

দৈনিক ইনকিলাবের প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা এম এ মান্নান (রহ.)-এর ১৬তম ওফাত দিবস আজ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:০২ এএম

দৈনিক ইনকিলাবের প্রতিষ্ঠাতা, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন ও ইসলামী চিন্তাবিদ, সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী, ধর্ম ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আলহাজ্ব মাওলানা এম এ মান্নান (রহ.) এর ১৬তম ওফাত দিবস আজ। বহু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা ও অভিভাবক বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সভাপতি এই ক্ষণজন্মা আলেম ২০০৬ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি ইন্তেকাল করেন। এ উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের আয়োজনে মহাখালীর মসজিদে গাউছুল আজমে আজ বাদ এশা দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। করোনা মহামারির কারণে এবার বিশেষ সেমিনার বা আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে না।

হযরত মাওলানা এম এ মান্নান (রহ.) ছিলেন একজন ক্ষণজম্মা আলেম। তিনি ছিলেন ঐক্যের প্রতীক এবং নেতৃত্ব ও সেবার প্রেরণা। সদালাপী, বন্ধু বৎসল্য, অতিথিপরায়ণ ব্যক্তি হিসেবে তিনি সুপরিচিত। উদার ও অমায়িক এ মানুষটির সান্নিধ্যে এসে যে কেউই মুগ্ধ না হয়ে পারতেন না।

মাওলানা এম এ আবদুল মান্নান (রহ.) এর অসংখ্য অবদান রয়েছে। বিশেষ করে সরকারি ও বেসরকারি স্কুল কলেজের শিক্ষকদের বেতন, ভাতা ও অনুদান বাড়ানোর পিছনে তার অবদান অবিস্মরণীয়। মাদ্রাসা শিক্ষার উন্নয়ন ও শিক্ষকদের জীবনমানের উন্নয়নেও তার অনেক অবদান রয়েছে। এছাড়াও ১৯৮৭ সালের বন্যাতেও তার অবদান স্মরণীয়। বাংলাদেশের ১৯৮৭ সালের মহা বন্যার সময় তিনি বিদেশ থেকে বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো থেকে অনেক ত্রাণ এনেছেন। তিনি ছিলেন একজন সমাজসেবক ও দানবীর। তিনি অনেক স্কুল, মাদ্রাসা ও মসজিদ তৈরি করেছেন। তিনি ঢাকার মহাখালিতে গাউছুল আজম জামে মসজিদ নির্মাণ করেন।

মাওলানা এম এ মান্নান (রহ.) ছাত্র হিসেবে ছিলেন তুখোড় মেধাবী। শিক্ষক হিসেবে ছিলেন মানুষ গড়ার দক্ষ কারিগর। শিক্ষক সংগঠক হিসেবে ছিলেন দিক-দিশারী। বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের তিনি রূপকার। মাদরাসা শিক্ষকদের সংগঠন বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের তিনি সভাপতি ছিলেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালনে তিনি স্মরণীয় কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখে গেছেন। তিনি ফরিদগঞ্জ মজিদিয়া আলিয়া মাদরাসাকে সর্বোচ্চ স্তরে উন্নীত করেছেন। ইসলামপুরে (চাঁদপুর) ফাজিল মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেছেন। তার প্রচেষ্টায় দেশের বিভিন্ন এলাকায় বহু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। তিনি ছিলেন বহু প্রতিষ্ঠানের অবিভাবক। ছারছীনা দারুচ্ছুন্নাৎ আলিয়া মাদরাসাসহ বহু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অবকাঠামোগত উন্নয়নে তার অবদান অবিস্মরণীয়। স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা প্রতিষ্ঠা, ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে তার অবিরাম চেষ্টা ও সাধনা চিরস্মরণীয়।

বাংলাদেশে ইসলামী চিন্তা-চেতনা সংহতকরণে তিনি দৈনিক ইনকিলাব প্রতিষ্ঠা করেছেন। ইনকিলাবের মাধ্যমে এদেশে দ্বীনি চেতনাসম্পন্নদের আশা-আকাক্সক্ষা, স্বপ্ন বাস্তবে রূপ লাভ করে। বাংলাদেশ সৃষ্টির পর ইসলামী চেতনাভিত্তিক ইনকিলাবের ন্যায় পত্রিকার সফলতা ছিল প্রায় অসম্ভব এবং অপ্রত্যাশিত। মাওলানা এম এ মান্নান (রহ.) এ অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন। সর্বগ্রাসী হতাশার দিগন্তে ইসলামী চেতনাসম্পন্নদের নিকট মাওলানা আবদুল মান্নান তাই এক অনুপ্রেরণার নাম।

চাঁদপুর জেলার, ফরিদগঞ্জ উপজেলায় ১৯৩৫ সালের মার্চে তার জন্ম হয় এক পীরানা ঘরানায়। পিতা সুফী শাহ মোহাম্মদ ইয়াছীন রহ. ছিলেন ফুরফুরা শরীফের প্রখ্যাত পীর হযরত মাওলানা আবু বকর সিদ্দীকী (রহ.) এর খলিফা, একজন উচ্চস্তরের আধ্যাত্মিক ব্যক্তিত্ব। তেমনি তার মায়ের বাবা মানে নানা মাওলানা আবদুল মজীদ (রহ.)ও ছিলেন উক্ত পীর সাহেবের খলীফা একজন ওলীয়ে কামেল।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (13)
সাদ বিন জাফর ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩০ এএম says : 0
মরহুম মাওলানা আব্দুল মান্নান সাহেবকে আল্লাহতায়ালা উচ্চপর্যায়ের শিক্ষা, মেধা, প্রজ্ঞা, দূরদর্শিতা দিয়ে ছিলেন। মাদরাসা শিক্ষকসহ সমগ্র শিক্ষক সমাজের হৃদয়ের স্পন্দন ছিলেন তিনি। মরহুম মাওলানা আব্দুল মান্নান সাহেব দেশে ও ইসলামী বিশ্বের সকল রাষ্ট্র প্রধানদের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখতেন। তিনি সকল প্রতিকূলতা দক্ষতার সাথে মোকাবিলা করেছেন। প্রকৃত অর্থে মরহুম মাওলানা আব্দুল মান্নান সাহেবের তুলনা তিনি নিজেই।
Total Reply(0)
তাসলিমা বেগম ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩১ এএম says : 0
বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, সাবেক ধর্ম ও ত্রাণমন্ত্রী, মসজিদে গাউছুল আজম ও দৈনিক ইনকিলাবের প্রতিষ্ঠাতা মরহুম মাওলানা এম এ মান্নান (রহ.) ছিলেন ইসলামী চিন্তাবিদ, দার্শনিক, বিচক্ষণ রাজনীতিক এক মহান ব্যক্তিত্ব। তার দক্ষতা, প্রজ্ঞা ও দূরদর্শিতা ছিল বিরল। মহান আল্লাহ প্রিয় এই ব্যক্তিটিকে জান্নাতবাসী করুন। আমীন।
Total Reply(0)
রিদওয়ান ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩১ এএম says : 0
মরহুম মাওলানা আব্দুল মান্নান সাহেবকে আল্লাহতায়ালা উচ্চপর্যায়ের শিক্ষা, মেধা, প্রজ্ঞা, দূরদর্শিতা দিয়ে ছিলেন। মাদরাসা শিক্ষকসহ সমগ্র শিক্ষক সমাজের হৃদয়ের স্পন্দন ছিলেন তিনি। মরহুম মাওলানা আব্দুল মান্নান সাহেব দেশে ও ইসলামী বিশ্বের সকল রাষ্ট্র প্রধানদের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখতেন। তিনি সকল প্রতিকূলতা দক্ষতার সাথে মোকাবিলা করেছেন। প্রকৃত অর্থে মরহুম মাওলানা আব্দুল মান্নান সাহেবের তুলনা তিনি নিজেই।
Total Reply(0)
Mahabub Alam ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩১ এএম says : 0
আল্লাহ মরহুমকে জান্নাতে উঁচু মাকাম দান করুন। দেশের অসংখ্য স্কুল-কলেজ ও মাদরাসার অধিকার বঞ্চিত হাজার হাজার শিক্ষকের মুখে হাসি ফোটাতে মরহুম মাওলানা এম এ মান্নান (রহ.) যে ত্যাগ স্বীকার করে গেছেন তা স্মরণীয় হয়ে থাকবে আজীবন। তিনি আলেম ওলামা, পীর মাশায়েখ ও শিক্ষক সমাজের শ্রদ্ধেয় পথিকৃৎ ছিলেন। উনাদের পক্ষ থেকে কেয়ামত পর্যন্ত ঈসালে সওয়াব মরহুমের নিকট পৌঁছাতে থাকবে।
Total Reply(0)
আরাফাত হোসেন রবিন ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩২ এএম says : 0
প্রিয় মাওলানা মরহুম এম এ মান্নান (রহ.) কেবল একটি নাম নয়, একটি চেতনা, একটি নেতৃত্ব এবং একটি সাধনার প্রতীক। তিনি ছিলেন তীক্ষ্ণ মেধার অধিকারী প্রথিতযশা মহাক্কেক। তিনি ছিলেন এক খানদানী ঐতিহ্যের অধিকারী ক্ষণজন্মা ব্যক্তিত্ব, একটি ইতিহাস ও চেতনা। এদেশের আলেম সমাজ কাকে সবসময় স্মরণ করবে।
Total Reply(0)
M.M. Atikol Islam ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩২ এএম says : 0
মরহুম মাওলানা এম এ মান্নান মানুষে জন্য দুনিয়াতে যে খেদমত করে গেছেন সে কর্মসমূহের সওয়াব নিয়মিত পৌঁছাতে থাকবে, ইনশায়াল্লাহ।
Total Reply(0)
Ibrahim Khalil ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩২ এএম says : 0
মাওলানা মান্নান জাতীয় দুর্যোগ মূহূর্তে নানানভাবে অসাধারণ ভূমিকা রেখেছিলেন। মাদরাসা শিক্ষাসহ শিক্ষাব্যস্থার উন্নয়ন, ওলামায়েকেরামের ঐক্য প্রতিষ্ঠায় যথেষ্ট অবদান রেখে গেছেন। আল্লাহ তাকে উত্তম পুরস্কার দিন।
Total Reply(0)
MD Year Ali Sikder ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩২ এএম says : 0
শুকরিয়া। মাওলানা সাবের বিশেষ অবদানের মধ্যে রয়েছে শত শত মাদরাসা প্রতিষ্ঠা, লাখ লাখ মাদরাসা শিক্ষকদের জন্য প্রতিষ্ঠিত জমিয়াতুল মোদার্রেছীন এবং দৈনিক ইনকিলাব। তার এই সব নেক কাজের আজীবন সওয়াব পেতে থাকবেন ইনশায়াল্লাহ।
Total Reply(0)
Kazi Suzon ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩৩ এএম says : 0
আল্লাহ তায়ালা মরহুমকে জান্নাতবাসী করুন। তার খেদমতকে কবুল করে দেশের আলেম সমাজকে ঐক্যবদ্ধ করুন। আমীন।
Total Reply(0)
তাহমিদ ফেরদৌস ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩৪ এএম says : 0
I believe Alhaj Maulana M.A. Mannan, one of the topmost Alim of our country and he was a legendary person. May Allah give him Jannah.
Total Reply(0)
Kabir ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩৪ এএম says : 0
আসুন আমরা সকলেই মরহুম মগফুর মাওলানা এম এ মান্নান (রহ:)-এর প্রদর্শিত পথ অনুসরণ করে সকল ভেদাভেদ ও মতপার্থক্য ভুলে দরবার, খানকা, পীর-মাশায়েখ, আলেম-ওলামা, ঐক্যবদ্ধ হয়ে সমাজে ইসলামি মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠায় এগিয়ে আসি।
Total Reply(0)
M N Ahmed ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১২:৩৪ এএম says : 0
বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের আজীবন সভাপতি হিসেবে মাদরাসা শিক্ষায় বিস্ময়কর উন্নয়ন ও মাদরাসা শিক্ষকদের ভাগ্যোন্নয়ন ও মর্যাদাবৃদ্ধি মরহুম মাওলানা এম এ মান্নান (রহঃ)-এর অসাধারণ অবদান।
Total Reply(0)
মোহাম্মদ দলিলুর রহমান ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ৮:২৯ এএম says : 0
আমি উনার রুহেরমাগফেরাত কামনা করি,উনি ভালো একজন নেতা ছিলেন,আমি সচিবালয়ে উনার অফিসে পেইন্টারের কাজ করাইয়াছিলাম।
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন