বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ২১ আশ্বিন ১৪২৯, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

ইসলামী বিশ্ব

প.বঙ্গে ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ছে পাকিস্তানে নিয়ন্ত্রণের বাইরে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

পাকিস্তানজুড়ে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। এ সময়ে অনেক এলাকায় জ¦র কমানোর ওষুধের সংকট দেখা দিয়েছে। যা-ও কিছু ওষুধ পাওয়া যায়, তার দাম বেড়ে গেছে। ব্যাপকভাবে ডেঙ্গু এবং অন্য মহামারির প্রাদুর্ভাব আক্রান্ত করছে পাকিস্তানকে। জিও নিউজের এক খবরে বলা হয়েছে, প্রতিদিনই অধিক থেকে অধিক সংখ্যক মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হচ্ছেন। এতে চারদিকে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক এবং ভয় ছড়িয়ে পড়েছে। ডেঙ্গু ভয়াবহ আকার ধারণ করতে শুরু করেছে পাঞ্জাব, সিন্ধু, খাইবার পখতুনখাওয়া ও বেলুচিস্তানে। ২৪ ঘন্টায় বন্দর নগরী করাচিতে আরও একজন মারা গেছেন। অতি বর্ষণের পরে খাইবার পখতুনখাওয়া মশার বংশ বিস্তারের উর্বর ক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। সেখানে কমপক্ষে দুই হাজার মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। করাচিতে হাসপাতালগুলোতে ডেঙ্গু রোগিদের জন্য যে ওয়ার্ড সংরক্ষিত রাখা হয়েছে, তা রোগিতে ভরপুর। পাঞ্জাবে মশাবাহিত রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ১২৫ জন। স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য অনুযায়ী এই প্রদেশে ডেঙ্গুতে মারা গেছেন চারজন। সিন্ধু প্রদেশে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে কমপক্ষে ৬২১। অপরদিকে, ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ডেঙ্গুর প্রকোপ ক্রমশ বাড়ছে। মূলত কলকাতা, উত্তর ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি, মুর্শিদাবাদ, জলপাইগুড়ি ও দার্জিলিঙে বাড়ছে প্রকোপ। রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, রোববার রাজ্যে আরও ৫৪৮ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। শনিবারের তুলনায় রাজ্যে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা অনেকটাই বেড়েছে। কলকাতা, হাওড়া ও উত্তরপাড়া পৌরসভা এলাকায় ডেঙ্গু পরিস্থিতি বেশ জটিল। কলকাতার পাশাপাশি সংলগ্ন জেলার পৌরসভাগুলিতেও যাতে ডেঙ্গু মোকাবিলার কাজে কোনও কমতি না থাকে, সে দিকে নজর দিতে ইতিমধ্যেই নিজে বৈঠক করেছেন পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। কিন্তু পরিস্থিতি এখনও নিয়ন্ত্রণে নয়। বরং আগামী সপ্তাহে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। রোববারও কলকাতায় এক নারী মৃত্যু হয়েছে ডেঙ্গুতে। হরিদেবপুরের বাসিন্দা ওই রোগী চিকিৎসাধীন ছিলেন বাইপাসের কাছে একটি বেসরকারি হাসপাতালে। শেষ পর্যায়ে তার অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ বিকল হয়ে যাওয়ায় ভেন্টিলেশন সাপোর্ট দিতে হয়েছিল। এই নিয়ে গত সাত দিনে চার জনের মৃত্যু হল শহরে। দক্ষিণ কলকাতার পরিস্থিতি উল্লেখযোগ্যভাবে খারাপ। সেখানকার একাধিক ওয়ার্ডের ঘরে ঘরে জ্বরে আক্রান্ত মানুষ। অনেকেই ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি। জিও নিউজ, অনলাইন এবিপি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন