শুক্রবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১৪ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ভিজ্যুয়ালাইজড : বিশ্বের জনসংখ্যা ৮ বিলিয়ন

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:৫৪ এএম

২০২২ সালের শেষের দিকে পৃথিবীর জনসংখ্যা ৮শ’ কোটির ঘরে প্রবেশ করতে যাচ্ছে, যা মানব সভ্যতার জন্য একটি নতুন মাইলফলক তৈরি করবে। এমনটাই জানিয়েছে তথ্যভিত্তিক গবেষণা সংস্থা ‘ভিজুয়াল ক্যাপিটালিস্ট’। তাদের চলতি মাসের একটি সমীক্ষা বলছে যে, মাত্র ৪৮ বছরের মধ্যেই বিশ্বের জনসংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে ৪শ’ কোটি থেকে ৮শ’ কোটি হতে যাচ্ছে।

২০২২ সেপ্টেম্বরের তথ্য অনুযায়ী প্রতিটি দেশের জনসংখ্যার ভিত্তিতে ১ম স্থানে অবস্থান করছে চীন (জনসংখ্যা ১শ’ ৪৫ কোটি ১৮ লাখ ৩২ হাজার ৬৪)। ২য় অবস্থানে রয়েছে ভারত (১শ’ ৪১ কোটি ৯ লাখ ৮২ হাজার ২শ’ ৪৩), ৩য় স্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র (৩৫ কোটি ৩৯ লাখ ১ হাজার ৯শ’ ৫৭), ৪র্থ ইন্দোনেশিয়া (২৮ কোটি ১৩ লাখ ৯ হাজার ৩শ’ ৮৩), ৫ম স্থানে আছে পাকিস্তান (২৩ কোটি ৯ লাখ ১৮ হাজার ৭৩), ৬ষ্ঠ নাইজেরিয়া (২১ কোটি ৮২লাখ ৪৩ হাজার ২শ’ ৪১), ৭ম ব্রাজিল (২১ কোটি ৫৯ লাখ ৮৬ হাজার ৫শ’ ৭৭), ৮ম বাংলাদেশ (১৬ কোটি ৮৪ লাখ ৩৬ হাজার ৭শ’ ৯২), ৯ম স্থানে রাশিয়া (১৪ কোটি ৬০ লাখ ৭৪ হাজার ১শ’ ৩০), এবং ১০ম স্থানে রয়েছে মেক্সিকো (১৩ কোটি ২০ লাখ ৩০ হাজার ৭শ’ ৩৯) ২০২২ সালের হিসাবে, আফ্রিকার মোট জনসংখ্যা ১শ’ ৪০ কোটি মানুষ। দ্রæততম বৃদ্ধির হারের অনেক দেশ আফ্রিকায় অবস্থিত এবং ২০৫০ সালের মধ্যে মহাদেশের জনসংখ্যা ২শ’ ৫০ কোটি উন্নীত হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। নাইজেরিয়া আফ্রিকার সবচেয়ে জনবহুল দেশ এবং মহাদেশটির এর বৃহত্তম অর্থনীতি। বর্তমান জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারের উপর ভিত্তি করে নাইজেরিয়ার বৃহত্তম শহর লাগোস এই শতাব্দীর শেষে এমনকি বিশ্বের শীর্ষ মেগাসিটি হিসাবে আবির্ভ‚ত হতে পারে।

জনসংখ্যা বৃদ্ধির ক্ষেত্রে এশিয়া একটি বিপরীত অঞ্চল। এর একপ্রান্তে রয়েছে সিঙ্গাপুর ও জাপানের মতো দেশ, যেগুলোর জনসংখ্যা আসলে সঙ্কুচিত হচ্ছে। অন্যদিকে, ওমান এবং কাতারের মতো মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো, যাদের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ৪ থেকে ৫ শতাংশ পর্যন্ত শক্তিশালী। বর্তমানে ভিয়েতনাম তার ১০ কোটি জনসংখ্যার কোটা ছাড়িয়ে বিশে^র ১৫ তম দেশ হওয়ার পথে।

২০২২ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ইউরোপের জনসংখ্যা ৭৫ কোটি মানুষ যুক্তরাষ্ট্রের আকারের দ্বিগুণেরও বেশি। সবচেয়ে মন্থর প্রবৃদ্ধির হার সহ অনেক দেশ বলকান এবং সাবেক সোভিয়েত এলাকায় অবস্থিত। রাশিয়া জনসংখ্যার দিক থেকে ইউরোপের বৃহত্তম দেশ। যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স এবং ইতালির পর জার্মানি ইউরোপের ২য় বৃহত্তম দেশ। ইউক্রেন ইউরোপের ৭ম বৃহত্তম জনসংখ্যার দেশ। তবে রাশিয়ার সাথে বর্তমান বিরোধ কীভাবে দেশটির দীর্ঘমেয়াদী জনসংখ্যার সম্ভাবনাকে প্রভাবিত করে তা দেখার বিষয়।

২০২২ সালের হিসাবে উত্তর আমেরিকার জনসংখ্যা ৬০ কোটি ২০ লাখ। যুক্তরাষ্ট্রের জনসংখ্যা এই মহাদেশটির মোট জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি। উন্নত অর্থনীতির কানাডায় আন্তর্জাতিক অভিবাসনের জন্য জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার সবচেয়ে বেশি। মেক্সিকো বর্তমানে এ অঞ্চলের ১০ ম সর্বাধিক জনবহুল দেশ। তবে শেষ পর্যন্ত দ্রæত বর্ধনশীল আফ্রিকান দেশগুলির কারণে শীর্ষ ১০ তালিকা থেকে ছিটকে যাবে।

২০২২ সালে দক্ষিণ আমেরিকার জনসংখ্যা ৪৩ কোটি ৯০ লাখ। এর প্রায় অর্ধেকটাই ব্রাজিলের। এই দশকের কোনো এক সময়, কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোটা হয়ে উঠবে এই অঞ্চলের পঞ্চম মেগাসিটি (যার জনসংখ্যা ১০ মিলিয়ন বা তার বেশি)। সাও পাওলো, রিও ডি জেনিরো, বুয়েনস আইরেস এবং লিমা হল দক্ষিণ আমেরিকার বর্তমান মেগাসিটি।

ওশেনিয়া অঞ্চলের জনসংখ্যা ৪৪ মিলিয়ন। মানুষ ক্যালিফোর্নিয়ার জনসংখ্যার তুলনায় সামান্য বেশি। অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড এবং পাপুয়া নিউ গিনি এই অঞ্চলের জনসংখ্যার সিংহভাগ তৈরি করে। পৃথিবীর জনসংখ্যা বাড়তে থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে যতক্ষণ না এটি ২০৮০-এর দশকের কোনো এক সময়ে সর্বোচ্চ ১০ বিলিয়ন মার্কের উপরে পৌঁছায়।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন