শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯, ১১ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

জাতীয় সংবাদ

মূল্যস্ফীতির পাগলাঘোড়ার লাগাম টানা সম্ভব হয়েছে : পরিকল্পনামন্ত্রী

জনশুমারি যাচাই জরিপ ১০-১৬ অক্টোবর

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৪ অক্টোবর, ২০২২, ১২:০১ এএম

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, মূল্যস্ফীতির পাগলাঘোড়ার লাগাম টানা সম্ভব হয়েছে। তিনি বলেন, সেপ্টেম্বরে মূল্যস্ফীতি কমবে। তবে কতটা বাগে এসেছে জানতে পারবেন দু’একদিনের মধেই। আপনারা বারবার প্রশ্ন করেন মূল্যস্ফীতি নিয়ে। তবে বলতে পারি গত মাসে (আগস্ট) এটা বেড়েছিল তবে চলতি মাসে কমেছে। একটি সুখবর আছে, মূল্যস্ফীতির পাগলাঘোড়ার লাগাম টানা সম্ভব হয়েছে।

গতকাল বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) সম্মেলন কক্ষে জনশুমারি পরবর্তী যাচাই (পিইসি) জরিপ কার্যক্রমে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার ছিলেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন পরিকল্পনা সচিব মামুন-আল-রশীদ, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন ও বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর মহাপরিচালক মতিউর রহমান। এতে সভাপতিত্ব করেন বিআইডিএসের মহাপরিচালক ড. বিনায়ক সেন। বক্তব্য দেন জনশুমারি ও গৃহ গণনা প্রকল্পের পরিচালক মো. দিলদার হোসেন, পিইসি কার্যক্রমের সমন্বয়কারী ড. ইউনূস।
পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, আগস্টে মূল্যস্ফীতি বেড়েছিল। কিন্তু সেপ্টেম্বরে সেটি কমেছে। এর কারণ হচ্ছে এক কোটি ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে চার কোটি মানুষ সুবিধা পাচ্ছে। সেই সঙ্গে সরকারের নানা উদ্যোগের ফলে যারা সরাসরি মূল্যস্ফীতিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তারা উপকৃত হয়েছেন। ফলে মূল্যস্ফীতিতে লাগাম টানা সম্ভব হয়েছে।
এম এ মান্নান বলেন, আমাদের বিবিএস ভালো কাজ করছে। বিবিএসের কাজের স্বীকৃতি দিয়েছে বিশ্বব্যাংক-আইএমএফ। আমরা সঠিক তথ্য সবসময় প্রকাশ করি। তারপরও কিছু মানুষের বিবিএসের তথ্য শুনতে গায়ে জ্বালা করে। কারণ বিবিএস মাথাপিছু আয় ও প্রবৃদ্ধির তথ্য দেয়। এসব তথ্য যারা সহ্য করতে পারেন না তাদের রাজনৈতিক পরিচয় আছে। আমরা তথ্যেও কেন ইঞ্জিনিয়ারিং করবো না। শুধু প্রক্রিয়াগত কারণে একটি দেরি হয়ে যাচ্ছে।
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দেশে জনশুমারির কাজ শুরু হয় ১৫ জুন, যা ২১ জুন মধ্যরাতে শেষ হওয়ার কথা। কিন্তু হঠাৎ ১৬ জুন সিলেট ও সুনামগঞ্জে ভয়াবহ বন্যা শুরু হয়। এতে পুরো সিলেট, সুনামগঞ্জ জেলা সারাদেশ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও নেত্রকোনায় তথ্যসংগ্রহের কাজ চলে ২৮ জুন পর্যন্ত। এরপর বহুল প্রতীক্ষিত জনশুমারি ও গৃহগণনায় দেশের জনসংখ্যার তথ্য প্রকাশ করে পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের আওতায় বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)।
ফলাফল অনুযায়ী দেশের মোট জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৫১ লাখ ৫৮ হাজার ৬১৬ জন, যা ১০ বছর আগে ২০১১ সালের হিসাবে ছিল ১৪ কোটি ৪০ লাখ ৪৩ হাজার ৬৯৭ জন। গত এক দশকে মানুষ বেড়েছে ২ কোটি ১১ লাখ ১৪ হাজার ৯১৯ জন। ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা-২০২২’ এর প্রকাশিত ফলাফল আরও স্বচ্ছ ও ভুল-ত্রুটি সংশোধনে শুরু হচ্ছে শুমারি পরবর্তী যাচাই। এ কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস)। আগামী ১০ থেকে ১৬ অক্টোবর সারাদেশে জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২২ এর শুমারি পরবর্তী যাচাই জরিপ পরিচালিত হবে। নির্বাচিত গণনা এলাকায় ৯ অক্টোবর যারা খানায় অবস্থান করেছেন তাদের তথ্য ট্যাবলেটের মাধ্যমে বিআইডিএস নিয়োগ করা গণনাকারীরা সরাসরি সাক্ষাৎকার পদ্ধতিতে সংগ্রহ করবেন। সারাদেশের মোট ৩৫৪টি নমুনা এলাকা ধরে এ গণনা যাচাই জরিপ করা হবে।
নুষ্ঠানে জানানো হয়, যাচাই জরিপ ট্যাবের মাধ্যমে কম্পিউটার অ্যাসিসটেড পারসোনাল ইন্টারভিউং (সিএপিআই) পদ্ধতিতে করা হবে। ৯ অক্টোবর রাত ১২ টা ১ মিনিটে নির্ধিারিত এলাকার অবস্থান করা সব দেশি-বিদেশি নাগরিককে গণনার আওতায় আনা হবে। এছাড়া ছয় মাসের কম সময়ের জন্য সাময়িকভাবে বিদেশে অবস্থান করা নিদিষ্ট এলাকার সব বাংলাদেশি নাগরিককে পুনরায় গণনা করা হবে। এর পর নতুন তথ্যের সঙ্গে আগে পাওয়া শুমারির তথ্য মিলিয়ে দেখে বলা যাবে শুমারিতে কতটা ভুল-ক্রুটি হয়েছে। তারপর তথ্য সমন্বয় করে জনশুমারির মূল প্রতিবেদন তৈরি করা হবে।
উল্লেখ্য, ২০১১ সালে পরিচালিত আদমশুমারি, ২০১৩ সালে পরিচালিত অর্থনৈতিক শুমারি এবং ২০১৫ সালে পরিচালিত বাংলাদেশ অবস্থানরত অনিবন্ধিত মিয়ানমার নাগরিক শুমারির পিইসি বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস) সম্পাদিত হয়, যাতে তথ্যসংগ্রহের ক্ষেত্রে বিবিএস গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। এরই ধারাবাহিকতায় এবারও বিআইডিএসের মাধ্যমে জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২২ এর পিইসি সম্পাদিত হচ্ছে। তবে, এবারই প্রথম পিইসির গণনাকারী ও সুপারভাইজার বিআইডিএস থেকে সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে শিক্ষিত, স্মার্টফোন পরিচালনায় পারদর্শী, শুমারি/জরিপ কাজে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন পুরুষ ও নারীদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে। বিশেষভাবে উল্লেখ্য, পিইসি থেকে প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২২ এর ফলাফল চূড়ান্ত করা হবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন