রোববার, ১৯ মে ২০২৪, ০৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১০ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

যে মামলাগুলো হয়েছে আপনারা সেসব নিষ্পত্তি করে দিয়েছেন

বিচারকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ২৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:০২ এএম

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিচারকদের উদ্দেশে বলেছেন, বিএনপি-জামায়াত জোটের সময় আমরা মামলা করতে পারিনি। যে মামলাগুলো হয়েছিল সেসব আপনারা নিষ্পত্তি করে দিয়েছেন। দোষীরা সাজা পাচ্ছে। এটি হচ্ছে সবচেয়ে বড় কথা।

গতকাল সোমবার ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস এসোসিয়েশনের ৫৯তম বার্ষিক সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। বিচারকদের এই সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেছেন, আমার বাবা-মায়ের হত্যার বিচার পেতে আমাকে ৩৫ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে। বারবার আমার জীবনের ওপর আঘাত এসেছে। তারপরও আমি বেঁচে আছি। মহান আল্লাহ আমাকে এই দিনগুলো দেখাবে বলেই আমি বেঁচে আছি।
শেখ হাসিনা বলেন, আমি যতক্ষণ আছি, কাজ করে যাব। তবে আমি চাই সব মানুষই যেন ন্যায় বিচার পায় এবং দ্রুত মামলাগুলো নিষ্পত্তি হয়। একটি স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতার সৃষ্টি হয়। সে পরিবেশটা যেন থাকে সেটাই আমরা চাই।›

বিচারকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা আইন প্রণয়ন করি, আপনারা আইন ব্যবহার করেন। কাজেই সেখানে যখন যেটা হয়, আমরা সংশোধন করি এবং আরো উন্নত করি। যা-ই করি মানুষের কল্যাণে। মানুষের উন্নয়নে এবং মানুষের ভাগ্য, মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য আমরা এটা করি। এটাই আমাদের কাজ। মানুষ ন্যায় বিচার পাবে, মানুষ সুস্থ থাকুক, ভালো থাকুক সেটাই আমরা চাই।

শেখ হাসিনা বলেন, ২০০৮ সালের ঘোষণা অনুসারে, আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলেছি। করোনা মহামারির সময় সবকিছু যখন স্থবির তখন এই ভার্চুয়াল কোর্ট প্রতিষ্ঠা করে বিচার যাতে চলে সেই ব্যবস্থাটা তখন আমি প্রধান বিচারপতির সঙ্গে আলোচনা করি এবং তাকে আমি অনুরোধ করেছিলাম আপনি ভার্চুয়াল কোর্ট করেন। যদিও বিষয়টা আমাদের কাছে একটি নতুন ধারণা ছিল। আমার একজন তথ্য-প্রযুক্তি উপদেষ্টা আছেন আপনারা জানেন। তিনি এ বিষয়ে যথেষ্ট পারদর্শী। সজীব ওয়াজেদ জয় আমাকে পরামর্শ দিয়েছিলো ভার্চুয়াল কোর্ট করলে পরে তোমাদের বিচার কাজ চলতে পারে এবং প্রধান বিচারপতিকে আমি অনুরোধ করেছিলাম। আলাপ-আলোচনা করেই ভার্চুয়াল আদালত করা হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, আমি ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে, দেশের বিচার ব্যবস্থার উন্নয়নে প্রয়োজনীয় সবকিছুই করেছি, যাতে করে আইনের শাসন ও জনগণের ন্যায়বিচার নিশ্চিত হয়। সন্ত্রাসবাদ বিরোধী আইনের আওতায় যেসব মামলা রয়েছে, তা দ্রুত নিষ্পত্তির লক্ষ্যে তার সরকার বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করেছে। যদি সন্ত্রাসবাদ বিরোধী মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তি হয়, তবে যারা সন্ত্রাসবাদে জড়িয়ে গেছে, তারা আর এই অপরাধে নিজেদের জড়াবে না। প্রধানমন্ত্রী বলেন, নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবনের সাথে সাথে সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদের ধরণও বদলে গেছে, এখন প্রযুক্তি ব্যবহার করে অপরাধ করা হয়। সাইবার অপরাধ ঠেকাতে আমরা একটি আইন প্রণয়ন করেছি। এই আইনটি নিয়ে নানা লোকে নানা কথা বলে। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, যেভাবে সাইবার অপরাধ বেড়ে যাচ্ছে, তাতে এটাকে ঠেকাতে এই আইনটি জরুরি। সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ ঠেকাতে দেশব্যাপি সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী প্রচারণা চালাতে প্রধানমন্ত্রী অভিভাবক, শিক্ষক ও আলেমসহ সর্বস্তরের মানুষের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, কোনো বাচ্চা যেন জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য আমাদের বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে। ঝালকাঠি ও গাজীপুর আদালতে জঙ্গি হামলার দৃষ্টান্ত টেনে শেখ হাসিনা বলেন, বিচারকগণ রায় প্রদান করে যেন নিরাপদে বাড়ি ফিরতে পারেন। সেজন্য সরকার নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

নারী ও শিশু নির্বাচন মামলার দ্রুত বিচারের লক্ষ্যে সারা দেশে বর্তমানে ১০১টি ট্রাইব্যুনাল কাজ করছে এবং সাতটি ট্রাইব্যুনাল মানবপাচার সংশ্লিষ্ট মামলাগুলো পরিচালনা করছে। তিনি আশা করেন, যদি নারী ও শিশু নির্যাতন মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তি হয়, তবে এ ধরনের অপরাধ উল্লেখযোগ্য হারে হ্রাস পাবে।

শেখ হাসিনা বলেন, বিচার বিভাগের স্বচ্ছতা জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে আমরা তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার বিচার বিভাগের সবক্ষেত্রে পৌঁছে দেয়ার ব্যবস্থা নিয়েছে। সারাদেশে ই-জুডিশিয়ারি প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ই-জুডিশিয়ারি চালু করা গেলে মামলা ব্যবস্থাপনায় আরো গতি আসবে।
বিচারকদের জন্য আন্তর্জাতিক মানের জুডিশিয়াল একাডেমি প্রতিষ্ঠিত করা হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটি আন্তর্জাতিক মানের জুডিশিয়াল একাডেমি প্রতিষ্ঠা করা হবে। ইতোমধ্যে জায়গা দেখা হয়েছে। তবে সে জায়গাটি কার্যকর কিনা সেটাও জানা হবে। সেই সঙ্গে একটি আইনি বিশ্ববিদ্যালয় আমরা প্রতিষ্ঠা করব।

আমার ইচ্ছে আছে এই জুডিশিয়াল সার্ভিসকে আরো আধুনিক ও যুগোপযোগী করার। এমন একটি একাডেমি করব, সেটা যেন আন্তর্জাতিক মানের দৃষ্টিনন্দন হয়। যেন বিশ্ব থেকে এসে দেখতে পারে। আমরা যেমন বিদেশে পাঠাবো ট্রেনিংয়ের জন্য, বিদেশ থেকেও যেন ট্রেনিংয়ের জন্য আমাদের কাছে আসে। ইতোমধ্যে আমরা বাসস্থানের জন্য, ফ্ল্যাট বহুতল ভবন করে দিচ্ছি। এটা শুধু ঢাকা শহরে না । আমরা প্রতিটি জেলায় জেলায় নিরাপদ বাসস্থানের ব্যবস্থা করে দেবো। সেই সঙ্গে আমরা আমাদের বিচারকদের সার্বক্ষণিক গাড়ি সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য, গাড়ি ক্রয় করার জন্য যে ঋণ নগদায়ন এ ব্যাপারে আমরা উদ্যোগ গ্রহণ করবো। সেটা আমরা করে দেবো। আমি নিজেও চাই।

সবাইকে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, করোনা ভাইরাস বিস্তারের কারণে সারা বিশ্বে অর্থনৈতিক মন্দা। এর জন্য আমাদেরকে কিছুটা কৃচ্ছ্রতা সাধন করতে হচ্ছে। সারা বিশ্বে একই অবস্থা। তার ওপর রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধ। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের সঙ্গে সঙ্গে আবার স্যাংশন, পাল্টা স্যাংশন । আমেরিকার এই স্যাংশনের কারণে আমাদের যে পণ্য বিশেষ করে বিদেশ থেকে যেগুলো কিনতে হয় সেগুলোর এত বেশি দাম বেড়ে গেছে, জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে গেছে। ভোজ্য তেলের মূল্য বেড়ে গেছে। গম, চিনি, সার কিনতে হচ্ছে। আমরা যে ক্রয় করি বিদেশ থেকে সেগুলো কয়েকগুণ বেশি মুদ্রাস্ফীতি। সারা বিশ্বব্যাপি উন্নত দেশ, ধনী দেশগুলো নিজেদেরকে এখন অর্থনৈতিক মন্দার দেশ হিসেবে ঘোষণা করে দিয়েছে। তবে বাংলাদেশে এখনো আমরা সেই অবস্থয় পৌঁছাইনি। সে কারণে আমি সবাইকে আহ্বান করেছি যার যেখানে যেটুকুন জায়গা আছে, যে যা পারবেন অন্তত উৎপাদন করার। অন্তত খাদ্যপণ্যের কোনো কারণে কারো কাছে হাত পেতে না চলতে হয়। জ্বালানি তেল হোক, ভোজ্যতেল হোক, বিদ্যুৎ ব্যবহারের সবাইকে সাশ্রয়ী হতে হবে। নিজের কাজটা করলে, নিজের হাতে সুইচটা বন্ধ করে রাখলে এতে দোষের কিছু নেই। এতে সম্মানহানি হবে না। আমি নিজে করে থাকি। আমি করি আমার ছেলে-মেয়েরা করে। পানি ব্যবহারের ক্ষেত্রে সাশ্রয়ী হওয়া দরকার।

প্রধানমন্ত্রী দেশের মানুষকে একটি সুন্দর জীবন প্রদানের উদ্দেশে ২০৪১ সাল নাগাদ একটি উন্নত, সমৃদ্ধ ও স্মার্ট বাংলাদেশ বির্নিমাণের লক্ষ্য ব্যক্ত করেন। অনুষ্ঠানে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক এবং আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারোয়ার বক্তব্য রাখেন। বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ এ এইচ এম হাবিবুর রহমান ভূঁইয়া স্বাগত বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে অ্যাসোসিয়েশনের ৫৯তম বার্ষিক কাউন্সিলের ওপর একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
Md Jasim Uddin ২৭ ডিসেম্বর, ২০২২, ১১:০৯ এএম says : 0
Prime Minister must form the Judge Appointment Commission, Supreme Court Secretariat, Independent Prosecution Service, Voluntary Judicial Magistrate Court.
Total Reply(0)
Syed Nur Nabi ২৭ ডিসেম্বর, ২০২২, ১১:১০ এএম says : 0
বক্তব্যের প্রতিটি বাক্য চরমভাবে সত্য। হয়তো অনেকের কাছেই এটা পছন্দের বিষয় নয়, কারণ প্রকৃত ঘটনা স্বীকার করতে অনেকের কাছেই কস্ট দায়ক। তাদের মধ্যে বিবেক বলে কোন বস্তু আছে কি ????
Total Reply(0)
Abu Taher ২৭ ডিসেম্বর, ২০২২, ১১:১০ এএম says : 0
শতভাগ সত্য উচ্চারণ । খুনীদের বিচার কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং অধিকাংশের মৃত্ঢ়দন্ড কার্যকর হয়েছে । ফেরারি দুর্বিষহ জীবন নিয়ে যারা পলাতক আছে তাদের এ এদেশীয় প্রেতাত্মা নিশ্চয়ই অনুধাবন করতে অসুবিধা হচ্ছেনা অপরাধের পরিনতি। বিনম্র শ্রদ্ধা জানাই ১৫ ই আগস্টে নিহত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ সকল শহিদ এর প্রতি।
Total Reply(0)
Mostofa Kamal ২৭ ডিসেম্বর, ২০২২, ১১:১১ এএম says : 0
তথাকথিত মানবাধিকারের নামে পশ্চিমা দেশগুলো গরীব দেশ গুলোর উপর নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখতে চায়। ১৫ই আগষ্ট থেকে শুরু করে দীর্ঘ দিন সামরিক সরকার গুলো চরম ভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছিল তখন তারা কোথায় ছিল?
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন