শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৪ মুহাররম ১৪৪৪

জাতীয় সংবাদ

ঢাবি ভিসি ও প্রক্টর অবরুদ্ধ

ছাত্রলীগ নেতাদের বহিষ্কার দাবি বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের

| প্রকাশের সময় : ১৮ জানুয়ারি, ২০১৮, ১২:০০ এএম

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার : গতকাল বুধবার সকাল থেকে ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে করা সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ঠেকাতে প্রশাসনের ব্যর্থতা ও ছাত্রলীগ কর্তৃক শিক্ষার্থীদের হেনস্থা এবং ছাত্রীদের উত্যক্ত করার বিচার চেয়ে এবং অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বহিষ্কার এর দাবিতে প্রক্টর অফিস ও ভিসির অভিস অফিস ঘেরাও করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা।
সকাল ১১ টা থেকে তারা তাদের পূর্বঘোষিত কর্মসূচী অনুযায়ী ক্যাম্পাসে জড়ো হতে থাকে এবং প্রক্টর অফিস ঘেরাও করে বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকে। এসময় প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী এসে বিক্ষুব্ধ ছাত্রদের সাথে কথা বলেন এবং তাদের শান্ত করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। এক পর্যায়ে প্রক্টর সেখান থেকে চলে যেতে চাইলে শিক্ষার্থীরা তাকে প্রায় ঘন্টা চারেক অবরুদ্ধ করে এবং প্রক্টরিয়াল টিমের সাথে শিক্ষার্থীদের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এসময় বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা প্রক্টর অফিসের গেট ভাঙচুর করে।
পরবর্তীতে তারা বিকেল সাড়ে চারটার দিকে প্রক্টরকে নিয়ে ভিসির কার্যালয়ের দিকে যায় এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে অবস্থান নেয়। সেসময় ছাত্ররা ভিসি ও প্রক্টর বিরোধী নানা শ্লোগান দিতে থাকে। তারা সেখানে প্রায় ঘন্টা খানেক অবস্থান নেয়ার পর সন্ধ্যা ৬ টার দিকে ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী এবং শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মাকসুদ কামাল সহ অন্যান্য শিক্ষকরা এসে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলেন।
শিক্ষার্থীরা এসময় গত সোমবারের ঘটনায় ছাত্রী উত্যক্ত ও ছাত্রদের হেনস্থা করার সাথে জড়িত ছাত্রলীগের নেতাদের তাৎক্ষণিকভাবে সাময়িক বহিষ্কার করা সহ তিনটি দাবি উপস্থাপন করে। তাদের দাবি গুলো হলো ঐদিনের ঘটনায় জড়িত ছাত্রলীগের নেতানেত্রীদের তাৎক্ষণিকভাবে সাময়িক বহিষ্কার করতে হবে, আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে অন্তত দুই জন ছাত্র প্রতিনিধি সহ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করতে হবে এবং আগামী ৪৮ কর্মঘন্টার তথা রোববারের মধ্যে তদন্ত কমিটির পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট পেশ করতে হবে।
এসময় শিক্ষার্থীরা জড়িত ছাত্রলীগ নেতাদের নাম ও তাদের ঘটনাস্থলে করা কর্মকান্ডের ছবিও ভিসির নিকট তুলে ধরে। এতে তারা ছবি সহ নাম প্রকাশ করে ঢাবি বঙ্গবন্ধু হল শাখা ছাত্রলীগের সেক্রেটারী আল আমিন রহমান, মুহসিন হল শাখা ছাত্রলীগের সেক্রেটারী মেহেদী হাসান সানী, সার্জেন্ট জহুরুল হক হল শাখা ছাত্রলীগের সেক্রেটারী সোহানুর রহমান সোহান, সূর্যসেন হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম সরোয়ার সহ রোকেয়া হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি বি এম লিপি আক্তার, ফজিলাতুন্নেসা হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি বেনজির হোসেন নিশি, রোকেয়া হল ছাত্রলীগের নেত্রী তন্বী এবং কুয়েত মৈত্রী হল শাখা ছাত্রলীগের সেক্রেটারী শ্রাবণী শায়লা। এর মাঝে তারা গোলাম সরোয়ার বাদে সবার বিরুদ্ধে ছবি সহ ছাত্রীদেরকে যৌন হয়রানীর অভিযোগ আনে। এবং গোলাম সরোয়ারের বিরুদ্ধে ভিসির কক্ষে ছাত্রদের মারধরের অভিযোগ আনেন।
এসময় তাদের এই দাবির প্রেক্ষিতে উপাচার্য বলেন, আমরা এই বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুসারে দ্রুতই ব্যবস্থা নিব। এসময় ছাত্ররা প্রতিবাদ করে উঠে এবং নির্দিষ্ট সময় চায়। পরবর্তীতে উপাচার্য ২৪ ঘন্টার মধ্যে তদন্ত কমিটি গঠনের আশ্বাস দেন। সেসময় ছাত্ররা রোববারের মধ্যে কোন অগ্রগতি না দেখলে রোববার থেকে লাগাতার কর্মসূচী দেয়ার ঘোষনা দেয়। এবং এঘটনার তদন্তে কোন অগ্রগতি না দেখা দিলে ব্যর্থতার দায় নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি করে।
ঘটনার শেষ দিকে তারা সন্ধ্যা সাতটার দিকে উপাচার্যের আশ^াসে একটি লিখিত অভিযোগ দেয় এবং মিছিল করে প্রশাসনিক ভবন ত্যাগ করে।
উল্লেখ্য গত সোমবার ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের একাংশ সম্প্রতি ঢাবি অধিভূক্ত সরকারি সাত কলেজের অধিভূক্তি বাতিলের দাবিতে ক্যাম্পাসে মানববন্ধন ও ভিসি অফিস ঘেড়াও করে। সেসময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সেখানে উপস্থিত হয়ে আন্দোলনরত ছাত্রছাত্রীদের নানা হুমকি দিতে থাকে ও তাদের গায়ে হাত তোলে এবং আন্দোলনের সমন্বয়ককে মুখ চেপে ধরে ভিসির কক্ষে নিয়ে মারধর করে পরবর্তীতে তাকে পুলিশে সোপর্দ করে। সেসময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা উপস্থিত সাংবাদিকদেরও হেনস্থা করে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
মানিক হায়দার ১৮ জানুয়ারি, ২০১৮, ৩:১৬ এএম says : 1
বিষয়টি খুবই লজ্জার
Total Reply(0)
কাজল ১৮ জানুয়ারি, ২০১৮, ৩:১৭ এএম says : 0
আলোচনার মাধ্যমে বিষয়গুলোর সমাধান হওয়া উচিত ছিলো।
Total Reply(0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন