ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

মহানগর

আইসিটি আয়োজনে জাতীয় হ্যাকাথন ৬-৭ এপ্রিল

প্রকাশের সময় : ২৯ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : জাতীয় সমস্যার প্রযুক্তিভিত্তিক সমাধানের জন্য প্রোগ্রামারদের নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জাতীয় হ্যাকাথন। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের (আইসিটি) আয়োজনে আগামী ৬ থেকে ৭ এপ্রিল মিরপুরের পুলিশ স্টাফ কলেজে (পিএসসি) এটি অনুষ্ঠিত হবে। প্রোগ্রামারদের নিয়ে এই আয়োজনে সহযোগিতা করবে মোবাইল অপারেটর বাংলালিংক। জাতীয় হ্যাকাথন ২০১৬ আয়োজন প্রসঙ্গে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ পলক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় এবং প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের প্রত্যক্ষ তত্ত¡াবধানে সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে সবচেয়ে বড় অবদান রাখছে দেশের তরুণ সমাজ। তাদের মেধা ও উদ্ভাবনী শক্তিকে কাজে লাগিয়ে সরকার এমডিজির মতো এসডিডিজি বাস্তবায়নেও উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সাধন করতে চায়। এই আয়োজন সেই লক্ষ্য ত্বরান্বিত করবে। এজন্য আমরা টানা দ্বিতীয়বারের মতো জাতীয় হ্যাকাথনের আয়োজন করেছি। আশা করছি এই আয়োজনের মাধ্যমে তরুণদের কাছ থেকে প্রাপ্ত আইডিয়াগুলো আমাদের নানা ধরনের জাতীয় সমস্যা সমাধানে কার্যকর ভূমিকা রাখবে।’ বাংলালিংক-এর এমডি এবং সিইও এরিক অস বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ায় অব্যাহত সহযোগিতা প্রদানের আমাদের যে অঙ্গীকার, তারই অংশ হিসেবে এবং তরুণ উদ্যোক্তাদের স্বপ্ন পূরণে ও মেধাবীদের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ গঠনের লক্ষ্যে বাংলালিংক এই মহৎ উদ্যোগের গর্বিত অংশীদার হয়েছে। আমি বিশ্বাস করি, দেশের সব খাতের ডিজিটালইজেশনের জন্য এটি একটি প্রশসংনীয় উদ্যোগ। এ ধরণের আয়োজনের ফলে বাংলাদেশ সত্যিকার অর্থেই ডিজিটাল জাতিতে পরিণত হওয়ার পথে আরো এক ধাপ এগিয়ে গেল।
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন পরিকল্পনা (এসডিজি)-এর নির্বাচিত ১০টি লক্ষ্য অর্জনের জন্য আয়োজিত হচ্ছে এবারের জাতীয় হাকাথন। সারা দেশের সেরা ডেভেলপার, ইউএক্স ডিজাইনার, মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপার, সফটওয়ার নির্মাতারা একত্রিত হবে বছরের বড় এই কোডিং ফেস্টিভালে। এসডিজির ১০টি লক্ষ অর্জনের জন্য যেসব প্রতিবন্ধকতা বিদ্যমান, তা প্রযুক্তি দিয়ে কীভাবে মোকাবিলা করা যায়, সেজন্য তরুণ প্রযুক্তিবিদরা একটানা ৩৬ ঘণ্টা কাজের মাধ্যমে নতুন নতুন উদ্ভাবনে অংশ নেবেন। সেরা উদ্ভাবনগুলোকে বাস্তবায়নের জন্য আইসিটি বিভাগ ভবিষ্যতে সরাসরি পৃষ্ঠপোষকতা করবে।
ইতিমধ্যে ৫৫৩ টি দলের ৩ হাজার এরও বেশী অংশগ্রহণকারী জাতীয় হাকাথনে অংশগ্রহণের জন্য আবেদন করেছে, এদের মধ্যে নির্বাচিত ২৫০ টি দল চূড়ান্তভাবে জাতীয় হাকাথনে অংশগ্রহণ করার সুযোগ পাবে। অংশগ্রহণকারীদের উদ্ভাবনী কার্যক্রমে সহায়তা করতে সরকারের সংশ্লিষ্ট ১০ টি মন্ত্রণালয়ের ৪৪ জন বিশেষজ্ঞ নিয়ে ইতিমধ্যে জাতীয় হ্যাকাথনের ডোমেইন এক্সপার্ট দল ও ৯০ জনের টেক-মেন্টর দল প্রস্তুত থাকবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন