ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬, ২৩ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

মহানগর

চট্টগ্রামে বিট পুলিশিং শুরু ৭ থানায় বসেছে সিসিটিভি

প্রকাশের সময় : ১৬ মে, ২০১৬, ১২:০০ এএম

চট্টগ্রাম ব্যুরো : জনগণের কাছে কার্যকর সেবা পৌঁছানোর পাশাপাশি পুলিশি কার্যক্রম গতিশীল করতে চট্টগ্রাম মহানগরীতে চালু হয়েছে ‘বিট পুলিশিং’ কার্যক্রম। গতকাল (রোববার) চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) সদর দপ্তরে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন কমিশনার মো. ইকবাল বাহার।
চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন এলাকার প্রতিটি থানায় পাঁচ থেকে ১০টি করে ১৬টি থানায় মোট ১৪৫টি বিট করা হয়েছে। প্রতিটি বিটে একজন করে এসআইকে বিট অফিসার নিয়োজিত করে তার সঙ্গে একজন এএসআই ও দুই থেকে তিনজন করে কনস্টেবল কর্মরত থাকবেন।
পুলিশ কমিশনার বলেন, এলাকার জনসংখ্যা, থানার জনবল, অপরাধের মাত্রা ও ধরন এবং টহলের জন্য সুবিধাজনক পরিধির ওপর ভিত্তি করে এসব বিট গঠন করা হয়েছে। বিট অফিসার এবং সদস্যরা এলাকার একজন সদস্য হিসেবে জনগণের কাতারে অবস্থান করে সেবা প্রদান এবং যেকোনো প্রয়োজনে জনগণ তাদের সাথে যোগাযোগ করে সহায়তা গ্রহণ করবে।
কমিশনার ইকবাল বাহার বলেন, ব্রিটিশ আমলে পুলিশের টহল কার্যক্রম পরিচালনার জন্য শহর এলাকাকে কয়েকটি অংশে বিভক্ত করা হতো, যাকে বলা হতো বিট পুলিশিং। তিনি মনে করেন, বিট পুলিশিং কার্যক্রমের ফলে নগরীর প্রতিটি এলাকার গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা, বসবাসকারীদের কৌশলগত অবস্থানের পাশাপাশি অপরাধ প্রকৃতি ও অপরাধী সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে।
এতে করে এলাকায় কোনো ধরনের অপরাধ ঘটলে জড়িতদের শনাক্ত করা সহজ হওয়ার পাশাপাশি অপরাধ দমনে পুলিশের সক্ষমতা বাড়বে। বিট পুলিশিং কার্যক্রম বাস্তবায়িত হলে বিভিন্ন সুবিধার কথাও তুলে ধরেন সিএমপি কমিশনার ইকবাল বাহার।
তিনি জানান, বিট পুলিশিং কার্যক্রম বাস্তবাবায়িত হলে বিট এলাকার পুলিশি দায়িত্ব মামলার তদন্ত, আসামি গ্রেফতার, ওয়ারেন্ট তামিল, মাদক, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ভিকটিম সাপোর্টসহ বিভিন্ন কার্যক্রম গতিশীল হবে।
পাশাপাশি অপরাধ সংগঠনের স্থান, প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষ্য, অপরাধী চিহ্নিতকরণ সহজ ও অপরাধ ও অপরাধী সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ সহজ হবে। এছাড়াও বিট পুলিশিংয়ের ফলে এলাকায় গণসচেতনতামূলক কার্যক্রম বৃদ্ধি, কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম জোরদার করা হবে। ইকবাল বাহার বলেন, নগরীর ১৬ থানার ১৪৫টি বিটে পুলিশের ঊর্ধŸতন উপস্থিতিতে জনসাধারণকে নিয়ে সভাও অনুষ্ঠিত হবে।
বিট পুলিশিংয়ের অংশ হিসেবে সিএমপি’র দক্ষিণ জোনে জনসংখ্যা অনুপাতে কোতোয়ালি থানায় ১৫টি, চকবাজার, সদরঘাট থানায় সাতটি ও বাকলিয়া থানায় আটটি করে বিট করা হয়েছে। উত্তর জোনে খুলশী থানায় ১০টি, পাঁচলাইশ থানায় ছয়টি, চান্দগাঁও থানায় ১২টি ও বায়েজিদ বোস্তামী থানায় আটটি বিট থাকবে।
পশ্চিম জোনে পাহাড়তলী থানায় পাঁচটি, আকবরশাহ থানায় ছয়টি, হালিশহর থানায় ১৫টি ও ডবলমুরিং থানায় ১২টি। বন্দর জোনে বন্দর থানায় নয়টি, ইপিজেড থানায় আটটি, পতেঙ্গা থানায় সাতটি ও কর্ণফুলী থানায় ১০টি করে বিট গঠন করা হয়েছে। ইকবাল বাহার জানান, এসব বিটের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের একটি নির্দিষ্ট নম্বরও দেয়া হয়েছে সিএমপির পক্ষ থেকে। বিট কর্মকর্তা পরিবর্তন করা হলেও নম্বরগুলো ঠিক থাকবে।
অপরদিকে বিট পুলিশিং কার্যক্রম ও সাতটি থানায় সিসি ক্যামেরা উদ্বোধনের পর নগর পুলিশের মিডিয়া রুমেরও উদ্বোধন করেন সিএমপি কমিশনার। কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর ইকবাল বাহার সিএমপিতে মিডিয়া রুম করার ঘোষণা দিয়েছিলেন। এর অংশ হিসেবে এই মিডিয়া কার্যালয়ের উদ্বোধন করা হয়।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের বিশেষ ব্রিফিংয়ে অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) দেবদাস ভট্টাচার্য্য, অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মাসুদুল হাসান, অতিরিক্ত কমিশনার (প্রশাসন) মইনুল ইসলামসহ বিভিন্ন জোনের উপ-কমিশনাররা উপস্থিত ছিলেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন