ঢাকা, বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬, ১৮ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

সারা বাংলার খবর

নারী-শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর

ফেনীতে নুসরাত হত্যা মামলা

ফেনী জেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ৩১ মে, ২০১৯, ১২:৪৫ এএম

ফেনীর সোনাগাজী ফাজিল মাদরাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার গ্রেফতাকৃত ২১ আসামিকে গতকাল দুপুরে ফেনী সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসেনের আদালতে হাজির করা হয়েছে।

এ সময় মামলাটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হস্তান্তর ও মামলার পরবর্তী তারিখ ১০ জুন ধার্য করেছেন আদালত। এসময় আদালতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) চট্টগ্রাম বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার মো. ইকবালসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে গত বুধবার এই আদালতে মামলার চার্জশিট দাখিল করেন পিবিআইয়ের তদন্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ আলম।

ফেনী কোর্ট পরিদর্শক গোলাম জিলানী বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার নুসরাত হত্যা মামলায় গ্রেফতারকৃত প্রিন্সিপাল সিরাজ উদ-দৌলা, জাবেদ হোসেন, জোবায়ের আহমেদ, নুর উদ্দিন, কাউন্সিলর ও পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ আলম, শিক্ষক আবছার উদ্দিন, মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, শাহিদুল ইসলাম, প্রিন্সিপালের ভাগ্নি উম্মে সুলতানা পপি, শাহাদাত হোসেন শামীম, সহপাঠী আরিফুল ইসলাম, নূর হোসেন, কেফায়াত উল্লাহ জনি, শামীম, কামরুন নাহার মনি, আবদুর রহিম ওরফে শরিফ, ইফতেখার হোসেন রানা, এমরান হোসেন মামুন, মহিউদ্দিন শাকিল, হাফেজ আবদুল কাদের ও সোনাগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং মাদরাসার সহ-সভাপতি রুহুল আমিনকে আদালতে হাজির করা হয়।

এদিকে পিবিআই গত ১০ এপ্রিল থেকে শুরু করে ৫০ দিনে ৩৩ কার্যদিবসের মধ্যে মামলাটির তদন্ত কাজ শেষ করে চার্জশিট দাখিল করতে সক্ষম হয়েছে। পিবিআইর ৮০৮ পৃষ্ঠার এই চার্জশিটে এজহারনামীয় ৮ জন এবং এজহার বহির্ভুত তদন্তে প্রাপ্ত আরও ৮ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। সব আসামির মৃত্যুদণ্ড চেয়ে ইতোমধ্যেই সুপারিশও করা হয়েছে। ১২ আসামি নিজেদের দোষ স্বীকার করে বিজ্ঞ আদালতে জবানবন্দিও দিয়েছেন। এছাড়া এ মামলায় ২১ জনকে বিভিন্ন সময়ে গ্রেফতার করা হয়।

এই মামলার বাদী নুসরাতের বড় ভাই মাহমুদুল হাছান নোমান জানান, গত বুধবার পিবিআই আদালতে ১৬ জনকে অভিযুক্ত করে যে চার্জশিট দাখিল করেছেন সেসব বিষয়ে আমি মন্তব্য করতে চাইনা, আমার পরিবারের পক্ষ থেকে তাদের সর্বচ্চ শাস্তি ফাঁসি দাবি করছি, তবে ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে এই চার্জশিটে অন্তর্ভূক্ত করা উচিত ছিল। আইনজীবীদের সাথে পরামর্শ করে পরবর্তী পদক্ষেপ নিব। এ মামলায় প্রিন্সিপাল সিরাজ উদ-দৌলা, নুর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন শামীম, উম্মে সুলতানা পপি, কামরুন নাহার মনি, জাবেদ হোসেন, আবদুর রহিম ওরফে শরীফ, হাফেজ আবদুল কাদের, জোবায়ের আহমেদ, এমরান হোসেন মামুন, ইফতেখার হোসেন রানা ও মহিউদ্দিন শাকিল আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন