ঢাকা, শুক্রবার , ২২ নভেম্বর ২০১৯, ০৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

আনোয়ারায় গার্মেন্টসকর্মী ধর্ষণের প্রধান আসামীর গুলিবৃদ্ধ মৃতদেহ উদ্ধার

আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৭ জুলাই, ২০১৯, ১১:২৯ এএম | আপডেট : ১:৪৭ পিএম, ৭ জুলাই, ২০১৯

চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার গার্মেন্টসকর্মী গণধর্ষণের ঘটনার প্রধান আসামী দুই গ্রুপের বন্দুক যুদ্ধে নিহত হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে উপজেলার চায়না ইকোনমিক জোনের দেয়াং পাহাড় এলাকা থেকে আবদুর নুর (২৮) গুলিবিদ্ধ মৃতদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। নিহতের বিরুদ্ধে আনোয়ারা থানায় ধর্ষণসহ একাধিক মামলা রয়েছে।
জানা যায়, রোববার গভীর রাতে উপজেলার চায়না ইকোনমিক জোন এলাকার দেয়াং পাহাড়ে স্থানীয়রা গোলাগুলির শব্দ শুনতে পেলে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে। ঐ সময় ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশীয় অস্ত্র, চার রাউন্ড গুলি ও তিনটি চোরা উদ্ধার করা হয়। সে বৈরাগ গ্রামের বাসিন্দা মৃত আবদুর ছাত্তারের পুত্র বলে জানা যায়। দু’টি ছিনতাই ও একটি ডাকাতির ঘটনায় তার বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে।
আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ বলেন, আবদুর নুর ধর্ষণ, ডাকাতি ও ছিনতাইয়ের সঙ্গে জড়িত ছিল। তাদের একটি বাহিনীও আছে। সেই বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে সম্ভবত অন্তকোন্দল অথবা ডাকাতির মালামালের ভাগবাটোয়ারা নিয়ে বন্দুক যুদ্ধ হয়েছে। এতে আবদুর নুর গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে মারা যায়। পাহাড়ে স্থানীয় লোকজন গোলাগুলির শব্দ শুনতে পেলে পুলিশকে খবর দিলে আমরা গিয়ে সকালে মৃতদেহ উদ্ধার করি। তিনি আরো বলেন, ঘটনাস্থল থেকে ১টি দেশীয় অস্ত্র, ৩টি চোরা ও চার রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। মৃতদেহটি উদ্ধারের পর সেটি সাম্প্রতিক ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি আবদুর নুরের বলে আমরা শনাক্ত করি।
প্রসঙ্গ: গত বুধবার রাতে কোরিয়ান কেইপিজেড জুতা কারখানা থেকে কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে ধর্ষণের শিকার হয় কিশোরী। কিশোরীটি উপজেলার চাতরী চৌমুহনী চায়না ইকোনমিক জোন সড়ক এলাকায় অন্ধকারের মধ্যে রাস্তার ওপর মুমূর্ষু অবস্থায় পরে থাকতে দেখে স্থানীয়রা। তার কাছ থেকে মোবাইল নম্বর নিয়ে পরিবারের সদস্যদের জানানো হয়। ভাইসহ পরিবারের কয়েকজন সদস্য ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (চমেক) নিয়ে যান।
এ ঘটনায় কিশোরী ভাই বাদি হয়ে গত বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) রাতে আনোয়ারা থানায় অজ্ঞাতনামা চার জনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলার দুই আসামি কিশোরীকে বহনকারী সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক মামুন (১৮) যাত্রী হেলাল উদ্দিনকে (২৮) শুক্রবার রাতে গ্রেফতার করে পুলিশ। তারা আদালতে দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন।
নুরুল আবছার তালুকদার

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন