ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮, ৩০ রমজান ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

তিন দিনের বরিশাল সফর শেষে ঢাকায় ফিরলেন মার্কিন রাষ্টদূত

বরিশাল ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১১ জুলাই, ২০১৯, ৭:২৪ পিএম

বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার তিন দিনের সফরের অভিজ্ঞতা বর্ণনাকালে বলেছেন, ‘বরিশালের সৌন্দর্য আমাকে মুগ্ধ করেছে’। তিনি এখানের ধর্মীয় সম্প্রীতিরও প্রসংশা করেন। মার্কিণ রাষ্ট্রদুত বলেন, এই দেশটির যাত্রা শুরু হয়েছিলো মাত্র ৪৭ বছর আগে। অতিশিঘ্র দেশটি স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপন করতে যাচ্ছে। আমেরিকার একজন প্রতিনিধি হিসেবে বাংলাদেশে দায়িত্ব পালন তিনি বেশ উপভোগ করছেন বলেও জানান। অতি শিঘ্রই বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে জানিয়ে উন্নয়ন এবং গণতন্ত্রের যাত্রা দেশটিকে বিশ^ দরবারে খুবই মোহনীয় পর্যায়ে নিয়ে যাবে বলেও মন্তব্য করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত মিলার।

তিন দিনের বরিশাল সফরের শেষ দিন বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর ঐতিহাসিক অক্সফোর্ড মিশন চার্চ পরিদর্শনকালে মার্কিন রাষ্ট্রদূত সাংবাদিকদের কাছে তার সফরের অভিব্যাক্তি তুলে ধরেন। রাষ্ট্রদূত মিলার বলেন, বাংলাদেশের রাজনৈতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই শান্তিপূর্ণ। এদেশে আসার পর দেশের ৮টি বিভাগ ঘুরে দেখেছি। এ দেশে একটি সৌহার্দপূর্ণ অবস্থা বিরাজ করছে।
সফরের তৃতীয় ও শেষ দিন বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর ঐতিহ্যবাহী অক্সফোর্ড মিশন পরিদর্শনে যান মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার। এসময় তিনি চার্চে প্রার্থনায়ও অংশ নেন এবং ফাদার সহ অন্যাদের সাথে কুশল বিনিময় করেন। তাছাড়া সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অবদান রাখা ব্রিটিশ ও বাংলাদেশী নাগরিক লুসি হল্ট-এর সাথেও সাক্ষাত করেন মিলার। পরে অক্সফোর্ড মিশন বিদ্যালয় পরিদর্শন করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত। এসময় শিক্ষার্থীরা তাকে ফুল দিয়ে অভ্যর্থনা জানান। দুপুর ১টার দিকে মার্কিণ রাষ্ট্রদূত নগরীর নতুত বাজার এলাকার ঐতিহ্যবাহী শংকর মঠ পরিদর্শনে যান। সেখানে বেশ কিছুক্ষন অবস্থানকালে সংশ্লিষ্টদের খোঁজ খবর নেন তিনি। বিকেল ৪টায় একটি বেসরকারী এয়ারলাইন্সে ঢাকার উদ্দেশ্যে বরিশাল ত্যাগ করেন মার্কিণ রাষ্ট্রদুত।
বুধবার রবার্ট মিলার বরিশালের কড়াপুরে মোঘল আমলে নির্মিত ঐতিহ্যবাহী ‘মিয়া বাড়ি মসজিদ’ পরিদর্শন করেন। তিন দিনের সফরে মঙ্গলবার সকালে ঢাকা থেকে নৌপথে রওয়ানা হয়ে দুপুরে বরিশাল পৌছেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত মিলার।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন