ঢাকা, বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬, ১৮ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

সারা বাংলার খবর

লন্ডনের বাংলাদেশ হাইকমিশনে জাতীয় শোক দিবস পালিত

কূটনৈতিক সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ১৮ আগস্ট, ২০১৯, ১২:০০ এএম

লন্ডনের বাংলাদেশ হাইকমিশনে যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোকদিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (১৫ আগস্ট) টাওয়ার হ্যামলেটসের একটি আশ্রয়কেন্দ্রে ও একটি দিবাযত্ন কেন্দ্রে গৃহহীন ও বয়স্কদের মধ্যে বিনামূল্যে খাবার পরিবেশন করা হয়। গতকাল শনিবার লন্ডনের বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনীম পূর্ব লন্ডনে ‘সোনালী গার্ডেন সেন্টার ও ডে-কেয়ার সেন্টারে’ গৃহহীন ও বয়স্কদের মধ্যে দুপুরের খাবার পরিবেশন করেন।
১৫ আগস্ট সকালে হাইকমিশনে জাতীয় পতাকা অর্ধ-নমিত করার মাধ্যমে দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। বিশেষ কর্মসূচির মধ্যে ছিল সন্ধ্যায় জাতির জনকসহ নিহতদের প্রতি দোয়া মাহফিল ও আলোচনা হয়। বাংলাদেশ হাইকমিশন প্রথমবারের মতো পূর্ব লন্ডনে জাতীয় শোকদিবস পালন করলো।


এতে স্বাগত বক্তব্যে হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনীম বলেন, ১৯৭১ সালে পরাজিত শক্তি ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদেরকে হত্যা করে আমাদের স্বাধীনতার অর্জন ও গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে চেয়েছিল। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা আমাদের আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুধু বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচারই করেননি, গণতন্ত্রকেও একটি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়ে বাংলাদেশকে উন্নত বিশ্বের দিকে এগিয়ে নিয়ে চলছেন। হাইকমিশনার টাওয়ার হ্যামলেটসে বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন সময়ে সফরের কথা উল্লেখ করে যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী বাংলাদেশি-ব্রিটিশ কমিউনিটিকে, বিশেষ করে নতুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও আদর্শ চর্চার পরামর্শ দেন।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টাওয়ার হ্যামলেটসের মেয়র জন বিগস। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশি-ব্রিটিশ কমিউনিটির নেতা সুলতান মাহমুদ শরীফ, বিশিষ্ট লেখক ও সাংবাদিক হারুন হাবিব, সংসদ সদস্য শাজাহান কামাল ও মুহিবুর রহমান মানিক ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক।
অনুষ্ঠানের শুরুতে হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসমীন, মেয়র জন বিগস, হাইকমিশনের কর্মকর্তা ও অন্য অতিথিদের নিয়ে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
এসময় বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকেও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এরপর ১৫ আগস্টের শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশি-ব্রিটিশ কমিউনিটির গণ্যমান্য ব্যক্তিরা ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বসহ বিভিন্ন পেশার দু’শতাধিক অতিথি উপস্থিত ছিলেন। হাইকমিশনে শোকদিবস উপলক্ষে প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনানো হয়। ১৫ আগস্টে নিহত সবার রুহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন