ঢাকা রোববার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২০, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ২০ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

গাবতলী উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা বিরুদ্ধে বয়স্ক-বিধবা-প্রতিবন্ধী ভাতা নিয়ে মামলা

গাবতলী (বগুড়া) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:৫৩ পিএম

বগুড়ার গাবতলী উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান সরকার বালিয়াদিঘী ইউনিয়নে ভাতা প্রদানের লক্ষে সর্ম্পন্ন একতরফা-ক্ষমতা বহিভূত-বেআইনী ভাবে ভূয়া ও অকার্যকর তালিকা তৈরী করায় ওই তালিকা বাতিল চেয়ে জেলা বগুড়ার ১ম যুগ্ম জজ আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলাটি দায়ের করেন বালিয়াদিঘী ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন ভাতা বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি মাহবুবুর রহমান।
মামলা সূত্র জানায়, বালিয়াদিঘী ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান অত্যন্ত নিষ্টা-অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা এবং সততা সহিত সরকার প্রদত্ত সকল ভাতা কার্যক্রম’সহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প বাস্তবায়ন করে আসছে। কিন্তু ২০১৮-১৯ইং অর্থবছরের গত ২৭শে জানুয়ারী বালিয়াদিঘী ইউপিতে (৮২টি বয়স্ক ভাতা, ৩০বিধবা ও ২৭অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতা) মোট ১শ ৩৯টি ভাতা প্রদানে জন্য তালিকা চেয়ে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা একটি পত্র প্রদান করেন। এ বরাদ্দ পত্র মতে বালিয়াদিঘী ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান পরিপত্রের ১৬ (২) ধারা বিধান মতে সকল ভাতা কমিটি গঠন করে প্রতিটি গ্রামে-৯টি ওয়ার্র্ডে ও ইউনিয়ন পর্যায়ে মিটিং এর মাধ্যমে রেজুলেশন করে ১শ ৩৯টি ভাতা তালিকা তৈরী করে গত ১৩মে উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের জমা দেন। উক্ত ভাতা তালিকা উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত সুপারভাইজার আমিনুল ইসলাম গ্রহন করেন। এরপর ওই তালিকা’কে কোনরুপ গুরুত্ব না দিয়ে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান তিনি তাঁর ব্যক্তিগত লোকদিয়ে সর্ম্পন্ন অন্যায়, অবৈধ, এখতিয়ার বিহীন, একতরফা ও ক্ষমতা বহিভূত ভাবে কোন জরিপ না করে বা কাহারো কোন মতামত না নিয়ে এমনকি সরকার কর্তৃক নির্ধারিত বয়স্ক’কে গুরুত্ব না দিয়ে বয়স্ক ভাতা, বিধবা না হওয়া স্বত্ত্বেও বিধবা ভাতা ও প্রতিবন্ধী না হলেও প্রতিবন্ধী ভাতা প্রদানের জন্য ভাতা তালিকা তৈরী (প্রস্তুত) করেন। এছাড়াও ওই কর্মকর্তা মাত্র কয়েকটি গ্রামকে প্রর্ধান্যে দিয়ে ১৩৯টি ভাতা তালিকা তৈরী করেন। ৩নং ওয়ার্ড থেকে ৪৬জন’কে ভাতা তালিকায় রাখা হয়। কিন্তু ২নং ওয়ার্ডে ২হাজার লোক বসবাস করলেও কেউ এই ভাতা তালিকায় নাম লেখাতে পারেনি। ফলে ইউনিয়নের হত-দরিদ্র ও ভাতা বঞ্চিত মানুষগুলো হতভম্ভ ও হতবাক হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে প্রতিবাদ সভা ও মিছিল করে আসছে। এমনকি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ইউনিয়নের ভাতা কমিটির সভাপতি হওয়ায় ওই ইউনিয়নের ভাতা প্রদানের তালিকা করার ক্ষমতা বা এখতিয়ার উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা নাই মর্মে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে। এরপর সাধারন মানুষের ন্যর্যদাবী প্রেক্ষিতে বালিয়াদিঘী ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান বাদী হয়ে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তাকে বিবাদী করে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। মোকদ্দমা নং ২০৪/১৯। বাদী প্রার্থনা মতে মোকদ্দমা নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত বিবাদী বিরুদ্ধে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা আদেশ চাইলে বিজ্ঞ আদালত ১০দিনের মধ্যে বিবাদী’কে জবাব দাখিলের জন্য কারন দর্শানো নোর্টিশ প্রদান করে আদেশ দেন।
ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান জানান, গাবতলী উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান সরকার সর্ম্পন্ন অবৈধ ভাবে ও অর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে অনিয়ম-দুনীতি ও ক্ষমতা অপব্যবহার করে ভাতা তালিকা তৈরী করেছেন। এতে করে ইউনিয়নের অসহায় ও হতদরিদ্র-ভাতা পাওয়া মত যোগ্যসম্পন্ন দুঃস্থ মানুষ বঞ্চিত হয়েছেন। তিনি এই অবৈধ ভাবে তৈরী করা ভাতা তালিকা বাতিলের দাবী জানান।
উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান সরকার জানান, ওই ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট থেকে ভাতা তালিকা বিষয়ে কোন সুপারিশ না গ্রহন করায় তিনি ক্ষুব্ধ হয়ে হয়রানী করার জন্য আমার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। মামলা করাটা যুক্তিসংগত হয়নি। তিনি আরো জানান, ভাতা তালিকা ওয়ার্ড ভিক্তিক হয় না বরং ইউনিয়ন ভিক্তিক হয়ে থাকে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন