ঢাকা, বৃহস্পতিবার , ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

মাদক কর্মকর্তা মনোজিৎ মদ পানেই মারা গেলেন!

খুলনা ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ১:৩৪ পিএম

খুলনার সেই মাদক কর্মকর্তা মনোজিৎ কুমার বিশ্বাস মদ পানেই মারা গেলেন। দূর্গাপূজায় বিজয় দশমীর রাতে খুলনায় মদপানে নিহত ৯জনের মধ্যে রয়েছেন তিনিও।

প্রায় দু’ বছর আগে ২০১৮ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি নিজেরা মদ খেয়ে গাঁজাসহ গ্রেপ্তার দুই সন্দেহভাজনকে নিয়ে খুলনার বটিয়াঘাটা থানায় গিয়েছিলেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা (এসআই) মনোজিৎ কুমার বিশ্বাস। তার সঙ্গে ছিলেন গোয়েন্দা শাখার সেপাই মো. সেলিম ও সোর্স (তথ্যদাতা) সুশীল। থানায় তাদের মাতলামিতে সন্দেহ হয় পুলিশের। পরে পুলিশ তাদের আটক করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের খবর দেয়। কর্মকর্তারা তাদের সহকর্মীদের মুচলেকা দিয়ে ছাড়িয়ে আনলেও ওই সোর্সের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে পুলিশ।
এ ঘটনায় সাময়িক বরখাস্ত করা হয় মনোজিৎকে। পরবর্তীতে বিভাগীয় মামলায় ডিমোশন দিয়ে এসআই থেকে এএসআই করা হয়। তিনি গত আগস্টে যোগ দেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর নোয়াখালী জেলা কার্যালয়ে।
এএসআই মনোজিৎ কুমার বিশ্বাস (৫২) খুলনা মহানগরীর হাজী মহসিন রোডস্থ আর্জেন আলী বাইলেন এলাকার ধীরাজ বিশ্বাসের ছেলে। তার তাপস কুমার বিশ্বাস ও শ্রাবন্তি বিশ্বাস তিথি নামে দু’টি সন্তান রয়েছে। শুক্রবার পোস্ট মর্টেম শেষে পরিবারের সদস্যরা খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গ থেকে তার মৃতদেহ নিয়ে গ্রামের বাড়ি রাজবাড়িতে সৎকার করা হয়েছে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর খুলনার উপ-পরিচালক মোঃ রাশেদুজ্জামান জানান, বিষাক্ত মদপানে মনোজিৎ নামে জনৈক ব্যক্তির মৃত্যুর খবর পান তিনি। কিন্তু পরবর্তীতে নিশ্চিত হন এই মনোজিৎ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর নোয়াখালী জেলা কার্যালয়ে এএসআই পদে কর্মরত ছিলেন। এর আগে গত বছর তিনি খুলনা কার্যালয়ে এসআই পদে কর্মরত ছিলেন। তার পুরো নাম মনোজিৎ কুমার বিশ্বাস। কিন্ত তার কর্মস্থল বর্তমানে খুলনায় না হওয়ায় এ বিষয়ে তিনি খুব একটা হস্তক্ষেপ করেননি, মৃতদেহ পরিবারের সদস্যরা নিয়ে গেছে- এ টুকুই।’

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর নোয়াখালী জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক (এডি) বিপ্লব মোদক জানান, এএসআই মনোজিৎ কুমার বিশ্বাস চলতি বছরের আগস্টের শেষের দিকে নোয়াখালী জেলা কার্যালয়ে যোগদান করেন। দুর্গাপূজা উপলক্ষে ৩ অক্টোবর তিনি ছুটিতে যান। পরে বিজয় দশমীর রাতে তার স্ত্রী ফোনে জানান, তিনি অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। বৃহস্পতিবার তিনি মারা গেছেন বলে জানতে পারেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (12)
Md Syed Alam ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৬:২৬ পিএম says : 0
ডিআইজি মিজান ওসি মোয়াজ্জেম এবং জামালপুরের ডিসি আহমেদ কবিরের পক্ষ থেকে অভিনন্দন ও সাধনার পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা রইলো,,
Total Reply(0)
Kazi Zabed Uddin ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৬:২৭ পিএম says : 0
উনি উনার পদে এতোটাই দায়িত্বভার এ মগ্ন ছিলেন যে শেষ পযর্ন্ত জান দিয়ে প্রমান করে দিলেন যে মাদক মৃত্যু ঘটায়
Total Reply(0)
Golam Rabbani ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৬:২৭ পিএম says : 0
মাদক কর্মকর্তা মাদক সেবন না করলে,নামের স্বার্থকতা থাকেনা..!!!!
Total Reply(0)
তসলিম খান সাপোটার্স ফোরাম ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৬:২৭ পিএম says : 0
আফসোস! যেখানে যাকে দরকার ছিলো সেখানে সে নেই৷
Total Reply(0)
Abulkhair Abu ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৬:২৮ পিএম says : 0
তাদের জন্য মদ হালাল। তবে একটু বেশি গিলেচে মনে হয়।
Total Reply(0)
Rafi Rayhan Khan ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৬:২৮ পিএম says : 0
যতদিন না হক্কানী ওলামায়ে ক্বেরামদের মন্ত্রণালয় গুলোর দায়িত্ব না দেওয়া হবে ততদিন এদেশে শান্তি কায়েম হবেনা।
Total Reply(0)
Irfan Sarker ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৬:৩৪ পিএম says : 0
Total Reply(0)
JoYnul IslAm ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৬:২৮ পিএম says : 0
যাদের মদ পান হালাল, তাদেরকে মাদক নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা কিভাবে দেয়া হয়???
Total Reply(0)
Khan ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৯:০৭ পিএম says : 0
মাদক নিয়ন্ত্রক কর্মক, তিনি মদ খেয়ে প্রমান করলেন যে,এটি মৃত্যুর কারন।এই সাহসী কাজের জন্য মেডেল দেয়া যায়না?এটায় বাংলাদেশের পরিচয়।রক্ষক এর কাজ হল ভক্ষক এর কাজ করা।না হলে এদেশকে মানুষ কিভাবে চিনবে??মন্ত্রিদের জ্ঞানগর্ভ উক্তি শুনতে ইচ্ছা হয়!!
Total Reply(0)
Khan ১৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৯:০৭ পিএম says : 0
মাদক নিয়ন্ত্রক কর্মক, তিনি মদ খেয়ে প্রমান করলেন যে,এটি মৃত্যুর কারন।এই সাহসী কাজের জন্য মেডেল দেয়া যায়না?এটায় বাংলাদেশের পরিচয়।রক্ষক এর কাজ হল ভক্ষক এর কাজ করা।না হলে এদেশকে মানুষ কিভাবে চিনবে??মন্ত্রিদের জ্ঞানগর্ভ উক্তি শুনতে ইচ্ছা হয়!!
Total Reply(0)
জয়নাল আবেদিন ১৫ অক্টোবর, ২০১৯, ৩:২৫ পিএম says : 0
সঠিক ব্যাক্তি দায়িত্ব্য প্রাপ্ত ছিল, সে মাদক সেবন না করলে আসল না বেজাল তা প্রমান করতো কি ভাবে......?
Total Reply(0)
Md. Rabiul awal ১৬ অক্টোবর, ২০১৯, ১০:০০ এএম says : 0
উনাদের মদ হালাল।আর তাকেই মাদক রোদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।অবাক না হয়ে পাটলাম না।ভুল লোক বসালে রেজাল্ট এমনই হবে।এই লোকের তো সারা জীবন মদ কিনে খেতে হয়নি।
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন