বুধবার, ১০ আগস্ট ২০২২, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯, ১১ মুহাররম ১৪৪৪

আন্তর্জাতিক সংবাদ

শিরোনামে বাগদাদি ‘ধর্মগুরু’ লিখে বিতর্কিত ওয়াশিংটন পোস্ট

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ অক্টোবর, ২০১৯, ৮:৫৩ পিএম

বিশ্বের অন্যতম কুখ্যাত সন্ত্রাসী। পৃথিবীর সবচেয়ে ভয়ঙ্কর জঙ্গি সংগঠন আইএস’র প্রধান আবু বকর আল বাগদাদি। অনলাইন সংস্করণে তার মৃত্যু সংবাদে ‘ধর্মগুরু’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশ করে বিপাকে পড়েছে মার্কিন সংবাদপত্র ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’। যদিও প্রথম শিরোনাম ছিল ‘শীর্ষ সন্ত্রাসী’র মৃত্যু। পরে সেটি পাল্টে লেখা হয়, ‘উগ্র ধর্মগুরু’। আর এতেই নানা মহল থেকে তীব্র ক্ষোভ, কটাক্ষ আছড়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়। শুরু হয় ব্যঙ্গ বিদ্রুপ। পরে অবশ্য সেই শিরোনাম পাল্টে দিয়ে ওয়াশিংটন পোস্ট কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে ভুল স্বীকার করে বলা হয়েছে, তাড়াহুড়োয় পরিবর্তন করতে গিয়েই এই কাণ্ড ঘটেছে, যা হওয়া উচিত ছিল না।

মার্কিন সময় অনুযায়ী রোববার সকালে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ঘোষণা করেছেন, মার্কিন সেনার অভিযানে মৃ্ত্যু হয়েছে বাগদাদির। তার পর থেকেই অনলাইন সংবাদ মাধ্যমগুলি এই খবর নিয়ে কার্যত ঝাঁপিয়ে পড়ে। সেই স্রোতেই ওয়াশিংটন পোস্ট প্রথমে সেই খবর প্রকাশ করে ‘টেররিস্ট ইন চিফ’ বা ‘শীর্ষ সন্ত্রাসী’র মৃত্যু। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই সেই শিরোনাম পাল্টে করা হয়েছিল, ‘উগ্র ধর্ম-বিশারদ ইসলামিক স্টেটের প্রধানের ৪৮ বছর বয়সে জীবনাবসান।’

বিতর্ক বাধে এই দ্বিতীয় শিরোনাম নিয়েই। এই শিরোনাম প্রকাশিত হতেই সারা বিশ্ব থেকে ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’কে নিয়ে তুমুল সমালোচনা শুরু হয়। আমেরিকায় ট্রাম্পপন্থীরা ওয়াশিংটন পোস্টকে তীব্র আক্রমণ শুরু করেন। প্রশ্ন ওঠে, এই রকম কুখ্যাত এক জন ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ জঙ্গিকে কী ভাবে ‘ধর্মগুরু’ বলল ওয়াশিংটন পোস্টের মতো নির্ভরযোগ্য একটি সংবাদ মাধ্যম। ওই শিরোনামে কার্যত বাগদাদির গুণকীর্তন করা হয়েছে এবং ওই শব্দবন্ধে কার্যত তার কুখ্যাত রূপ ঢাকা পড়ে গিয়েছে।

এর পরেই তড়িঘড়ি সেই দ্বিতীয় শিরোনাম ফের পরিবর্তন করে দেয় ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’ কর্তৃপক্ষ। সংস্থার মুখপাত্র ক্রিস কোরাত্তি টুইটারে লেখেন, ‘আল বাগদাদির মৃত্যু সংবাদ নিয়ে আমাদের এই শিরোনাম (দ্বিতীয় শিরোনাম) এমন হওয়া উচিত ছিল না। আমরা খুব দ্রুত সেটা পাল্টে দিয়েছি।’ পরে সংবাদ মাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘আমাদের প্রতিনিধিরা বছরের পর বছর ইরাক সিরিয়ায় কাটিয়েছেন। আইএস-এর বর্বরতা নিয়ে তারা খবর করেছেন। দুর্ভাগ্যজনক ভাবে তড়িঘড়ি লেখা ওই শিরোনামে বাগদাদি ও আইএস-এর সেই নৃশংসতা ঠিক ভাবে প্রকাশ পায়নি। তবে সেটা দ্রুত পাল্টে দেয়া হয়েছে।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
md.ataur rahman ১ এপ্রিল, ২০২০, ৩:০৪ পিএম says : 0
When you are friends of USA. you are a freedom fighter.on the other hand if you fight for your own motherland you are a terrorist.
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন