ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ০৪ ভাদ্র ১৪২৬, ১৭ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

আইটি এন্ড টেলিকম

সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন - বাংলাদেশে তথ্যপ্রযুক্তিগত নতুন সম্ভাবনা

প্রকাশের সময় : ২১ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

শওকত আলম পলাশ

তথ্যপ্রযুক্তি খাতে দুনিয়া এগিয়ে গেছে অনেকখানি। আমাদের জীবনে নতুন সব সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন করে দিয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি। বছরের পর বছর ধরে তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে এ অভূতপূর্ব উন্নতির ফলে মানুষ আগের চেয়ে অনেক বেশি বিষয় সম্পর্কে জানতে পারছে অনেক সহজেই। আর এটা গিয়ে নিয়ন্ত্রণ করছে তাদের চাহিদাকে। প্রযুক্তির সহজলভ্যতার ফলে প্রযুক্তি পণ্য ও সেবাদাতাদের কাছ থেকে আমাদের চাহিদাও অনেক বেড়ে গেছে। যেটা গিয়ে সরাসরি প্রভাব ফেলছে প্রযুক্তি ব্যবসায় খাতে। যেসব প্রতিষ্ঠান তথ্যপ্রযুক্তির ওপরে সম্পূর্ণ নির্ভরশীল তারা সবসময়ই চেষ্টা করেন প্রযুক্তিগতভাবে আলাদা আলাদা সব হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার ব্যবস্থার একসাথে সন্নিবেশ ঘটিয়ে তথ্যপ্রযুক্তিগত সামগ্রিক দক্ষতা বাড়িয়ে তুলতে। প্রতিযোগিতায় এগিয়ে থাকতে এটা তাদের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। এক্ষেত্রে, তাদের বিশেষভাবে করণীয় হচ্ছে প্রযুক্তিগত নির্দিষ্ট দক্ষতা অর্জন। আর বিশেষ এ দক্ষতা অর্জনে ভূমিকা রাখতে পারে সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো।
সিস্টেম ইন্টিগ্রেশনকে বলা যেতে পারে একটি তথ্য প্রযুক্তিগত প্রকৌশল ব্যবস্থা যেখানে পৃথক পৃথক সাবসিস্টেমগুলো একটি নির্দিষ্ট ব্যবস্থাপনায় একীভূত হয়ে কাজ করে। প্রতিটি ইন্টিগ্রেটেড সাবসিস্টেম একটি নির্দিষ্ট প্রয়োজন অনুযায়ী কাজ করবে। সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন প্রাতিষ্ঠানিক কার্যদক্ষতাকে যেমন বাড়িয়ে তুলবে একইসাথে প্রযুক্তিগত খরচকেও কমিয়ে আনবে। একইসাথে সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবা প্রযুক্তির অভ্যুত্থানের এ সময়ে প্রযুক্তিগত নির্দিষ্ট নকশা অনুযায়ী পরিকল্পনা ও সে অনুযায়ী প্রকল্প সঞ্চালনে প্রতিষ্ঠানগুলোকে এগিয়ে রাখবে। উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে টেলিযোগাযোগ খাতে সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন খুবই কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারে। সারাবিশ্বেই টেলিযোগাযোগ সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো প্রতিনিয়ত তাদের তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবস্থাপনা ও প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম পরিচালনার রূপান্তরসহ প্রযুক্তিগত উন্নয়ন ও পরবর্তী প্রজন্মের মেশিন টু মেশিন (এম টু এম) নিযুক্তি, কমপ্লেক্স অ্যান্ড কনভার্জড আইপি নেটওয়ার্ক নির্মাণ ও ব্যবস্থাপনা, কলড্রপ এবং অন্যান্য অনাকাক্সিক্ষত বিষয় এড়ানোর জন্য অ্যাডভান্স নেটওয়ার্ক সিঙ্ক সল্যুশনে সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবা ব্যবহার করছে। শুধুমাত্র টেলিযোগাযোগ সেবাখাতই নয় ব্যাংক, এফএমসিজি এবং অন্যান্য ব্যবসাখাতও সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবার মাধ্যমে প্রযুক্তির যথোপযুক্ত ব্যবহার করে প্রাতিষ্ঠানিক কার্যদক্ষতা অর্জন করতে পারে। প্রতিষ্ঠানের চাহিদা অনুযায়ী সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সুচারুভাবে সম্পাদন করার জন্য দরকার দক্ষ প্রতিষ্ঠান। দক্ষতার পাশাপাশি দরকার অভিজ্ঞতারও। সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবাদাতা এমন প্রতিষ্ঠান যাদের সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন ব্যবস্থাপনায় রয়েছে অভিজ্ঞতা। এ নিয়ে দেশের অন্যতম সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বেইজ টেকনোলজিসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের আহমেদ বলেন, সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবা প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের জন্যই অত্যন্ত কার্যকরী ও প্রয়োজনীয় একটি তথ্যপ্রযুক্তিগত সেবা। এজন্য বিশ্বজুড়ে করপোরেশনগুলো সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন বাস্তবায়ন করতে ও প্রতিযোগিতামূলক বৈশ্বিক বাজারে নিজেদের এগিয়ে রাখতে সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করছে। বাংলাদেশে বাজার বিস্তৃতির কারণে আমাদের দেশেও প্রচুর সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে ও কাজের সুযোগ বেড়েছে। যা আমাদেরকেও প্রতিযোগিতামূলক এ বৈশ্বিক বাজারে টিকে থাকতে সহায়তা করবে। বেইজ টেকনোলজিসের মতো সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবাদানে নিয়োজিত প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের নিজ নিজ ক্ষেত্রে বিশেষভাবে বিশেষায়িত। এক্ষেত্রে তাদের রয়েছে অভিনব দক্ষতা ও উদ্ভাবনী শক্তি। যার মাধ্যমে তারা প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজন অনুযায়ী সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবাদান করতে পারবে। আন্তর্জাতিক গবেষণা সংস্থা রিসার্চ অ্যান্ড মার্কেটের একটি গবেষণা অনুযায়ী, সিস্টেম ইন্টিগ্রেশনের বৈশ্বিক বাজার ২০১৩ সালের ১৯১.৩৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিপরীতে ২০১৮ সালে ৩৩১.৭৬ বিলিয়নে পরিণত হবে। সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন ব্যবহার করার ক্ষেত্রে বিশ্বে নেতৃত্ব দিচ্ছে উত্তর আমেরিকা। এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলে এ সেবাখাতের খুব দ্রুত বিস্তার ঘটছে। আমাদের পাশ্ববর্তী দেশগুলোর তুলনায় সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবাখাতে পিছিয়ে রয়েছি আমরা। আমাদের এখানে এখনও অনেক প্রতিষ্ঠান সিস্টেম ইন্টিগ্রেশনের সম্ভাবনা বুঝে উঠতে পারেনি। সিস্টেম ইন্টিগ্রেশনের উদ্ভাবনী শক্তি ও কার্যকারিতা আমাদের দেশের করপোরেশনগুলোকে প্রতিযোগিতামূলক জাতীয় ও বৈশ্বিক বাজারে টিকে থাকতে সহায়তা করবে অনেকখানি। তথ্যপ্রযুক্তিগত সমস্যার স্থায়ী সমাধানে দক্ষতা ও সাব সিস্টেমগুলো একীভূত করার মাধ্যমে আমাদের ব্যবসাখাতে অভূতপূর্ব সুযোগ সৃষ্টি করবে সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন। আমাদের দেশে সিস্টেম ইন্টিগ্রেশনের নতুন সূচনা করতে পারে ব্যাংকিং ও টেলিকম সেবাখাত। সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন সেবার পূর্ণ ব্যবহার আমাদের ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন সফল করার পাশাপাশি দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে সিস্টেম ইন্টিগ্রেশন। বিশ্বে তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে আমাদের এগিয়ে নিয়ে যাবে অনেকখানি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন