ঢাকা, সোমবার , ২৭ জানুয়ারী ২০২০, ১৩ মাঘ ১৪২৬, ০১ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

ভারতে গমনাগমনকারী পাসপোর্ট যাত্রীদের যাতায়াতের সময়সীমা সকাল ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত বৃদ্ধি

বেনাপোল চেকপোস্ট

বেনাপোল সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯, ৪:২৮ পিএম

বেনাপোল চেকপোস্ট ভারতে গমনাগমনকারী পাসপোর্ট যাত্রীদের যাতায়াতের সময়সীমা সকাল ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত বৃদ্ধি করার নির্দেশনা দিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বার্ড। কিন্ত বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের কর্মকর্তাদের অবহেলার কারণে দীর্ঘ ৫ মাসেও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। গত ৩রা জুলাই জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের এক নির্দেশনায় জানানো হয় বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের কার্যক্রম সকাল ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত বর্ধিত করা হলো।

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন সুত্রে জানাগেছে প্রতিদিন বেনাপোল বন্দর দিয়ে চিকিৎসা, ভ্রমন ও ব্যবসার কাজে প্রায় ৭থেকে ৮হাজার পার্সপোট যাত্রী ভারত গমনাগমন করে থাকে। বেনাপোল চেকপোষ্ট এলাকায় সরোজমিনে পরিদর্শনে গেলে ভারত-বাংলাদেশ গমনাগমনকারী পার্সপোট যাত্রীরা সরকারের এই সিন্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। পার্সপোষ্ট যাত্রীরা দ্রæততম সমায়ের মধ্যে এ সিন্ধান্ত বাস্তবায়ন করার আহবান জানান। একাধিক পার্সপোট যাত্রী বলেন, সরকারের এই সিন্ধান্ত দ্রæত বাস্তবায়ন হলে আমাদের অর্থ ও সময় দুটোয় সাশ্রয় হবে। অনেক সময় সন্ধ্যার দিকে আমাদের কাজ শেষ হলেও বেনাপোল চেকপোষ্ট বন্ধ থাকার কারনে আমরা বাড়ি ফিরতে পারিনা। বাধ্য হয়ে আমাদের একটি রাত হোটেলে থাকতে হয়।

ঢাকার ওয়ারীতে বাড়ি পার্সপোট যাত্রী সাজ্জাতুল কবির বলেন, গতকাল বুধবার বিকালে ভারতের কোলকাতা থেকে পেট্রাপোল চেকপোষ্টের উদ্দ্যেশে রওয়ানা দেয়। রাস্তায় জ্যামের কারনে পেট্রাপোল চেকপোষ্টে এসে পৌছাতে বাজে প্রায় সন্ধ্যা ৬.৪০ মিনিট। এসে দেখি চেকপোষ্টের গেট বন্ধ।বাধ্য হয়ে চেকপোষ্ট থেকে ৫ কিলোমিটার দুরে বনগাঁ শহরে এসে একটি হোটেলে রাত্রী যাপন করতে বাধ্য হই। পরে সকালে চেকপোষ্ট অতিক্রম করি। ভারতগামী বাংলাদেশি পার্সপোট যাত্রী কুমিল্লার হোমনার জয়ন্ত কুমার অভিযোগ করে বলেন,ফেরিসহ বিভিন্ন কারনে বাস সন্ধ্যা ৬টার আগে বেনাপোল এসে না পৌছালে আমরা ভারতে যেতে পারিনা। বাধ্য হয়ে রাতে হোটেলে থেকে সকালে ভারতে যেতে হয়। এই সমস্যার সমাধান হওয়া খুবই জুরুরি।

বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের দাবির প্রেক্ষিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এ সিন্ধান্ত গ্রহন করেছে বলে জানান বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি আলহাজ্ব মফিজুর রহমান সজন। তিনি আরো জানান, আমদানি ,রফতানি কারক,সিএন্ডএফ এজেন্ট ব্যবসায়ী ও সর্বপরি জন সাধারনের কথা চিন্তা করে আমরা দীর্ঘ দিন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নিকট দাবি জানিয়ে আসছি বেনাপোল চেকপোষ্ট সকাল ৬টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত খোলা রাখার জন্য। অবশেষে গত জুলাই মাসে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড বেনাপোল চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশন সকাল ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা রাখার আদেশ জারি করে বেনাপোল কাস্টমস হাউসকে পত্র দেয়। কিন্তু দীর্ঘ ৫ মাস অতিবাহিত হলেও রাজস্ব বোর্ডের আদেশ বাস্তবায়িত হয়নি। এটা অনেক দুঃখ জনক।

বেনাপোল চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহসিন খাঁন পাঠান জানান, যদিও এটা সরকারী সিন্ধান্ত । ভারতীয় চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশন পুলিশ রাজি থাকলে আমাদের কোন সমস্যা নেই। আমাদের জনবলের ও সংকট নেই।

বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার বেলাল হোসেন চৌধুরী জানান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চিঠি বাস্তবায়নের জন্য ইতিমধ্যে সংশ্লিস্ট দফতরকে চিঠি দেয়া হয়েছে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন