ঢাকা, বুধবার, ০৫ আগস্ট ২০২০, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৪ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

নেত্রকোনার বারহাট্টায় যৌতুকের জন্য অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যা

নেত্রকোনা জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৯ জানুয়ারি, ২০২০, ৪:০৯ পিএম

বাবার বাড়ি থেকে যৌতুকের টাকা এনে না দেয়ায় তমালিকা আক্তার (২০) নামে এক অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে ছুরিকাঘাত ও গলা কেটে হত্যার অভিযোগ ওঠেছে তাঁর স্বামী রাসেল মিয়ার (৩০) বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে গত বুধবার গভীর রাতে নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা উপজেলার সিংধা ইউনিয়নের চর সিংধা গ্রামে। ঘটনার পর অভিযুক্ত রাসেল পলাতক রয়েছেন।
স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, চর সিংধা গ্রামের বাসিন্দা আবুল হাশিমের পুত্র ঢাকায় একটি তৈরি পোশাক কারখানায় শ্রমিক রাসেল মিয়ার সাথে গত দেড় বছর আগে একই ইউনিয়নের পাশের গ্রাম ভাটি পাড়ার রমিজ মিয়ার মেয়ে তমালিকা আক্তারের বিয়ে হয়। এটি রাসেলের দ্বিতীয় বিয়ে। তমালিকা বর্তমানে সাড়ে সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা। বিয়ের পর থেকে যৌতুকলোভী রাসেল বিভিন্ন সময় তমালিকাকে বাবার বাড়ি থেকে যৌতুকের টাকা এনে দেওয়ার জন্য চাপ দিয়ে আসছিল। এরই মধ্যে তমালিকা তাঁর বাবার কাছ থেকে বেশ কিছু টাকা এনে দেন। সম্প্রতি রাসেল তমালিকাকে তার বাবার বাড়ি থেকে আরো কিছু টাকা এনে দিতে বলেন। তমালিকা বাবার বাড়ি থেকে টাকা এনে দিতে অপারগতা জানালে রাসেল ক্ষিপ্ত হয়ে স্ত্রীকে শারীরিক ও মানসিক ভাবে অত্যাচার নিযাতন চালায়। এ ব্যাপারে গ্রাম্য সালিস দরবারও হয়। গত বুধবার রাত পৌনে দুইটার দিকে রাসেল তাঁর স্ত্রীকে যৌতুকের জন্য মারধর শুরু করে। এক পর্যায়ে পাষন্ড রাসেল স্ত্রী তমালিকাকে ছুরিকাঘাত ও জবাই করে হত্যা করে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাতটার দিকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।
বারহাট্টা থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে রাসেলের বাবা আবুল হাসিম ও মা মাজেদা আক্তারকে পুলিশ আটক করে থানায় নিয়ে এসেছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে। অভিযুক্ত রাসেল মিয়াকে আটক করতে অভিযান চলছে।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন