ঢাকা, রোববার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৮ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

কোম্পানীগঞ্জে কবর থেকে আরও ২টি লাশ উত্তোলন

নোয়াখালী ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২১ জানুয়ারি, ২০২০, ৬:৩৪ পিএম

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় বসুরহাট বাজারে রফিক হোমিও হল থেকে স্পিরিট পান করে ৬জনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় দাফনের ৩মাস ২৪দিন পর ময়না তদন্ত ছাড়া দাফন করা ৪জনের মধ্যে বাকী দুই জনের লাশ আজ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে।
মঙ্গলবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত উপজেলার চরকাঁকড়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে আব্দুল খালেক (৭১) ও বসুরহাট পৌরসভা ৮নং ওয়ার্ডের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে ওমর ফারুক লিটন (৫০) এর পারিবারিক কবরস্থান থেকে লাশ দুটি উত্তোলন করা হয়।
উত্তোলনের পর লাশ দু’টি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ রোকনুনজ্জামান খান ও কোম্পানীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক আনোয়ার হোসেনের উপস্থিতিতে ময়না তদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।
এরআগে সোমবার সিরাজপুর ইউনিয়নের মোহাম্মদ নগর গ্রামের ফয়েজ আহম্মদের ছেলে ড্রাইভার মহিন উদ্দিন (৪০) ও একই ইউনিয়নের ০৫নং ওয়ার্ড বাগান বাড়ীর পার্শ্বে মৃত রইসুল হকের ছেলে সবুজ (৪৫) এর লাশ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়।
উল্লেখ্য, গত বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাতে বসুরহাট পৌরসভার ‘রফিক হোমিও হল’ থেকে র‌্যাক্টিফাইড স্পিরিট পান করে নূর নবী মানিক, ওমর ফারুক লিটন, রবি লাল দে, মোঃ সবুজ, মহিন উদ্দিন ড্রাইভার ও মুক্তিযোদ্ধা আবদুল খালেকসহ ৬ জন মৃত্যু বরণ করে। নূর নবী মানিক ও রবি লাল দে’র লাশের ময়না তদন্ত শেষে দাফন ও সৎকার করা হয়েছিল। অপর ৪ জনের লাশ ময়না তদন্ত ছাড়াই দাফন করায় আদালতের নির্দেশে তাদের লাশ উত্তোলন করার বিষয়ে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে আদেশ দিয়েছেন। স্পিরিট পানে ৬জনের মৃত্যুর ঘটনায় অভিযুক্ত রফিক হোমিও হলের মালিক কথিত হোমিও ডাক্তার সৈয়দ জাহেদ উল্যাহ ও তার ছেলে সৈয়দ মিজানুর রহমান প্রিয়ম বর্তমানে নোয়াখালী কারাগারে রয়েছেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন