ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯ আশ্বিন ১৪২৭, ০৬ সফর ১৪৪২ হিজরী

স্বাস্থ্য

শীতে অ্যাটোপিক ডার্মাটাইটিস শিশুদের বিশেষ যতœ

অধ্যাপক (ডাঃ) মনজুর হোসেন | প্রকাশের সময় : ২৪ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০২ এএম

শিশুর ত্বকে একজিমা একটি সাধারন চর্ম রোগ । মূলত শীত কালেই শিশুরা এ রোগটিতে আক্রান্ত হয় বেশী। নবজাতক থেকে এক বছর বয়সি শিশুদের মধ্যে অ্যাকজিমা সচরাচরই দেখা যায় । সাধারনত শিশুদের ত্বকে অ্যাটোপিক ডার্মাটাইটিস এবং কন্টাক্ট ডার্মাটাইটিস দুই ধরনের অ্যাকজিমা হয়ে থাকে ।
শিশুর ত্বকে অ্যাকজিমা হওয়ার কারণ:
অ্যাটোপিক ডার্মাটাইটিস বা একজিমা প্রায়শই শিশুদের মধ্যে ঘটে থাকে যাদের পরিবারে ডার্মাটাইটিস, খাদ্য অ্যালার্জি, হাঁপানি, জ্বর এবং পরিবেশগত অ্যালার্জির ইতিহাস রয়েছে। যদিও অটোপিক ডার্মাটাইটিসের কারণ অজানা, জেনেটিক্স স্পষ্টভাবে একটি কারণ হিসাবে ভূমিকা পালন করে। তবে অ্যালার্জির সম্পর্কটি অস্পষ্ট।
সাধারনত ত্বকে জ্বালা বা অ্যালার্জেনের সংস্পর্শে এলে কন্টাক্ট বা যোগাযোগ ডার্মাটাইটিস দেখা দিতে পারে। একটি কারণ হ›ল খাবার (কমলার রস বা অন্যান্য অ¤িøয় খাবার থেকে)। ডিটারজেন্ট, পোশাক, সাবান যা খুব শক্তিশালী, নির্দিষ্ট খাবার এবং ওষুধের পাশাপাশি উলের বা রুক্ষ বোনা কাপড়ের মতো বিরক্তির সাথে বারবার যোগাযোগ হলে এটি বেশী হয়। সবচেয়ে সাধারণ কারন গুলির মধ্যে একটি হ›ল শিশুদের নিজস্ব লালা, যারা তাদের ঠোঁট চাটতে বা কামড়াতে পছন্দ করে তাদের মুখের চারপাশের ত্বকে একজিমা হতে পারে।
যেসব প্রতিক্রিয়া লক্ষনীয় : টুথপেস্ট এবং মাউথওয়াশের জন্য কিছু স্বাদযুক্ত বা অ্যাডিটিভ (এটি চারপাশে বা মুখের মধ্যে ফুসকুড়ি সৃষ্টি করে)।
জুতা তৈরিতে ব্যবহৃত অ্যাডহেসিভস, রঙ বা চামড়া (এই উপাদানটি পায়ের আঙ্গুলের ও পায়ের টিপসে প্রতিক্রিয়া তৈরি করে)
পোশাকগুলিতে ব্যবহৃত রঙ (যে জায়গাগুলিতে ত্বকের সংস্পর্শে আসে বা যেখানে ঘাম বেড়েছে সেখানে ফাটাভাব সৃষ্টি করে)
বিষাক্ত উদ্ভিদ, বিশেষত বিষ আইভি, বিষ ওক এবং বিষ স্যামাক। কন্টাক্টে আসার কয়েক ঘন্টার মধ্যে ফুসকুড়ি উপস্থিত হয় (বিষ আইভির সাথে এক থেকে তিন দিন); পাশাপাশি চুলকানি এবং ছোট ফোস্কা হতে পারে।
চিকিৎসা : যদি বাচ্চার ফুসকুড়ি দেখা দেয় যা একজিমার মতো দেখা যায় তবে সঠিক রোগ নির্ণয় করতে এবং সঠিক চিকৎসার জন্য শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের নিকট থেকে এটি পরীক্ষা করানো উচিত। কিছু ক্ষেত্রে তারা আপনাকে চর্ম রোগ বিশেষজ্ঞের কাছে পরামর্শ চাইতে বলতে পারেন।
একজিমার কোনও প্রতিকার নেই। তবে সাধারণত এই ত্বকের অবস্থা সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। সর্বাধিক কার্যকর চিকিৎসা হ›ল ত্বককে শুষ্ক ও চুলকানি হওয়া থেকে রোধ করা এবং অ্যালার্জেন এড়ানো যা পুনরাবৃত্তি ঘটায়। এটি করার জন্য:
ত্বকে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন (উদাহরণ স্বরূপ, ক্রিম,লোশন বা মলম)। শুষ্কতা এবং চুলকানি কমাতে এটি নিয়মিত ব্যবহার করুন ।
আপনার বাচ্চাকে হালকা গরম পানিতে প্রতিদিন গোসল করান। তারপরে আর্দ্রতা ধরে রাখতে একটি ক্রিম বা মলম ব্যবহার করুন।
এমন পোশাক (উলের বা সিন্থেটিক উপকরণ) পরিহার করুন যা প্রায়ই চুলকানি বা জ্বালা তৈরি করে।


শিশুরোগ ও শিশু হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ
সাবেক পরিচালক শিশু হাসপাতাল
ডাঃ মনজুর’স চাইলড’স কেয়ার সেন্টার
৮৪/১(৩য়তলা), রোড ৭/এ, সাতমসজিদ রোড, ধানমন্ডি, ঢাকা- ১২০৯ ।
মোবাইল-০১৭১১৪২৯৩৭৩।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন