ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৬ আগস্ট ২০২০, ২২ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৫ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ট্রাম্প-নেতানিয়াহু দুজনেই বিচারের মুখোমুখি : আখদার অভিশংসন-কারাগার থেকে বাঁচতেই শান্তি পরিকল্পনা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩১ জানুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

আলজেরিয়ার সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আখদার ইব্রাহিমি বলেছেন, শান্তি পরিকল্পনার মধ্যে যে ধরন দেখা যাচ্ছে, তা সত্যিকার অর্থে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর জন্য সাজানো হয়েছে। শিগগিরই তিনি নির্বাচনের মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন। আবার দুর্নীতির অভিযোগে তার বিচারও চলছে। সউদী আরবের ইংরেজি দৈনিক আরব নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, এই শান্তি পরিকল্পনা ইসরাইলের পাশাপাশি মার্কিন নির্বাচনের সঙ্গেও সংশ্লিষ্ট। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অভিশংসনের বিচারের মুখোমুখি। অর্থাৎ ট্রাম্প ও নেতানিয়াহু দুজনেই এখন বিচারের মুখোমুখি জানিয়ে তিনি বলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্টের ক্ষেত্রে অভিশংসন যেমন সত্য, তেমনি ইরানি প্রধানমন্ত্রীও কারাগারে যাওয়ার হুমকিতে রয়েছেন। কাজেই অভিশংসন ও কারাগার থেকে বাঁচতেই এই শান্তি পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। শান্তি পরিকল্পনা ঘোষণা করতে যখন ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠক করতে যাচ্ছেন, তখন দুর্নীতির অভিযোগে মঙ্গলবার নেতানিয়াহুকে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযুক্ত করা হয়েছে। ঘুষগ্রহণ, তছরুফ ও আস্থাভঙ্গের তিনটি গুরুতরও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। আলজেরিয়ার সাবেক এ মন্ত্রীর মতে, এই শান্তি পরিকল্পনার সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্যের শান্তির কোনো সম্পর্ক নেই। তিনি বলেন, ফিলিস্তিনিরা মারাত্মক সমস্যার মধ্যে রয়েছেন। গত ৭০ বছর ধরে তারা দখলদারিত্বের মধ্যে রয়েছেন। নিয়মিত তাদের অপমানিত করা হচ্ছে। সবক্ষেত্রে তাদের অধিকার হরণ করা হচ্ছে। ঔপনিবেশিক শাসনে যারা বসবাস করেছেন, তারা এই পরিস্থিতি উপলব্ধি করতে পারবেন। আলজেরিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার ক্ষেত্রে যেমনটি ঘটেছে। শান্তির জন্য কাজ করা বিশ্বনেতাদের সংগঠন দ্য এলডারসের এই সদস্য বলেন, শতাব্দীর এই সেরা চুক্তিতে ফিলিস্তিনিদের আধামানুষ হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে কিংবা তাদের কোনো অস্তিত্বই নেই। আরব নিউজ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (7)
Shahriar Islam Khan ৩১ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১১ এএম says : 0
একচেটিয়া দখল দারিত্বের মাধ্যমে মধ্য প্রচ্যে শান্তি আনবেনা । শান্তির জন্য স্বাধীন শক্তিশালী ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠন করতে হবে। যেহেতু ইসরাইলিরা দখল দারী তাদরকে বেশী ছাড় দিতে হবে।
Total Reply(0)
MD Yeasin Bhuyan ৩১ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১২ এএম says : 0
ট্রাম্পে এই প্রস্তাবে বছরের শেরা বিনোদন পাইলাম
Total Reply(0)
Rubeldxb Rubel ৩১ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১৩ এএম says : 0
কখনো না সেঈ হচ্ছে বিশ্বের বড় শয়তান এক আমেরিকা ট্রাম আর এক ঈসরাঈয়েল নেতা আয়ী এঈ দুঈ জন মুসলীম দের কখনো শান্তি চায় না
Total Reply(0)
Alomgir Hossin ৩১ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১৩ এএম says : 0
শয়তানের শয়তানি কাজ ছাড়া আর কিছুই করতে পারে না মুসলমান ভালোই জানে
Total Reply(0)
Mahbubul Islam ৩১ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১৩ এএম says : 0
যুক্তরাষ্ট্র আর শান্তি কখনো একসাথে যায় না । পাকিস্তান, আফগানিস্তান ইরাক, সিরিয়া, লিবিয়ায় শান্তির নহর দেখেই তো বুঝা যায় যুক্তরাষ্ট্র কি পরিমান শান্তি এনে দিতে পারে ! শান্তি প্রক্রিয়ার নামে রাষ্ট্র এবং সম্পদ দখল যার চরিত্র । সে, আবার কী শান্তি এনে দিবে !
Total Reply(0)
Md Rabiul Islam ৩১ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১৪ এএম says : 0
সারা বিশ্বে অশান্তি ছড়িয়েছে যে এম্রিকা, তারা করে শান্তির পরিকল্পনা! এরচেয়ে বড় তামাশা পৃথিবীতে আর আছে কিনা, আমরা জানি না।
Total Reply(0)
Amir Ahmed ৩১ জানুয়ারি, ২০২০, ১:১৪ এএম says : 0
শান্তি পরিকল্পনাটা পুরোপুরি ইসরায়েলি কুকুরদের পক্ষে। এই চুক্তি বাস্তবায়িত হলে ফিলিস্তিন পুরোপুরি ইসরায়েলের গোলাম হয়ে যাবে। ফিলিস্তিনের স্বাধীনতা উদ্ধারের যে ক্ষীণ আশাটুকু আছে তাও নষ্ট হয়ে যাবে। এই চুক্তি অনুযায়ী ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন যেমন হামাস,PLO প্রভৃতির সদস্যদের সকল অস্ত্র ইসরায়েল এর কাছে জমা দিতে হবে। ফিলিস্তিনের নাম হবে নিউ প্যালেস্টাইন। এমন কি ফিলিস্তিন পরিচালিত হবে ইসরায়েলের মাধ্যমে। সুতরাং ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামীদের এই চুক্তি মানার কোন প্রশ্নই উঠে না।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন