ঢাকা, শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭, ২৪ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

জাহিদ আলী আনছারীর বদলি স্থগিত কেরুজ হ্যান্ড স্যানিটাইজার উৎপাদনে গতি

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৩১ মার্চ, ২০২০, ৪:৪৪ পিএম

চুয়াডাঙ্গার দর্শনায় দেশের একমাত্র সরকার মালিকানাধীন ডিস্ট্রিলারি প্রতিষ্ঠান ‘কেরু অ্যান্ড কোম্পানি লিমিটেড’ এ স্বস্তি ফিরেছে। কর্মকর্তা-কর্মচারিদের মাঝে ফিরে এসেছে কর্মচাঞ্চল্য। উৎপাদনেও এসেছে গতি। করোনা প্রকোপের পরিপ্রেক্ষিতে ত্বরিৎ সিদ্ধান্তে হ্যান্ড স্যানিটাইজার উৎপাদন শুরুর পরদিনই বদলি করা হয়েছিল প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাহিদ আলী আনছারীকে। তার এই আকস্মিক বদলিতে হ্যান্ড স্যানিটাইজার উৎপাদন ব্যহত হওয়ার আশংকা দেখা দেয়। বিষয়টি উল্লেখ করে সোমবার প্রতিবেদন প্রকাশ করে দৈনিক ইনকিলাব। পরে অবশ্য শিল্প সচিব মো. আব্দুল হালিমের মৌখিক নির্দেশে জাহিদ আলী আনছারীকেই প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে কাজ চালিয়ে যেতে বলেন।

শিল্পমন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, করোনা মহামারীর উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জনস্বার্থে হ্যান্ড স্যানিটাইজার উৎপাদনের উদ্যোগ নেয় রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন দেশের একমাত্র ডিস্টিলারি কেরু এন্ড কোং। ‘কেরুজ হ্যান্ড স্যানিটাইজার’ নামে এ পণ্য বাজারেও সাড়া ফেলে। বাজারের অন্যান্য হ্যান্ড স্যানিটাইজারের তুলনায় উন্নত ও কার্যকর এবং সুলভ মূল্য হওয়ায় শুরু থেকে এর চাহিদা রয়েছে। দুর্যোগকালে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের এমন উদ্যোগ প্রশংসিত হয় বিভিন্ন মহলে। কিন্তু গত ২৪ মার্চ প্রতিষ্ঠানের এমডিকে আকস্মিকভাবে বদলি করা হয় জাতীয় ইক্ষু গবেষণাগারে। এতে হ্যান্ড স্যানিটাইজার উৎপাদন ব্যহত হওয়ার আশংকা দেখা দেয়। এ নিয়ে গত ৩০ মার্চ দৈনিক ইনকিলাব ‘স্যানিটাইজার উৎপাদনে যেতেই কেরুর এমডিকে বদলি!’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে প্রতিষ্ঠানটির এমডিকে বদলির বিষয়টি ব্যাপকভাবে সমালোচিত হয়।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে শিল্পমন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা ইনকিলাবকে বলেন, এমডি জাহিদ আলী আনছারীর ব্যাক্তিগত উদ্যোগ ও প্রচেষ্টায় স্যানিটাইজার উৎপাদন প্রক্রিয়া শুরু হয়। কিন্তু এমডিকে বদলির আদেশে উৎপাদন ব্যহত হওয়ার আশংকা দেখা দেয়। কর্মকর্তা-কর্মচারিদের মাঝে হতাশা দেখা দেয়। পরে শিল্প সচিবের হস্তক্ষেপে এ পরিস্থিতির অবসান ঘটে।
শিল্পমন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, জাহিদ আলী আনছারীর চাকরির মেয়াদ শেষ হবে আগামী ১৯ এপ্রিল। ওই সময় পর্যন্ত বর্তমান পদে দায়িত্ব চালিয়ে যেতে বলেছেন শিল্প সচিব। তবে এই জরুরি পরিস্থিতিতে তাকে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দিয়ে একই পদে রেখে দেয়া হবে কি না-এ বিষয়ে সরকার এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি।
এদিকে কেরু অ্যান্ড কোং এর উৎপাদন শাখা সূত্র জানায়, অন্যান্য পণ্য উৎপাদনের পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটিতে স্যানিটাইজার উৎপাদন পূর্ণ গতিতে চলছে। মঙ্গলবার রেডক্রিসেন্টকে ২ হাজার লিটার স্পিরিট দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া আরো প্রায় ৬শ’ কার্টন (প্রতি কার্টনে ১০০ বোতল) স্যানিটাইজার এবং প্রায় ৪ হাজার লিটার স্পিরিট বিক্রি করা হয়েছে। অন্যদিকে জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট- আইইডিসিআরকে দেয়ার জন্য ১ হাজার লিটার স্পিরিট এবং ১০ কার্টন স্যানিটাইজার প্রস্তুত রয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Rownakul Ahsan ৩১ মার্চ, ২০২০, ১০:৫৩ পিএম says : 0
যারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে দোষী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনা হোক।
Total Reply(0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন