ঢাকা, বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১০ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ক্ষুদ্র ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ

এনজিওর বিরুদ্ধে মনিটরিং সেল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩ এপ্রিল, ২০২০, ১২:০২ এএম

করোনা ভাইরাসের তান্ডবে সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশে চলছে অঘোষিত লকডাউন। সরকারি ছুটি এবং মানুষের ঘরে বসে থাকায় ব্যবসা-বাণিজ্য স্থাবির হয়ে পড়েছে। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে সবকিছু বন্ধ করে বাড়িতে থাকতে বাধ্য করা হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে কিছু এনজিও কিস্তি আদায় করছে। সেটা নজরে আসায় ক্ষুদ্র ঋণ গ্রহীতাদের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি দিয়েছে মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটি।

দেশের যেসবক্ষুদ্র উদ্যোক্তা এনজিও বা ক্ষুদ্র ঋণ প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করছেন সেসব প্রতিষ্ঠান আগামী জুন পর্যন্ত কোনো কিস্তি জোর করে আদায় করতে পারবে না। তবে কেউ সেচ্ছায় দিলে নিতে পারবেন উল্লেখ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সংস্থাটি। জারি করা প্রজ্ঞাপনের নির্দেশনা সঠিকভাবে পালন হচ্ছে কিনা তা দেখভালে স¤প্রতি মনিটরিং সেলও গঠন করেছে অথরিটি।

মনিটরিং সেল গঠন সংক্রান্ত অফিস আদেশে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাস বাংলাদেশেও দ্রæত ছড়িয়ে পড়েছে। এ প্রেক্ষিতে ক্ষুদ্র ঋণ প্রতিষ্ঠানসমূহের মাঠ পর্যায়ের কর্মকাÐে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।
অথরিটি ইতিমধ্যেক্ষুদ্র ঋণ প্রতিষ্ঠানসমূহের করণীয় বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। উল্লেখিত সার্কুলার এবং উদ্ভূত পরিস্থিতিতে মাঠ পর্যায়ের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগের জন্য অথরিটি ৯ সদস্যের মনিটরিং সেল গঠন করেছে। প্রত্যেক সদস্যদের মোবাইল নম্বরও দেয়া হয়েছে। ক্ষুদ্র ঋণ সেক্টর সম্পর্কিত যে কেউ কোনো কিছু জানতে চাইলে কমিটির সদস্যেদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবে।

ঢাকার এক পরিচালককে সমন্বয়ক এবং আট বিভাগের আট উপপরিচালককে সদস্য করে এ সেল গঠন করা হয়েছে। গঠিত সেলের কার্যপরিধিতে বলা হয়েছে, অথরিটি কর্তৃক প্রকাশিত সার্কুলারের নির্দেশনার বাস্তবায়ন ও স্পষ্টীকরণ বিষয়ে ক্ষুদ্র ঋণ প্রতিষ্ঠানসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করা, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ক্ষুদ্র ঋণ প্রতিষ্ঠানের ঋণ কার্যক্রম ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতাসহ গৃহীত বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাÐ পর্যবেক্ষণ, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরের নির্দেশাবলীর সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ক্ষুদ্র ঋণ প্রতিষ্ঠান সমূহের কার্যক্রম পরিচালনা বিষয়ক পরামর্শ প্রদান ও বাস্তবায়ন পর্যবেক্ষণ করা।

কার্যপরিধিতে আরও বলা হয়, প্রয়োজন অনুযায়ী স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা, গ্রাহক স্টেকহোল্ডারদের অভিযোগ বিষয়ে ক্ষুদ্র ঋণ প্রতিষ্ঠানসম‚হের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা, বর্ণিত বিষয়াবলী বিষয়ে সমন্বয়কের মাধ্যমে অথরিটিকে অবহিত করা।

আগামী জুন পর্যন্ত নতুন করে কাউকে ঋণ খেলাপি ঘোষণা করা যাবে না উল্লেখ করে গত ২২ মার্চ এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে সনদপ্রাপ্ত সব ক্ষুদ্রঋণ প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠিয়েছে মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটি। এরপরও এ প্রজ্ঞাপনের ভুল ব্যাখা দিয়ে দেশের কিছু এলাকায়ক্ষুদ্র ঋণ গ্রহীতাকে কিস্তি পরিশোধে বাধ্য করা হচ্ছে। বিষয়টি স্পষ্ট করার জন্য গত ২৫ মার্চ আরও একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে অথরিটি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (13)
মোঃ জাহাঙ্গীর আলম ৩ এপ্রিল, ২০২০, ২:০৫ এএম says : 0
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ, কিস্তি বন্ধ করার জন্যে,না হলে মানুষ কঠিন একটি সমস্যায় পড়ে যেত।
Total Reply(0)
Khademul ৩ এপ্রিল, ২০২০, ৬:৩৬ এএম says : 0
Manonio Prodhan Montri ke Dhonbad Janai Ai Odog Ar Jnno .Kichu Kichu Pribaba Khuddoro Khuddoro Riner Jnno Anek Chintay Pre Jay . Ai Jnno Kichu Din Rin Bondho Thaka Valo Hbe Sbar Jnno
Total Reply(0)
**হতদরিদ্র দিনমজূর কহে** ৩ এপ্রিল, ২০২০, ১২:০২ পিএম says : 0
কিস্তি দিতে অপরগ হলে কিস্তি নিবেনা।কিন্তূ নতুন ঋন প্রস্তাব করলে ঋন দিবে?
Total Reply(0)
ataullah ৩ এপ্রিল, ২০২০, ৭:২০ এএম says : 0
thanks
Total Reply(0)
Monir Hosain ৩ এপ্রিল, ২০২০, ১২:২০ পিএম says : 0
আমাদের এলাকায় কিস্তি ওয়ালারা এই কথা মানে না,, তারা কিস্তি নিবেই
Total Reply(0)
মুর্খ মানব ৭ মে, ২০২০, ১০:৩৬ এএম says : 0
tnx madam
Total Reply(0)
Sk Ruhan ২৯ মে, ২০২০, ১২:৪০ এএম says : 0
এনজিওর কিস্তি আদায়ের লক্ষ্যে অভিযোগ করার জন্য মোবাইল নাম্বার প্রয়োজন,যাতে আমরা আমাদের অভিযোগ জানাতে পারি।
Total Reply(0)
Mohin uddin jaky ৩১ মে, ২০২০, ১০:৩২ এএম says : 0
Mananio Pradan mantrika donnabad.
Total Reply(0)
মোঃ মুনিউর রহমান খান ৩১ মে, ২০২০, ১২:০৩ পিএম says : 0
দেশের প্রায় সকল এনজিও সারা দেশ ব্যাপি 28/05/2020 ইং তারিখ থেকে লকডাউন শিথিল করনের আগাম বার্তা পেয়ে কিস্তি আদায়ের লক্ষে কর্মী বাহিনী নিয়ে মাঠে নেমে পরে এবং কিস্তি আদায়ের জন্য সাধানর মানুষের উপর অমানুষিক চাপ সৃষ্টি করতে থোকে। ঘরে খাবার নাই অথচ সাধারন মানুষ এনজিওর চাপে দিশে হারা হয়ে পাগনের মতো বিলাপ করছে। সাধারন দরিদ্র মানুষের কথা বিবেচনা করে যথা সময়ে সঠিক ও কার্যকরী সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য গরীব ও দুঃস্থ মানুষের পক্ষে দাড়ানোর যথাযথ কর্তৃপক্ষকে বিনীত ভাবে অনুরোধ করছি।
Total Reply(0)
মোঃ সেলিম রেজা ১ জুন, ২০২০, ১১:৪০ এএম says : 0
আমি ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার একজন নাগরিক । এনজিও গুলো বাড়ি বাড়ি গিয়ে বলছে কিস্তি নিতে আসব । এবং চাপ প্রয়োগ করছে । এর জন্য হেল্প লাইন বা হট লাইন নম্বর থাকলে জানাবেন দয়া করে
Total Reply(0)
কিস্তি কর্মী দের মানা করুন কারো বাড়ি যাতে না যায়।
Total Reply(0)
আরিফা খাতুন ২ জুন, ২০২০, ৬:০৯ পিএম says : 0
এনজিও কর্মীরা বাড়ি বাড়ি এসে খুব খারাপ ভাষায় গালিগালাজ করছে।লকডাউন খোলার সাথে সাথেই কি গরিবের ঘরে টাকা এসে হাজির হয়েছে।প্লিজ এ নিয়ে কিছু করুন।
Total Reply(0)
Apon khan ২ জুন, ২০২০, ১১:৩৯ পিএম says : 0
এগুলো মানছে না আমাদের উপর তারা চাপ দিয়ে আজকেই কিস্তি নিলো তারা,দুই মাস বসে থাকার পর আবার কিস্তি দেওয়া সম্ভব না আমাদের অভিযোগ জানাতে আপনাদের নাম্বার চাই
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন