ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

দুর্বিষহ জীবন লাখো আলেম-হাফেজের

যাকাতের অর্থ যাচ্ছে ত্রাণে বঞ্চিত মাদরাসাগুলো

শামসুল ইসলাম | প্রকাশের সময় : ১২ মে, ২০২০, ১২:০৩ এএম

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে সারা বিশ্বের অর্থনীতি থমকে গেছে। উৎপাদন, ভোগ, চাহিদা, জোগান ব্যবস্থাসহ অর্থনীতির সব উপাদান অনিশ্চিত পরিস্থিতিতে রয়েছে। ফলে দেশের কর্মক্ষম মানুষ যেমন কষ্টের শিকার হচ্ছেন, একইভাবে সারাদেশে আলেম-হাফেজ মুয়াজ্জিনসহ কওমী অঙ্গনের নিবন্ধিত-অনিবন্ধিত প্রায় চল্লিশ হাজার মাদরাসা-মক্তবের লাখ লাখ শিক্ষক-শিক্ষিকা কর্মচারী দুর্বিষহ জীবন যাপন করছেন।

খোদ রাজধানীতেই হাজার হাজার মাদরাসার ছাত্র-হাফেজ এবং মসজিদের মুয়াজ্জিনরা বাসায় বাসায় টিউশনি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। অনেকেই টিউশনির স্বল্প আয় দিয়েই সংসারের ব্যয়ভার মেটাতেন। মহামারী করোনার কারণে তাদের সব কিছুই এখন বন্ধ। প্রাণঘাতী করোনা ঝড়ে আকষ্মিকভাবে বেফাকভুক্ত এবং অন্যান্য সকল মাদরাসা-মক্তব বন্ধ হওয়ায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বেকায়দায় পড়েছেন।

রাজধানী ও পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের শত শত মসজিদভিত্তিক নূরানী মক্তব, হিফজখানা ও মহিলা মাদরাসার শিক্ষক-কর্মচারী, মসজিদের মুয়াজ্জিন ও খাদেমদের অবস্থাও অত্যন্ত শোচনীয়। আয়-উপার্জনের আর কোনো মাধ্যমও তাদের নেই। সমাজের এ আলেম-হাফেজ-শিক্ষকরা কারো কাছে হাত পাততেও পারেন না। শিক্ষক-কর্মচারীরা বাসা ভাড়া পরিশোধ করতে পারছে না এবং তারা পরিবার পরিজন নিয়ে মারাত্মক খাদ্য সঙ্কটের মুখে পড়েছেন।
করোনা মহামারী লকডাউনে গত দু’মাস যাবত এসব দ্বীনি শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন-ভাতা পরিশোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। শিক্ষক-কর্মচারীদের খাদ্য সহায়তা দেয়ার জন্য কওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাক জরুরি বৈঠক করে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট ত্রাণ কমিটি গঠন করেছে। বেফাকের মহাপরিচালক মাওলানা যোবায়ের আহমদ চৌধুরী গতকাল রোববার এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অতিসম্প্রতি কয়েকটি কওমী বোর্ডের অধীনে ৬ হাজার ৬৬৯টি মাদরাসায় ৮ কোটি ৩০ লক্ষাধিক নগদ অর্থ বরাদ্দ দিয়েছেন। যদিও এ অনুদান খুবই অপ্রতুল। ভাড়ায় চালিত বেসরকারি মাদরাসাগুলোর পরিচালকরা কয়েক মাসের মাদরাসার ভাড়া দিতে পারছেন না। চরম হতাশায় দিন কাটাচ্ছেন হাজার হাজার ফোরকানিয়া, বেসরকারি মাদরাসা শিক্ষক ও পরিচালকরা। রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর মারকাজুল আজিজ মাদরাসার প্রিন্সিপাল মুফতি ফখরুল ইসলাম গতকাল রোববার ইনকিলাবকে বলেন, করোনা মহামারীতে মাহে রমজানে কওমী নেছাবের মাদরাসাগুলোর ঘরবন্দি শিক্ষক-কর্মচারীরা ধার-দেনা করে দু’বেলার খাবার যোগাতে হিমসিম খাচ্ছেন। লোক-লজ্জায় কারো কাছে হাত পাততেও পারছেন না। তিনি বলেন, আমার মাদরাসায় ২২ জন শিক্ষক গত জানুয়ারি থেকে তাদের বেতন দিতে পারছি না। রমজানে ডোনারদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন, যাকাতের টাকায় ত্রাণ দিয়ে দিয়েছেন।

কামরাঙ্গীরচরস্থ হুসনুল কুরআন মাদরাসার পরিচালক মুফতি সুলতান মহিউদ্দিন বলেন, বিগত কয়েক বছর যাবৎ চামড়া খাতে ধসের কারণে কওমী মাদরাসাগুলো কল্পনাতীত ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। তদুপরি নতুন করে করোনাভাইরাসের এ সংক্রমণ যেন মড়ার উপর খাড়ার ঘা।

এদিকে, কুষ্টিয়া থেকে আমাদের স্টাফ রিপোর্টার জানান, জেলার ৬টি উপজেলায় শতাধিক আলেম পরিবার কর্মহীন হয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। মসজিদ-মাদরাসায় দ্বীনি প্রতিষ্ঠানে সেবার পাশাপাশি তারা বাড়তি কাজ করেও আয় করতো। যে আয় দ্বারা তাদের সংসার চলতো। সামাজিক উন্নয়ন সংগঠন হক্কানী দরবারের পরিচালক এম খালিদ হোসাইন সিপাহী বলেন, অনেকে অসহায় আলেম পরিবার আল্লাহর উপর ভরসা করে ঘরে বসে আছেন। দুনিয়াবিমুখ ওইসব আলেমরা কারো কাছে কোন করুণা ভিক্ষা করতে রাজি নয়। তাদের দিকে সকলেরই খেয়াল করা উচিত।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (11)
Md. Shamsul Hoq ১০ মে, ২০২০, ১০:৫৫ পিএম says : 0
Government and the affluents should come forward with helping hands.
Total Reply(0)
Mk Sumon ১১ মে, ২০২০, ১:০৭ এএম says : 1
মাসজিদ আল্লাহ্র ঘর | মাদ্রাসা নবীর ঘর এদের জন্য আল্লাহ্ যথেষ্ট,,,,, আমাদের একিন নাই তাই হয় না,,,,,।
Total Reply(0)
Amran Ali Sarker Ali ১১ মে, ২০২০, ১:০৯ এএম says : 0
এ মূহুর্তে ত্রান সামগ্রী বিতরণ জরুরি
Total Reply(0)
Fz Siddiki ১১ মে, ২০২০, ১:০৯ এএম says : 0
হতাশ না হয়ে আল্লাহর উপর ভরসা রাখতে হবে, ও সুকরিয়া আদায় করতে হবে ও মনে রাখতে হবে যে আমাদের জন্য ওই টুকু রিযিক বরাদ্দ আছে আমিন।এবং ঘরে থাকতে হবে,নিরাপদ থাকতে হবে।
Total Reply(0)
Shahin Kha ১১ মে, ২০২০, ১:০৯ এএম says : 1
গরিবের জন্য ত্রান না দেন, বিষ তো দিতে পারেন। এই সুযোগে বাংলাদেশ থেকে গরিব চিরতরে বিদায় নিবে। বুক ফুলিয়ে বলতে পারবেন আমার দেশে গরিব নেই।
Total Reply(0)
Faruk Ahmed ১১ মে, ২০২০, ১:১০ এএম says : 0
লকডাউন তুলে নেওয়া হোক। কারণ, এই লকডাউনে কোন উপকার হয়নি। বরং এই লকডাউনের কারনে চারিদিকে হতে সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে বা হচ্ছে।
Total Reply(0)
Al-amin Khan ১১ মে, ২০২০, ১:১১ এএম says : 0
কি আর বলবো ? আমরা যারা বেকার ।টিউশনি করে সব খরচ চালাতাম ।বাড়িতে যেতে পারলাম না । এখন তো পড়ে গেলাম মহা বিপদে না পারি বলতে না পারি চলতে । জমানো টাকা যা ছিল সব শেষ!!
Total Reply(0)
Md ZubaEid HossAin ১১ মে, ২০২০, ১:১১ এএম says : 0
আমাদের দেশে যদি, খলিফা ওমর ফারুকের মত নেতা থাকতো তবে কতোই নাহ ভালো হতো!
Total Reply(0)
Billal Hossain ১১ মে, ২০২০, ৭:২১ এএম says : 0
হাঁ,এদের দিকে সমাজের সকলের নজর দেয়া জরুরী।
Total Reply(0)
Md রনি খান ১১ মে, ২০২০, ৯:৪৭ এএম says : 0
কওমি মাদ্রাসা কিন্তু সরকারি ত্রাণ গ্রহণ করেনি তাহলে আপনি কিভাবে বললেন যে, তা অপ্রতুল?
Total Reply(0)
elu mia ১১ মে, ২০২০, ৯:৪১ পিএম says : 0
ওনাদের জন্য ত্রানের বেবস্থা করা অচিত।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন