ঢাকা, সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৯ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

সালথায় ইউপি সদস্যর বাড়িসহ ৩টি বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট

ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৪ জুলাই, ২০২০, ৭:৩৬ পিএম

ফরিদপুরের সালথায় ইউপি সদস্যর বাড়িসহ ৩টি বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করেছে রফিক বাহিনীর সদস্যরা। সোমবার (১৩ জুলাই) সন্ধ্যায় উপজেলার যদুনন্দী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজ বিশ^াসের বাড়িসহ উজিরপুর গ্রামের ৩টি বাড়িতে ভাংচুর করে। এতে ৩মহিলা আহত হয়।
ইউপি সদস্য ও ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজ বিশ^াস অভিযোগ করে বলেন, গত ৬ মে সকালে রফিক মোল্যার নেতৃত্বে তার সমর্থকরা আমার উপর হামলা ও বাড়িঘর ভাংচুর করেছিলো। সেই ঘটনায় আমি বাদী হয়ে থানায় রফিক মোল্যার বিরুদ্ধে একটি মামলা করি। আমার মামলাসহ মোট ৭টি মামলায় রফিক মোল্যাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরই জেরধরে গ্রেফতারকৃত আসামী রফিক মোল্যার ভাই নুরু মোল্যা, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হুমায়ন খা ও ইলিয়াছ কাজীর নেতৃত্বে শতাধিক লোক সোমবার সন্ধ্যায় আমার বাড়িসহ সামচেল বিশ^াস ও জাফর শেখের বাড়িতে অর্তকিতভাবে হামলা চালিয়ে ৪টি বসতঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে নিয়ে যায়। হামলা ঠেকাতে গেলে জাফর শেখের স্ত্রী আয়না বেগম (৪০), ৯০ বছর বয়সী আমার বৃদ্ধা মা সহ ৩জন আহত হয়। এরমধ্যে আয়না বেগমকে বোয়ালমারী স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।
ফাঁসির পলাতক আসামী আবুল কালাম আজাদ ওরফে বাচ্চু রাজাকারের কিরুদ্ধে দায়েরকৃত যুদ্ধাপরাধী মামলার ২নং সাক্ষী রওশন শেখ বলেন, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হুমায়ন খার সাথে হাত মিলিয়ে ইলিয়াছ কাজী মোল ও রফিক মোল্যা এলাকায় হামলা ভাংচুর ও লুটপাট একেরপর এক চালিয়ে আসছে। রফিক মোল্যা গ্রেফতার হওয়ার পরও তারা থেমে থাকেনি। আমরা সাধারণ মানুষ এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন মিয়া বলেন, সোমবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ সমর্থীত ৩টি বাড়িতে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট করেছে হুমায়ন খা, ইলিয়াছ কাজী ও রফিক বাহিনীর সদস্যরা। বাড়িতে থাকা মেয়ে-ছেলেদেরকেও তারা ছাড় দেয়নি। এমনকি সিরাজ মেম্বারের ৯০ বছর বয়সী বৃদ্ধা মাকেও মারধর করেছে ওরা। আমরা এই হামলার তীব্র নিন্দা জানাই এবং হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি।
যদুনন্দী ইউপি চেয়ারম্যান আবুল খায়ের মুন্সী বলেন, আমার পরিষদের সদস্যর বাড়িতে হামলার বিষয়টি আমি জানি না। তবে এধরনের হামলা কারো জন্যই মঙ্গল নয়।
সালথা থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেন, হামলার খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছালেই হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। হামলারকারীদের গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত আছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন