ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৮ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

অ্যাপল এখন ২ ট্রিলিয়ন ডলারের কোম্পানি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ আগস্ট, ২০২০, ১২:০১ এএম

ওয়াল স্ট্রিটে ১ ট্রিলিয়ন ডলারের মূল্যমান অর্জনের দুই বছরের মাথায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের প্রথম ২ ট্রিলিয়ন ডলারের কোম্পানি হয়ে উঠেছে প্রযুক্তি জায়ান্ট অ্যাপল। গত বুধবার ট্রেডিং শুরু হবার পর মধ্য-সকালেই শেয়ার প্রতি দর ১.৩ শতাংশ বেড়ে ৪৬৮.০৯ ডলারে উঠে এবং ২ ট্রিলিয়নের মাইলফলক স্পর্শ করে। অবশ্য দিন শেষে নাসডাক এক্সচেঞ্জে কোম্পানির শেয়ার মূল্য কিছুটা কমে দাঁড়ায় ১ দশমিক ৯৭৯-এ। এই অঙ্ক ১৯৭৬ সালের শেষ দিকে স্টিভ জবসের ব্যক্তিগত কম্পিউটার বিক্রয় করার জন্য প্রতিষ্ঠিত এ সংস্থাটির ২০১৯ সালের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মোট করের অর্ধেকেরও বেশি। প্রতিষ্ঠার ৪২ বছর পর এবং ১৯০১ সালে ইউএস স্টিল প্রথম কোম্পানি হিসেবে ১ বিলিয়নের চ‚ড়ায় ওঠার ১১৭ বছর পর অ্যাপল ২০১৮ সালে ১ ট্রিলিয়নের মাইলফলকে পৌঁছে।

অবশ্য এটিই বিশ্বের প্রথম সংস্থা নয় যেটির মূল্যমান ২ ট্রিলিয়ন ডলার। গত বছর শেয়ার বাজারে আত্মপ্রকাশের পর রাষ্ট্র-নিয়ন্ত্রিত সউদী তেল সংস্থা সউদী আরামকো সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য এই স্তরে উন্নীত হয়েছিল, তবে এটি পরে পিছনে চলে যায়। আইম্যাক থেকে আইফোন প্রস্তুতকারক এ পর্যন্ত শেষ দুটি কোয়ার্টারের প্রতিটিতে ওয়াল স্ট্রিটের প্রত্যাশা তছনছ করে করোনাভাইরাস প্রতিরোধক হিসাবে প্রমাণিত হয়েছে।

করোনা সংক্রমণের কারণে অ্যাপল চীনে তাদের আইফোন উৎপাদনকারী কারখানাগুলো বন্ধ করে দেয়, খুচরা বিক্রিও বন্ধ হয়ে যায় রিটেইল শপগুলোয়। এর পরও কোম্পানিটির শেয়ারের দাম এ বছর বৃদ্ধি পেয়েছে ৫০ শতাংশের বেশি। শেয়ারটি মার্চের নিম্নস্তরের চেয়ে বর্তমানে দ্বিগুণ বেড়ে গেছে। এটিতে প্রতিফলিত হয়েছে তার আসন্ন ৫জি আইফোনের উপর দৃঢ় আস্থা এবং আশাবাদ।

দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল জানিয়েছে, জুনের শুরু থেকে প্রতি সপ্তাহে এ কোম্পানির শেয়ার গড়ে প্রতি সপ্তাহে ৩.৫ শতাংশ অর্জন করেছে। আর জুলাই মাসে তার সা¤প্রতিক আয়ের রিপোর্টের পরে এর শেয়ারের দাম উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়ে গেছে, যেখানে সংস্থাটি রেকর্ড বিক্রয় এবং মোট ৫৯ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে - যা গত বছরের একই প্রান্তিকের তুলনায় ১১ শতাংশ বেশি।

করোনার কারণে ইন্টারনেটের প্রয়োজন বেড়েছে মানুষের। স্মার্ট ফোনের বিক্রি কমলেও অনলাইনে হচ্ছে পাঠদান, অফিস, সেমিনার-মিটিং। ব্যাপক এ চাহিদায় পোয়াবারো টেক কোম্পানিগুলোর। অ্যাপল, ফেসবুক আমাজনের প্রতিষ্ঠানগুলোর মুনাফা বাড়ছে ব্যাপক হারে।

অ্যাপলের বর্তমান প্রধান নির্বাহী হন টিম কুক দায়িত্ব পান ৯ বছর আগে। প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবসের কাছ থেকে দায়িত্ব পান তিনি। ৪৪ বছর আগে কোম্পানিটি প্রতিষ্ঠা করেন জবস। তিনি মারা যাবার সময় অ্যাপলের বাজারমূল্য ছিল ৩৫০ বিলিয়ন (৩৫ হাজার কোটি) ডলার। কোম্পানির মূল্য বাড়লেও বিগত দশকে আইফোনের মতো কোনো ‘গ্রাউন্ড ব্রেকিং’ পণ্য আনেনি অ্যাপল। কুক অবশ্য নতুন নতুন কিছু প্রযুক্তি নিয়ে ভাবছেন। দেখা যাক, সামনে কী নিয়ে আসে অ্যাপল।

তবে অ্যাপলের পেছনে পেছনে এগিয়ে আসছে আরও দুই টেক ফার্ম। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা মার্কিন সংস্থা জেফ বেজোসের অ্যামাজনের চেয়ে এখন অ্যাপলের মূলধন ৩০০ বিলিয়ন ডলার বেশি। আমাজন ও মাইক্রোসফট দুটি কোম্পানিরই বাজারমূল্য এখন ১ দশমিক ৬ ট্রিলিয়ন ডলার। আরেক প্রযুক্তি জায়ান্ট গুগলের অ্যালফাবেটের দর এখন ১ ট্রিলিয়ন ডলারের ওপরে।

অ্যাপলের পরের সিরিয়ালে থাকা কোম্পানিগুলোর মূলধন যথাক্রমে- সউদী আরামকো : ১.৮ ট্রি. ডলার, আমাজন : ১.৬৫ ট্রি, মাইক্রোসফট : ১.৬ ট্রি, অ্যালফাবেট ১.০৬ ট্রি, ফেসবুক : ৭৫৮ বিলিয়ন, আলিবাবা : ৭০১ বিলিয়ন, টেনসেন্ট ৬২৫ বিলিয়ন, বার্কশায়ার হাথাওয়ে : ৪৯৬ বিলিয়ন এবং ভিসা : ৪২৬ বিলিয়ন ডলার। সূত্র : দ্য গার্ডিয়ান, ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল ও বøুমবার্গ।

 

 

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
Neamat Ullah ২১ আগস্ট, ২০২০, ৮:৩৫ এএম says : 0
Apel is best tecq giant
Total Reply(0)
কাদির শেখ ২১ আগস্ট, ২০২০, ৮:৩৬ এএম says : 0
কিন্তু আমাদের লাভ কি?
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন