ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১৩ কার্তিক ১৪২৭, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

কারাবাখ নিয়ে এখনই সংঘাত বন্ধের আহ্বান জাতিসংঘ মহাসচিবের সংঘাতে মধ্যস্থতায় প্রস্তুত ইরান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১১:২৮ এএম

আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানকে সীমান্ত সংঘাত বন্ধ করে অবিলম্বে কারাবাখ অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সংলাপে বসার আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। গতকাল রোববারের সংঘর্ষে বেসামরিক নাগরিকদের মৃত্যুতে দুঃখ প্রকাশ করে মহাসচিব বলেছেন, খুব শিঘ্রই তিনি দু’দেশের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলবেন।

উল্লেখ্য, গতকাল রবিবার মধ্য এশিয়ার দুই বৈরী প্রতিবেশী আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার মধ্যে রবিবার যুদ্ধ ছড়িয়ে পড়েছে। বিতর্কিত নাগরনো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে এই সংঘাতের জন্য একে অপরকে দায়ী করছে উভয় দেশ। সংঘাতের কারণে বহু হতাহতের আশঙ্কা করা হচ্ছে।
এর আগে রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন বা ইইউ’র পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান কর্মকর্তা জোসেপ বোরেল ওই দুই দেশের মধ্যে সংঘাত বন্ধ করে নিঃশর্ত আলোচনায় বসার জন্য আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
এর আগে কারাবাখ অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ওই অঞ্চলে রোববার সকালে দু’দেশের সেনাবাহিনী পরস্পরের উদ্দেশ্যে ভারী গোলাবর্ষণ করে। গত কয়েক মাস ধরে সীমান্ত উত্তেজনা নিরসনে আন্তর্জাতিক মধ্যস্থতাকারীদের পক্ষ থেকে তেমন কোনো উদ্যোগ না নেয়ার পর এ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান উভয় দেশ ‘বিনা উসকানিতে আগে গোলাবর্ষণ’ করার জন্য পরস্পরকে অভিযুক্ত করেছে। এর আগে গত জুলাই মাসে দু’দেশের মধ্যে সীমান্ত সংঘর্ষে বেশ কিছু মানুষ হতাহত হয়।
১৯৮০’র দশকের শেষদিকে কারাবাখ অঞ্চলে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়। ১৯৯১ সালে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের মুহূর্তে সংঘর্ষ চূড়ান্ত আকার ধারণ করে। ১৯৯৪ সালে দু’পক্ষের মধ্যে যুদ্ধবিরতি প্রতিষ্ঠার আগ পর্যন্ত এ সংঘর্ষে ৩০,০০০ মানুষ প্রাণ হারায়। কারাবাখ অঞ্চলটি আজারবাইজানের ভেতরে হলেও ইয়েরেভান সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা নিয়ে তা নিয়ন্ত্রণ করছে আর্মেনীয় বংশোদ্ভূতরা।
এদিকে প্রতিবেশী দুই দেশ আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যকার লড়াই বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে ইরান। গতকাল রবিবার এক বিবৃতিতে ইরানি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাঈদ খাতিবজাদেহ জানিয়েছেন, আলোচনা ও যুদ্ধবিরতির জন্য মধ্যস্থতা করতে প্রস্তুত আছে তেহরান। সূত্র : রয়টার্স

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন