ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

এমসি কলেজের ঘটনা ঢাকতেই বস্তাপঁচা নাটক মানববন্ধনে রিজভী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৪ অক্টোবর, ২০২০, ১২:১৮ এএম

নারীর সম্ভ্রমহানীকে ছাত্রলীগ-যুবলীগ শিল্পে পরিণত করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, যুবলীগ-ছাত্রলীগ এবং আওয়ামী লীগের নেতারা নারীর সম্ভ্রমহানীকে শিল্প মনে করছে। শেখ হাসিনা মুখ রক্ষা করবেন কিভাবে? চারিদিকে রক্তপাত ঘটিয়ে লাশের পর লাশ সাজিয়ে আপনি ক্ষমতায় থাকবেন?

গতকাল নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ইতিহাস বিকৃত করে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান এবং দলটির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নাটক বানানোর প্রতিবাদে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।
রিজভী বলেন, যেখানে নারীর সম্ভ্রমহানি সেখানেই ছাত্রলীগ, যেখানে নারীর উপর নির্যাতন সেখানে ছাত্রলীগ না হয় যুবলীগের নেতা-কর্মী। এমসি কলেজ, পাহাড়ে, সম্প্রতি মিরপুরে এক গৃহকর্মীকে সম্ভ্রমহানি করা হয়েছে। কে করেছে? ছাত্রলীগ। চারিদিকে কলঙ্কের বোঝা। চারিদিকে মানুষ ছি ছি ছি করছে। এই সমস্ত ঘটনাকে ঢাকার জন্যই তারা তাদের অনুগত নাট্যকারকে দিয়ে চটি বস্তাপঁচা নাটক রচনা করেছে। যাতে এমসি কলেজের সেই লোমহর্ষকমূলক নারীর সম্ভ্রমহানির ঘটনা ঢাকা পড়ে যায়।
সীমান্ত হত্যার প্রতিবাদ জানিয়ে রুহুল কবির রিজভী বলেন, পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে রক্তাক্ত সীমান্ত হচ্ছে বাংলাদেশ ভারত সীমান্ত। আপনি (প্রধানমন্ত্রী) একটাও কথা বলতে পারেন না। প্রতি দুই দিনে একটা করে মানুষ সেখানে খুন হচ্ছে বিএসএফের হাতে। আপনার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন ভারতের সাথে আমাদের স্বামী স্ত্রীর সম্পর্ক। আবার নাকি রক্তের সম্পর্ক। রিজভী বলেন, আপনার সন্তান, মা-বোন প্রত্যেকে নিরাপত্তাহীনতায় থাকবে। এদেরকে ক্ষমতায় থেকে নামাতে হবে গলায় গামছা দিয়ে না হলে কারও কোনো নিরাপত্তা থাকবে না।
বিএনপির এই নেতা বলেন, আমি বারবার বলছি এই সরকার আর বেশি দিন নেই। চারিদিক থেকে কেনো জানি এই সরকারের পতনের আওয়াজ পাওয়া যাচ্ছে। কারণ এই সরকার তো নিজেই একটা নাটকবাজ সরকার। প্রধানমন্ত্রী যখন কোনো ঘটনায় ইনস্ট্যান্ট কান্নাকাটি করে তখন মানুষ মনে করে এই কান্না হচ্ছে একটা নাটক।
নাট্যকারদের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, কিন্তু ওরা জানেনা বাংলার মাটি চৈত্র মাসে কঠিন রূপ ধারণ করে। জনগণ যখন এই মাটি আপনাদের দিকে নিক্ষিপ্ত করবে তখন আপনারা বাংলাদেশের কোন জায়গায় আশ্রয় পাবেন না।
আয়োজক সংগঠনের সভাপতি সাইফুল আলম নীরবের সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়নের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোর্তাজুল করিম বাদরু, মহানগর দক্ষিণের সভাপতি রফিকুল আলম মজনু, দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহিন প্রমুখ বক্তব্য দেন। উপস্থিত ছিলেন স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ সাধারণ সম্পাদক কাজী ইফতেখায়রুজ্জামান শিমুল।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন