ঢাকা রোববার, ১৭ জানুয়ারি ২০২১, ০৩ মাঘ ১৪২৭, ০২ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

আরব আমিরাতের কাছে অস্ত্র বিক্রি বন্ধে যুক্তরাষ্ট্রেকে চিঠি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৪ ডিসেম্বর, ২০২০, ১২:০৮ এএম

সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে ২৩ বিলিয়ন ডলারের সামরিক সরঞ্জাম বিক্রি বন্ধের জন্য ১৯টি অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ ও মানবাধিকার সংগঠন মার্কিন কংগ্রেসকে চিঠি দিয়েছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর প্রকাশ করেছে। এটি উপসাগরীয় রাজ্যের বিরুদ্ধে সুশীল সমাজের অন্যতম বৃহত্তম প্রচারণা।
স্বাক্ষরকারীদের মধ্যে নিহত সাংবাদিক জামাল খাশোগি প্রতিষ্ঠিত ডেমোক্রেসি ফর আরব ওয়ার্ল্ড নাও (ডিএডব্লিউএন) এর মতো গণতন্ত্রপন্থী বেশ কয়েকটি সংগঠন অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। তারা সংযুক্ত আরব আমিরাতের মানবাধিকার লঙ্ঘন, কথিত যুদ্ধাপরাধ এবং মধ্যপ্রাচ্যের অস্থিতিশীলতার কথা উল্লেখ করে যুক্তি দিয়েছে যে, আবুধাবিতে অস্ত্র বিক্রি মার্কিন আইন লঙ্ঘন।
দ্য প্রজেক্ট অন মিডলইস্ট ডেমোক্রেসি’র অ্যাডভোকেসি অফিসার শেঠ বাইদার বলেছিলেন, ‘আশা করি এসব বিক্রি পুরোপুরি বন্ধ করা হবে’। ‘তবে যদি স্বল্পমেয়াদে এটি সম্ভব না হয়, এটি আগত বাইডেন প্রশাসনের কাছে একটি গুরুত্বপূর্ণ সঙ্কেত প্রেরণ করে যে, এখানে বিভিন্ন ধরনের সংগঠন রয়েছে যারা এ অস্ত্র সরবরাহের বিরোধিতা করছে’।
ট্রাম্প প্রশাসন গত মাসে শুরুর দিকে আবুধাবিতে ২৩ বিলিয়ন ডলারের বেশি মূল্যের এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান এবং সশস্ত্র ড্রোনসহ উন্নত অস্ত্র বিক্রির অনুমোদন দিয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইসরাইলের মধ্যে সেপ্টেম্বরে মার্কিন মধ্যস্থতায় স্বাভাবিককরণ চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার পর এ বিক্রয় অনুমোদিত হয়েছিল।
আইনজীবিগণ এবং পররাষ্ট্র দফতরের কাছে অধিকার গোষ্ঠীগুলোর কাছ থেকে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, পরিকল্পিত অস্ত্র বিক্রির ফলে বেসামরিক লোকদের ক্ষতি অব্যাহত থাকবে এবং ইয়েমেন ও লিবিয়ায় মানবিক সঙ্কট আরও বাড়বে।
‘ইয়েমেনে সউদী ও আমিরাতের নেতৃত্বাধীন কোয়ালিশনের বিমান হামলা সংখ্যাগরিষ্ঠ বেসামরিক হতাহতের পাশাপাশি স্কুল, হাসপাতাল, বাজার ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় অবকাঠামো ও পরিষেবা ধ্বংসের ফলে ব্যাপক বাস্তুচ্যুতি, অনাহার এবং অসুস্থতার জন্য দায়ী’। ‘এর মধ্যে অনেকগুলি [ঘটনা] আন্তর্জাতিক মানবিক আইন (আইএইচএল) এর সম্ভবত লঙ্ঘন বলে উল্লেখ করা হয়েছে, সম্ভাব্যভাবে মার্কিন কর্মকর্তাদের যুদ্ধাপরাধের পক্ষে ও সহায়তা দেয়ার জন্য অপরাধমূলক দায়বদ্ধতার মুখোমুখি করা হয়েছে’।
চিঠিটি লিবিয়ায় সংযুক্ত আরব আমিরাতের অস্থিতিশীল ভ‚মিকার দিকেও দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। ‘সংযুক্ত আরব আমিরাত যুদ্ধাপরাধী খলিফা হাফতার এবং তার লিবিয়া আরব সশস্ত্র বাহিনীকে (এলএএএফ) একটি জাতিসংঘের অস্ত্র নিষেধাজ্ঞার সরাসরি লঙ্ঘন করার জন্য অস্ত্র ও সামরিক সহায়তা দিয়েছে এবং মার্কিন নীতি বলেছে, স্বাক্ষরকারীরা যুক্তি দিয়েছে যে ‘দ্ব›দ্ব দীর্ঘায়িত হওয়ার জন্য আবু ধাবি দায়বদ্ধ ছিল।
সংযুক্ত আরব আমিরাত পরিচালিত গোপন কারাগার এবং আল-কায়েদাভিত্তিক যোদ্ধা ও ইয়েমেনের অন্যান্য মিলিশিয়াদের কাছে ইউএইর মার্কিন সরঞ্জাম স্থানান্তর করার বিষয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। অধিকার গোষ্ঠীগুলো বলছে, এটি মার্কিন সর্বশেষ কার্যকর চুক্তির একটি ‘স্পষ্ট লঙ্ঘন’। সূত্র : মিডল ইস্ট মনিটর।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
সাদ্দাম ৩ ডিসেম্বর, ২০২০, ২:৫৮ এএম says : 0
আরব আমিরাতের কাছে অস্ত্র বিক্রি করা ঠিক হবে না
Total Reply(0)
মাহমুদ ৩ ডিসেম্বর, ২০২০, ২:৫৯ এএম says : 0
মনে হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র বিষয়টিকে আমলে নিবে না
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন