রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯, ২৫ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

শাহজালালে ১২ বিমান বিক্রি হবে কেজি দরে!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ জুলাই, ২০২১, ২:৩৮ পিএম | আপডেট : ৩:১৬ পিএম, ১২ জুলাই, ২০২১

ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে ১২টি বিমান। এসব পরিত্যক্ত বিমানের কারণে কার্গোর মাল ওঠানামায় সমস্যা হচ্ছে। তাই জায়গা খালি করতে এবার বিমানগুলো নিলামে তুলবে বেবিচক। আর নিলামে কাক্সিক্ষত মূল্য না পেলে কেজি দরে বিক্রির কথাও জানায় সংস্থাটি।
আজ সোমবার (১২ জুলাই) বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) সূত্র সংবাদমাধ্যমকে জানায়, ইতোমধ্যে নিলামের প্রক্রিয়া ঠিক করতে কমিটি গঠন করা হয়েছে। এখন নিলাম আয়োজনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণার পালা। তবে, কেউ যদি নিলামে বিমানগুলো কিনতে আগ্রহী না হয় তাহলে ভাঙারি হিসেবে কেজি দরে বিক্রি করা হবে। শিগগিরই সে সংক্রান্ত কর্মপদ্ধতির বিষয়ে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তিও দেওয়া হবে।
জানা গেছে, বিমানবন্দর সম্প্রসারণ কাজের অংশ হিসেবে তৃতীয় টার্মিনালের কাজ চলছে। ফলে বিমানবন্দরের স্থান সংকটে এসব উড়োজাহাজ সরানো ছাড়া কোন উপায় নেই। যার অংশ হিসেবে বন্দর কর্তৃপক্ষ এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
বিমানবন্দর সূত্র জানায়, বর্তমানে বিমানবন্দরে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের ৮টি, রিজেন্ট এয়ারওয়েজের দুটি, জিএমজি এয়ারলাইন্স ও অ্যাভিয়েনা এয়ারলাইন্সের একটি করে বিমান দীর্ঘদিন ধরে পড়ে আছে। এর মধ্যে ১০টি বিমানই ৮ বছর ধরে কার্গো ভিলেজের জায়গা দখল করে আছে।
বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক তৌহিদ-উল আহসান সংবাদমাধ্যমকে জানান, এই বিমানগুলো দীর্ঘদিন ধরে কার্গোর জায়গা দখল করে বেবিচকের রাজস্ব আদায়ের অন্যান্য পথ বন্ধ করে রেখেছে। অন্যদিকে তাদের কাছে পাওনা টাকাও পরিশোধ করছে না। তাই কার্গোর আয় বাড়াতে বিমানগুলো নিলামের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
তিনি জানান, এয়ারলাইন্সগুলোকে বেশ কয়েকবার অর্থ পরিশোধ করতে অথবা বিমানগুলো সরিয়ে নিতে চিঠি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তারা কোনো সাড়া দেয়নি। তাই সিভিল অ্যাভিয়েশনের নিয়ম অনুযায়ী বিমানগুলো বাজেয়াপ্ত করে নিলাম করা হবে বলেও জানান তৌহিদ-উল আহসান।
িেবচকের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে তারা ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ থেকে ১৯০ কোটি, জিএমজি এয়ারলাইন্স থেকে ৩৬০ কোটি এবং রিজেন্ট থেকে ২০০ কোটি টাকা পাবে। এই টাকা আদায়ের জন্য তারা প্লেনগুলো নিলামে তুলতে চায়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (15)
Mohammad Afjal ১২ জুলাই, ২০২১, ৩:৩৫ পিএম says : 0
যারা ভ্যানে করে ভাংগা চুড়া মাল কিনে তাদের জন্য বিমান কেনার বিশেষ সুযোগ
Total Reply(0)
Abdullah Al Galib ১২ জুলাই, ২০২১, ৩:৪৩ পিএম says : 0
বাংলার জনগণের কাছে খুচরা বিক্রি করে দেয়া হোক। সবাই শো পিস হিসেবে নিতো তাইলে।
Total Reply(0)
Masum Islam ১২ জুলাই, ২০২১, ৩:৪৪ পিএম says : 0
কেজি কত করে বিক্রি হবে, আমি ৫ কেজি কিনে রাখবো।
Total Reply(0)
SumOn MohammAd ১২ জুলাই, ২০২১, ৩:৪৭ পিএম says : 0
আমাকে লেজের অংশ ৫ কেজি দিলেই হবে- যাতে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম জানতে পারে তাদের পূর্ব পুরুষরা কেজি দরে বিমান কিনতো- কিনেছিলো
Total Reply(0)
Rejaul Haque ১২ জুলাই, ২০২১, ৩:৪৭ পিএম says : 0
একটা কিনবো নাকি ভাবছি।
Total Reply(0)
Mithun ১২ জুলাই, ২০২১, ৬:২৪ পিএম says : 0
মহৎ উদ্বেগ ????
Total Reply(0)
Abu Hena ১২ জুলাই, ২০২১, ৭:১৯ পিএম says : 0
কেজি কত করে দিবেন? বিমানের কল্লাটা আমি আমার ছেলের জন্য কিনতে চাই।
Total Reply(0)
জমির উদ্দিন আব্দুল্লাহ ১২ জুলাই, ২০২১, ৭:৪২ পিএম says : 0
আমি কিনমু
Total Reply(0)
Samiul Alam ১২ জুলাই, ২০২১, ৮:২৮ পিএম says : 0
ককপিটের অংশ টুকু আমি কিনতে চাই কেজি দরে
Total Reply(0)
Madhurima Khondoker ১২ জুলাই, ২০২১, ৯:২০ পিএম says : 0
বিক্রি করা হোক, তবে দূর্নীতিমুক্ত ভাবে
Total Reply(0)
অয়েজ ১২ জুলাই, ২০২১, ১১:০৪ পিএম says : 0
আমার একটা দরজা লাগবে কয়টাকা কেজি?
Total Reply(0)
আমি এই বিমানটা ক্রয় করতে চাই আমার একটি মহৎ উদ্দেশ্য আছে উদ্দেশ্যটা হল গ্রামের অনেক গরিব মানুষ আছে বিমানের কখনো উড়তে পারে না দেখতেও পারেনা আমি এই বিমানটা ক্রয় করে গ্রামের গরীব দুস্থ মানুষদের দেখাবো এবং এই বিমানে করে তাদের ভিতরে ঢুকাবো। তাদের মনের ইচ্ছা পূরণ করব বিমানের ভিতরে ঢুকানোর পর তাদেরকে হালকা চা-নাস্তা খাওয়াবো আমাদের গ্রামের আশেপাশের লোক এরা গরীব ও সাধারণ মানুষেরা বিমানে উঠতে পারে না তাই তাদের জন্য এই ব্যবস্থা যদি কিত পক্ষের সৎ ইচ্ছা থাকে
Total Reply(0)
Ziauddin Ahmed ১৪ জুলাই, ২০২১, ৭:১৩ এএম says : 0
এই বিমানগুলি বিভিন্ন স্থানে পাঠিয়ে হোটেলে পরিণত করলে ভালো ব্যবসা হবে,বিদেশে তা দেখা যায়।
Total Reply(0)
ইউশা ১৬ জুলাই, ২০২১, ১০:৫৬ পিএম says : 0
আহা যদি একটা কিনতে পারতাম
Total Reply(0)
মোঃ রমজান আলী ১৮ জুলাই, ২০২১, ৩:১০ পিএম says : 0
সরকারি যাদুঘরে প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা যেতে পারে। অথবা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে প্রদর্শনীর শর্তে বিক্রি করার ব্যবস্থা করা যায়।
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps