বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৪ কার্তিক ১৪২৮, ১২ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

তালেবানের সঙ্গে সংলাপ উদ্যোগ ইমরানের

অন্তর্ভুক্তিমূলক আফগান সরকার

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০০ এএম

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান আফগানিস্তানে একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠনের জন্য তালেবানদের সাথে একটি সংলাপ শুরু করেছেন যাতে তাজিক, হাজারা এবং উজবেক অন্তর্ভুক্ত থাকবে। প্রধানমন্ত্রী তার অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডেল থেকে এ ঘোষণা দেন এবং বলেন, তিনি তাজিকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইমামালি রহমনের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা এবং আফগানিস্তান সীমান্তবর্তী অন্যান্য দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের সঙ্গে বৈঠকের পর এ পদক্ষেপ নিয়েছেন।
তিনি আরও লিখেছেন, ‘৪০ বছরের সংঘর্ষের পরে এ অন্তর্ভুক্তি শান্তি এবং একটি স্থিতিশীল আফগানিস্তান নিশ্চিত করবে’, এটি কেবল আফগানিস্তান নয়, পুরো অঞ্চলের স্বার্থে হবে।

রাশিয়া টুডে-কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন যে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের স্বীকৃতি পেতে কাবুলের বর্তমান কর্তৃপক্ষ কী করতে পারে তা নির্ধারণের জন্য পাকিস্তান আফগানিস্তানের প্রতিবেশীদের সঙ্গে কাজ করছে। প্রধানমন্ত্রী ইমরানের মতে, আফগানিস্তানে তালেবান সরকারের স্বীকৃতি একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হবে।

আফগানিস্তান একটি গুরুত্বপূর্ণ সময় পার করছে। এটি হয় চার দশকের যুদ্ধের পর স্থিতিশীলতার দিকে অগ্রসর হবে অথবা এটি ভুল দিকে যাবে এবং এর ফলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হবে এবং একটি বিশাল মানবিক ও শরণার্থী সঙ্কট দেশের সব প্রতিবেশীকে প্রভাবিত করবে।

একটি প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘যদি মনে করা হয় যে, ইসলামাবাদ তালেবানকে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সাহায্য করেছে, তার মানে হবে পাকিস্তান আমেরিকা এবং ইউরোপের সব দেশের চেয়ে শক্তিশালী এবং ৬০-৭০ হাজার মিলিশিয়া নিয়ে হালকা অস্ত্রধারী পাকিস্তান তিন লাখের সেনাবাহিনীকে সফলভাবে পরাজিত করেছে’।

প্রধানমন্ত্রী আরো উল্লেখ করেন যে, যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র হওয়া সত্ত্বেও পাকিস্তানের ওপর ৮০০টি ড্রোন হামলা চালানো হয়েছে। ইমরানের মতে, পাকিস্তানের দৃষ্টিকোণ থেকে, আফগান মাটি থেকে সন্ত্রাসবাদের আশঙ্কা ছিল, কারণ তিনটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী পাকিস্তানে সন্ত্রাসী হামলা চালানোর জন্য দেশের ভূখণ্ড ব্যবহার করছে।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান বলেছেন, আফগানিস্তানে পাকিস্তানের সম্পৃক্ততার ধারণাটি ছিল দেশের বিরুদ্ধে একটি প্রচারণা, যা আব্দুল গনি নেতৃত্বাধীন শাসনের অক্ষমতা, দুর্নীতি এবং শাসনের অভাব থেকে মনোযোগ সরানোর জন্য শুরু হয়েছিল। তিনি বলেন, এ প্রচারের দ্বিতীয় উপাদান ছিল ভারত, যা আফগানিস্তানে বিপুল বিনিয়োগ করেছে।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান যোগ করেন যে, আফগান সেনাবাহিনী কেন প্রতিরোধের প্রস্তাব না দিয়ে অস্ত্র সমর্পণ করেছিল তা বোঝার জন্য একটি বিস্তৃত বিশ্লেষণ করা উচিত।

পাক-রাশিয়া সম্পর্কের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারা উন্নতি করছে এবং ইসলামাবাদ মস্কোর সঙ্গে সম্পর্ক আরো বাড়াতে চায়। সূত্র : এক্সপ্রেস ট্রিবিউন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন