মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০২ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

মনোনয়ন ও পদ বাণিজ্য নিয়ে বগুড়ার রাজনীতির অঙ্গনে তোলপাড়

বগুড়া ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৬ অক্টোবর, ২০২১, ৪:২০ পিএম

বগুড়ায় বিভিন্ন দলের মধ্যে কমিটি গঠনে বিধি লঙ্ঘন ও পদ এবং মনোনয়ন বানিজ্যের খোলাখুলি অভিযোগ এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখালেখি,প্রেস কনফারেন্স ও রাস্তায় বিক্ষোভ এবং মানববন্ধন কর্মসুচিতে রুপ নিয়েছে। ভুক্তভোগিরা বলছেন,দলের উচ্চ পর্যায়ে যোগাযোগ অভিযোগ করেও লাভ না হওয়ায় বিক্ষুদ্ধরা এসব করছেন।

এরকম কয়েকটি ঘটনার মধ্যে গত ৬ অক্টোবর অনুষ্ঠিত বগুড়া জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন ও নির্বাচন নিয়ে প্রথমে সোচ্চার হোন দলের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সাধারন সম্পাদক সুরাইয়া নিগার সুলতানা ডরোথি। তিনি মহিলা লীগের নতুন কমিটির সাধারণ সম্পাদক পিংকি সরকারের নাম ঘোষনায় বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, পিংকিতো মহিলা আওয়ামীলীগের সদস্যই ছিলেননা। তারপরও কিভাবে কাউন্সিলরদের মতামত ছাড়াই সাধারন সম্পাদক হিসেবে তার নাম ঘোষনা করা হলো ?

ডরোথি এটুকু বলেই তিনি থেমে থাকেননি। এই ঘোষনাকে চ্যালেঞ্জ করে বগুড়ার প্রথম জেলা যুগ্ম জজ আদালতে মামলা করেছেন। ফেসবুকে ভিডিও বার্তা ছেড়ে দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার ।

মহিলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ও নির্বাচন পরবর্তি ঘটনা প্রবাহ এখানেই থেমে থাকেনি , দলের ডাকসাঁইটে দুই নেত্রী স্বপ্না চৌধুরী এবং শামীমা আখতার খুশি ও তার সমর্থকরা বগুড়া শহরের প্রাণকেন্দ্র সাতমাথায় মানব বন্ধন ও মিছিল করেও মহিলা আওয়ামীলীগের বর্তমান কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে তৃনমুলের নতুন কমিটি ঘোষনার দাবি জানিয়েছেন । অন্যথায় বৃহত্তর আন্দোলনের হুমকি দিয়ে রেখেছেন।
আওয়ামীলীগের যুব সংগঠন যুবলীগ এবং ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের সম্মেলনের পরও দীর্ঘদিন পরও পুর্নাঙ্গ কমিটি গঠন না করা সেই সাথে তিন বছরের মেয়াদ পুর্তির পরও নতুন করে সম্মেলন না করা নিয়েও বিক্ষুদ্ধরা মুখ খুলতে শুরু করেছেন ।

একই ধরনের অসন্তোষ ক্ষোভ ও বিক্ষোভ বিরোধি দল বিএনপির মধ্যেও বিরাজমান, সম্প্রতি একতরফাভাবে সম্মেলনের নামে প্রহসনের মাধ্যমে বগুড়া সদর উপজেলা বিএনপির কমিটি গঠনের অভিযোগে দলের দুই নেতা মাহিদুল ইসলাম গফুর এবং আমিরুল ইসলাম দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, বিএনপি মহাসচিব এবং দলের জেলা আহŸায়ক জিএম সিরাজ এমপি বরাবরে একটি পত্র দেন । ফলে জেলা আহ্বায়ক হাই কমান্ডের ডিরেকশান মোতাবেক ওই সম্মেলন স্থগিত ঘোষনা করে বিজ্ঞতার পরিচয় দেন। অন্যথায় এই ঘটনাকে ঘিরে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা ছিল বলে দলের নেতা কর্মিরা অভিমত দেন।
এই ঘটনায় উৎসাহিত হয়ে বগুড়ার শেরপুর উপজেলার খানপুর ইউনিয়ন বিএনপির আসন্ন সম্মেলনের সভাপতি প্রার্থী আব্দুস সালাম এবং সাধারন সম্পাদক প্রার্থী আল মাহমুদ বায়েজিদ জেলা বিএনপির আহ‌বায়ক বরাবরে একটি অভিযোগ দেন। অভিযোগে বলা হয় , খানপুর ইউনিয়ন বিএনপির সম্মেলনের আগেই সম্প্রতি তাদের শেরপুরের ফুড ভিলেজ নামক হাইওয়ে রেঁস্তরায় তাদের ডেকে পাঠানো হয় সেখানে গেলে শেরপুর উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য পিয়ার হোসেন এবং স্বাধীন কুমার কুন্ডু সহ একাধিক ব্যক্তি তাদের নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য অনুরোধ করেন। তাতে কাজ না হওয়ায় তারা হুমকি দিয়ে জানান, খানপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি করা হবে তবিরবর রহমান , সাাধারন সম্পাদক মোঃ হানিফ এবং সাংগঠনিক সম্পাদক করা হবে দুলাল হোসেনকে ।
গত ২৮ সেপ্টেম্বর বগুড়া জেলা বিএনপির আহ্বায়ক বরাবরে এই অবিযোগ দেওয়ার পর থেকে খানপুর ইউনিয়ন বিএনপির সম্মেলন ও নির্বাচনী কার্যক্রম আর অগ্রসর হয়নি বলে ১৬ অক্টোবর ইনকিলাবকে কনফার্ম করেন দুই অভিযোগকারি আব্দুস সালাম ও আর মাহমুদ বায়েজিদ।

এদিকে গাবতলী উপজেলা ছাত্রদলের বিক্ষুদ্ধ একদল নেতাকর্মি গত ১২ অক্টোবর এক সংবাদ সম্মেলনে গাবতলী সহ বিভিন্ন ইউনিটের কমিটি গঠনে বগুড়া জেলা ছাত্রদলের সভাপতি হাসান এবং সাধারন সম্পাদক রিগ্যানের বিরুদ্ধে খোলাখুলি পদ বানিজ্যের অভিযোগ করেন । এরপর প্রতিদিনই বিক্ষুদ্ধরা ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশ করে চলেছেন । বেশ কয়েকবার এনিয়ে হাসান ও রিগ্যানের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ও হয়েছে ।
এদিকে আসন্ন ইউনিয়ন ও পৌর নির্বাচনে মনোনয়ন বানিজ্যের অভিযোগ নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের গাবতলী, সোনাতলা এবং শিবগঞ্জে তোলপাড় হচ্ছে বলে জানাগেছে ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন