বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৬ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

স্বামীর হাত-পা টুকরো টুকরো করে স্ত্রী রাখেন রান্নার পাতিলে

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ১:২৪ পিএম | আপডেট : ২:৩২ পিএম, ২৪ অক্টোবর, ২০২১

শনিবার রাতে ওই বাড়িতে তার স্ত্রীর সঙ্গে পারিবারিক কলহের সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে রাতে টিটব ঘুমিয়ে পরে। তার স্ত্রী রাতের ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে ঘুমন্ত স্বামীকে কুপিয়ে হত্যা করেন। হত্যার পর টিটবের হাত-পা টুকরো টুকরো করে রান্না করার পাতিলে রাখেন তিনি।
জানা যায়, ভোলায় পারিবারিক কলহের জেরে দ্বিতীয় স্ত্রীর হাতে স্বামী ফরহাদ হোসেন টিটব মুন্সী (৪৫) নামের এক ব্যক্তি খুন হয়েছেন। রোববার (২৪ অক্টোবর) রাতে সদর উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের রুহিতা গ্রামের পন্ডিতের পোল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত টিটব মুন্সী উওর দিঘলদী ইউনিয়ন ৭ নম্বর ওয়ার্ড ঝড়ুমুন্সী বাড়ির বেলায়েত হোসেন মুন্সীর ছেলে। টিটব মুন্সীর দ্বিতীয় স্ত্রী নুরনাহার বেগমকে রক্তাক্ত দাসহ গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ভোলা সদর মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) কবির হোসেন।ৎ

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিনের মতো টিটব শনিবার রাতে আলীনগরে তার দ্বিতীয় স্ত্রী নুরনাহার বেগমের বাড়িতে যান। সকালে স্থানীয়রা তার স্ত্রী নুরনাহারকে ঘরের সামনে রক্তাক্ত দা হাতে নিয়ে বসে থাকতে দেখতে পান। পরে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এর মাধ্যমে থানায় খবর দেওয়া হয়।

স্থানীয়রা আরও জানায়, পুলিশ ঘরের ভেতর মেঝে থেকে টিটবের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার এবং ঘাতক স্ত্রী নুরনাহারকে গ্রেফতার করেন। টিটব মুন্সী ও তার স্ত্রী নুরনাহারের প্রায় সময়ই ঝগড়া ও মারামারি হতো। টিটব মাদক সেবন ও বিক্রির সঙ্গে জড়িত ছিল।

ভোলা সদর মডেল থানার এসআই কবির হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, টিটব মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিল। তার নামে থানায় একাধিক মাদক, হত্যা ও ডাকাতি মামলা রয়েছে। তাকে তার দ্বিতীয় স্ত্রী অনেকবার পুলিশে ধরিয়েও দিয়েছিল।

এসআই কবির হোসেন জানান, আমরা লাশের সুরতহাল করে ময়নাতদন্তের জন্য ভোলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেছি।

উল্লেখ্য, টিটব মুন্সীর প্রথম স্ত্রীর মাহামুদা বেগম তুহিনের সংসারে এক মেয়ে ও দুই ছেলে এবং অপর দিকে দ্বিতীয় স্ত্রী নুরনাহার বেগমের সংসারে ৮ বছরের এক ছেলেসন্তান রয়েছে। এদিকে স্ত্রীর হাতে স্বামী খুনের ঘটনায় পুরো এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (17)
আশিক ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ৯:২৬ পিএম says : 0
একদম ঠিক কাজ করেছে। মাদক সেবিরা বউকে কিরকম জালায় সেটা আমি নিজ চোখে দেখেছি।
Total Reply(0)
Himadree Hossain Abir ২৫ অক্টোবর, ২০২১, ১:২২ পিএম says : 0
কর্মের ফলও বটে
Total Reply(0)
হাফেজ জুনাইদ ২৫ অক্টোবর, ২০২১, ৩:১০ পিএম says : 0
একদম কামের কাম করছে। স্যলুট জানায় বুনটাকে।
Total Reply(0)
নূরুল ইসলাম,বাগমারা, রাজশাহী ২৭ অক্টোবর, ২০২১, ৬:১২ পিএম says : 0
আরো বেশি বেশি বিয়ে কর।
Total Reply(0)
করিম ২৫ অক্টোবর, ২০২১, ৫:০৫ পিএম says : 0
কিন্তু দেখবেন, এই সুস্পষ্ট অপরাধটির বিচার করতেও ব্রিটিশ আইনে বছরের পর বছর লেগে যাবে
Total Reply(0)
Dipu ২৫ অক্টোবর, ২০২১, ১২:১৩ এএম says : 0
দুঃখজনক ঘটনা,
Total Reply(0)
বদরুল ইসলাম ২৫ অক্টোবর, ২০২১, ২:২২ এএম says : 0
স্ত্রী যদি পবিত্র এবং ইমানদার হয় তাহলে তার স্বামী অপরাধ সংগঠিত করুক তা কখনো চাইবে না। দেয়ালে পিট লেগে গেলে কি আর করা। আইন হাতে তুলে নিয়ে অন্যায় করেছে। সাজাটা যেনো কম হয়।
Total Reply(0)
মিনহাজ উদ্দিন ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ৫:৪৮ পিএম says : 0
ধৈর্যের বাধ ভেঙে গেলে যা হয়,তা হয়েছে। নারীরা এতো অমানুষ হয়না। পরিস্হিতি তাকে বাধ্য করেছে হয়তো। তবে আইম হাতে তুলে নেয়া ঠিক হয়নি।
Total Reply(0)
shishir ২৬ অক্টোবর, ২০২১, ১:০৪ পিএম says : 0
আহারে দেশটা বুঝি মাদক কারবারীদের হাতে ধ্বংশ হয়ে গেলো...............!!!!!!!!!!!!
Total Reply(0)
Nasir ২৬ অক্টোবর, ২০২১, ১০:৫৬ এএম says : 0
এভাবে হত্যা করা ঠিক হয়নি। আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়া মারাত্মক ভুল। স্বামী যেহেতু মাদক সেবনকারী ও মাদক ব্যবসায়ী, চেষ্টা করার পরেও যদি সে ভাল পথে ফিরে না আসে, তাহলে তাকে (স্বামী) কে ডিফোর্স দেওয়াই ‍উত্তম পন্থা। আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়া ঠিক নয়। এতে রাষ্ট্রের জন্য ক্ষতি।
Total Reply(0)
jack ali ২৫ অক্টোবর, ২০২১, ১২:৪২ পিএম says : 0
দেশে আল্লাহর আইন থাকলে তাহলে এইসব মাদক কখনোই থাকত না তার স্ত্রী তাকে হত্যা করত না
Total Reply(0)
ইবনে নজরুল ২৮ অক্টোবর, ২০২১, ১২:৫৫ পিএম says : 0
বাপ রে....!!! ????????
Total Reply(0)
Md Mahadi Hasan Liton ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ৪:২৪ পিএম says : 0
কি সাংঘাতিক
Total Reply(0)
রিহান অরিত্র ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ৪:২১ পিএম says : 0
কি নিষ্ঠুর মহিলা রে ভাই
Total Reply(0)
Didar Hossain Miazi ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ৪:২২ পিএম says : 0
মহিলা অপরাধ করেছে। কিন্তু একেবারেই দেয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছিল নিশ্চয়ই। কারন তাকে পুলিশে দিয়ে ও কোন লাভ হয়নি।
Total Reply(0)
M Shehab ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ৪:২২ পিএম says : 0
কি অমানবিক কাজ, মানুষ কিভাবে এমন নিষ্ঠুর কাজ করতে পারে?
Total Reply(0)
মোহাম্মদ দলিলুর রহমান ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ৩:১৪ পিএম says : 0
মাদক ব্যবসা মাদকদ্রব্য পান করে সব সময় জালাজনতনা করলে ,কি ভাবে দরয্য ধরতে পারে,একদন দুই দিন ,পততেক দিন যদি এমন হয়,এই টি করেছে ভালো করেছে,আবার পুলিশ বলছে সে আবার হত্যা কারী,এমনেতেই তাহার ফাঁসি হতো,যাক মেয়ে টি মনে হয় অল্প বয়সের আবার একটি ছেলে আছে,তাকে আইন অবশ্যই সহযোগিতা করবে,একটি অসত্ লোক সমাজ থেকে গিয়েছে,অন্যথায় অনেক ছেলে মেয়েরা মাদকাসক্ত হয়ে যেতেন,মেয়েটি কে ছেড়ে দিন তাহার দোষ নাই,কিন্তু আইন হাতে নিয়েছে সেই জন্য। মহামান্য আদালতের নিকট সে দোষী। মানবিক দৃষ্টিতে দেখতে মহামান্য আদালতে কাছে আকুল আবেদন করিতেছি।
Total Reply(0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন