ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭, ২৩ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

মহানগর

চাঁদাবাজদের দৌরাত্ম্যে বন্ধ হচ্ছে না ফুটপাথ দখল -সাঈদ খোকন

প্রকাশের সময় : ১ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেছেন, রাজধানীর ফুটপাতের হকারদের সঙ্গে শক্তিশালী চাঁদাবাজ চক্র রয়েছে। যে কারণে মেয়রের একার পক্ষে এই চাঁদাবাজ চক্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে টিকে থাকা সম্ভব নয়। গতকাল (সোমবার) দুপুরে রাজধানীর ওসমানী উদ্যানে পাবলিক টয়লেট উদ্বোধনকালে মেয়র তার এই অসহায়ত্বের কথা বলেন।
সাঈদ খোকন বলেন, রাজধানীর ফুটপাত দখলমুক্ত না হওয়ার অন্যতম কারণ চাঁদাবাজ। কারণ প্রতিদিন চাঁদাবাজদের পকেটে যাচ্ছে লাখ লাখ টাকা। এ জন্য আমরা যখন রাজধানীর ফুটপাত দখলমুক্ত করতে যাই তখন চাঁদাবাজরা বাধা দেয়। কেননা ফুটপাত দখলমুক্ত হলে তাদের পকেটে লাখ লাখ টাকা যাওয়া বন্ধ হয়ে যাবে। একা মেয়রের পক্ষে শক্তিশালী চাঁদাবাজদের সঙ্গে যুদ্ধ করা সম্ভব নয়। তাই সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে এবং রাজধানীর ফুটপাত দখলমুক্ত করতে এগিয়ে আসতে হবে।
ফুটপাত দখলমুক্তকরণে সাংবাদিকদের দায়িত্ব রয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, গণমাধ্যম যখন একটি সংবাদ প্রকাশ করে তখন কিন্তু পুরো রাজধানীবাসী সেটা দেখতে পায়। কাজেই এখানে যে আপনাদের ভূমিকা নেই, সেটা কিন্তু একদম নয়। এই শহর শুধু মেয়রের নয়, কাউন্সিলরদের নয়, এই শহর লক্ষ-কোটি সাধারণ মানুষের। গণমাধ্যমকর্মীরা আমাদের সাহায্য করেন, আমরা অবশ্যই ফুটপাত দখলমুক্ত করবো।
মেয়র বলেন, রাজধানীতে ২০১৭ সালের মধ্যে আধুনিক ১০০ পাবলিক টয়লেট স্থাপন করা হবে। এর মধ্যে ১৭টি আধুনিক টয়লেট নির্মাণ করে দিচ্ছে ওয়াটার এইড। এছাড়া রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ৫০০ ওয়াটার প্যানেল স্থাপন করা হবে। যেখান থেকে রাজধানীর বাসিন্দারা নিরাপদে পানি খেতে ও সংগ্রহ করতে পারবে।
যানজটের কারণও ফুটপাত দখল বলে মনে করেন সাঈদ খোকন। এ জন্য অনেক সময় অ্যাম্বুলেন্সে হাসপাতালে রোগী যাওয়ার আগেই মারা যায়। পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষার হলে যেতে বেগ পোহাতে হয়। তিনি আরও বলেন, রাজধানীতে গাড়ি দিয়ে চলাচল করে ৫ শতাংশ মানুষ। আর রিকশা দিয়ে চলাচল করে ২০ শতাংশ মানুষ। ৬৫ শতাংশ মানুষ ফুটপাত ব্যবহার করে। যাদের যানবাহনে চলাচল করার সামর্থ্য নেই। পাবলিক টয়লেট উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইডেনের রাষ্ট্রদূত জোহান ফ্রিসেল, ওয়াটার এইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর মোহাম্মদ খায়রুল ইসলাম, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শেখ সালাউদ্দিনসহ প্রমুখ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন