মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

সম্পাদকীয়

বন্যপ্রাণির অবৈধ পাচার রোধে প্রয়োজন আরো বৈশ্বিক পদক্ষেপ

মো. আরাফাত রহমান | প্রকাশের সময় : ১৬ এপ্রিল, ২০২২, ১২:০১ এএম

মাদক, মানব ও পণ্যাদি পাচরের মতই বন্যপ্রাণী পাচার একটি বড় অবৈধ বাণিজ্য। বন্যপ্রাণী পাচারের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকান্ডের মধ্যে অবৈধভাবে সংগ্রহ, পরিবহন এবং প্রাণী ও তাদের ডেরিভেটিভস বিতরণ জড়িত। এটি আন্তর্জাতিক বা স্থানীয়ভাবে হতে পারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতর বন্যপ্রাণী পাচারকে বিশ্বের তৃতীয় সর্বাধিক মূল্যবান অবৈধ বাণিজ্য হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছে। এই জাতীয় অবৈধ ক্রিয়াকলাপের সাথে জড়িত আর্থিক লেনদেনের পরিমাণ এত বেশি যে, তা নিরূপণ করা অবিশ্বাস্যভাবে কঠিন।

বন্যপ্রাণীর অবৈধ পাচারের মধ্যে রয়েছে বিদেশি পোষা প্রাণী, খাবার, ট্র্যাডিশনাল ওষুধ, পোশাক এবং প্রাণীদের দাঁত, ডানা, চামড়া, আঁশ, শিং এবং অভ্যন্তরীণ অঙ্গ থেকে তৈরি গয়না। পাচারকৃত প্রাণী বর্তমানে একটি ক্রমবর্ধমান বৈশ্বিক চাহিদায় পরিণত হয়েছে। এটি অনুমান করা হয় যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, চীন এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নই এসবের সর্বাধিক চাহিদা সম্পন্ন স্থান। অবৈধভাবে বন্যপ্রাণী পাচারের মূল কারণ হলো বিশ্বজুড়ে এধরনের পণ্যগুলোর একটি দৃশ্যমান এবং দ্রুত প্রসারিত চাহিদা: যেমন, বুশমিট, ক্ষুদ্র অলংকার, দাবা সেট, কোট, ঐতিহ্যবাহী পোশাক, ট্রফি ইত্যাদি। অবৈধভাবে প্রাপ্ত প্রাণীদের এই সমস্ত ব্যবহার নিজেদেরকে অন্যদের চেয়ে আরও সমৃদ্ধ, দুঃসাহসী বা সফল হিসাবে দেখানোর ইচ্ছা থেকেও হয়ে থাকে।

আফ্রিকার অনেক জায়গায় অবৈধ বন্যপ্রাণীর প্রধান চাহিদা বুশমিট গ্রহণ থেকে আসে। প্রোটিনের উৎস হিসেবে বন্যপ্রাণী পছন্দসই এবং প্রাইমেট বর্গের প্রাণীগুলোকে একটি স্বাদযুক্ত খাবার হিসাবে বিবেচনা করা হয়। প্রতি বছর শুধুমাত্র আফ্রিকায় চোরাচালানের মাধ্যমে প্রায় ৪০,০০০ বানর হত্যা করা হয় এবং খাওয়া হয়। বুশমিট শিকারীদের দ্বারা অনেক প্রাইমেট মারা যায়, যেগুলো আফ্রিকা, ইউরোপ এবং যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে সরবরাহ করা হয়। গন্ডারের শিং, বাঘের হাড় এবং অন্যান্য প্রাণীজাত পণ্যের প্রচুর চাহিদা, যা ঐতিহ্যবাহী চীনা ওষুধ তৈরিতে ব্যবহার হয়। এছাড়া এই উপাদানগুলো সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু বজায় রাখা, যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি, জ্বর এবং অন্যান্য অসুস্থতার চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা হয়। যদিও প্রচলিত চীনা ওষুধের অনেকগুলোই রোগ নিরাময় করতে ব্যর্থ, তারপরও তাদের চাহিদা বাড়তে থাকে এবং সেই সাথে বন্যজীবন ক্ষতির সম্মুখীন হতে থাকে। তবে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পাচারকারী প্রাণী হলো প্যাঙ্গোলিন। পাঙ্গোলিন পৃথিবীতে একমাত্র আঁশযুক্ত স্তন্যপায়ী প্রাণী। গত দশকে দশ লক্ষেরও বেশি প্যাঙ্গোলিনকে তাদের আঁশের জন্য শিকার এবং হত্যা করা হয়েছে, যদিও তাদের কোনও বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত চিকিৎসা মূল্য নেই। তবে তাদের আঁশ চীনা ওষুধে ব্যবহৃত হয়।

বহিরাগত পোষা প্রাণীরা তাদের স্থানীয় পরিবেশ থেকে ধরা পড়ে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক সীমান্ত দিয়ে পাচার হয় এবং অভিজাত পারিবারে বা রাস্তার পাশের সার্কাসগুলোতে বিক্রয় করা হয়। সরীসৃপ, যেমন ড্রাগন ও গেকো এবং পাখি, যেমন স্কারলেট ম্যাকাও এবং কিছু প্রজাতির ফ্যালকন বিক্রি ও পাচার করা প্রাণীদের সবচেয়ে বড় অংশ দখল করে থাকে। এছাড়া বহিরাগত স্তন্যপায়ী প্রাণীদের মধ্যে থ্রি-টোড স্লোথ, সুগার গ্লাইডার, প্রেইরি কুকুর, সজারু, বানর এবং অন্যান্য প্রাণীকে পোষ্য প্রাণী হিসাবে রাখা হয়। পাখি সর্বাধিক প্রচলিত অবৈধ পাচারকৃত প্রাণীদের মধ্যে অন্যতম। হামিংবার্ড থেকে শুরু করে টিয়া পাখি ও হার্পি ঈগল পর্যন্ত দুই মিলিয়ন থেকে পাঁচ মিলিয়ন প্রতি বছর বিশ্বব্যাপী অবৈধভাবে লেনদেন হয়।

অবৈধ পাচারকৃত বন্যপ্রাণীদের আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের পরিমাণ অপরিসীম এবং ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০১২ সালে হরমোনাইজড সিস্টেম কাস্টমসের পরিসংখ্যানের বিশ্লেষণ অনুসারে, বন্যপ্রাণীর বিশ্বব্যাপী আমদানি হয়েছে ১৮৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যার মধ্যে মৎস্য পণ্যাদির পরিমাণ ছিল ১১৩ বিলিয়ন ডলার; উদ্ভিদ এবং বনজ ৭১ বিলিয়ন এবং ৩ বিলিয়ন ডলারের অমৎস্যজীবী প্রাণী। বিশ্বব্যাপী বন্যপ্রাণী বাণিজ্যের সুষ্ঠু তদারকি ও এ সংক্রান্ত আইনসমূহের প্রয়োগ জোরদার করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার সংস্কারের আহ্বান ক্রমবর্ধিত হচ্ছে।

সন্ত্রাসী সংগঠন এবং অপরাধমূলক সংস্থার সদস্যরা অস্ত্র ক্রয়, বৈশ্বিক দ্বন্দ্বের অর্থায়ন এবং অবৈধ উৎস থেকে অর্থ ব্যয় করার জন্য লক্ষ লক্ষ গাছপালা এবং প্রাণী অবৈধভাবে পাচার করে। এই সমস্ত কর্মকান্ড প্রতিনিয়ত পরিচালনার জন্য তাদের অর্থ এবং শিকারী, প্রসেসর, চোরাচালানকারী, বিক্রয়কারী এবং ক্রেতাদের সমন্বয়ে একটি নেটওয়ার্ক প্রয়োজন। তদুপরি, এই পাচার জাতীয় প্রচেষ্টার নেতৃত্বদানকারীরা উল্লেখযোগ্য লাভ অর্জন করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, মাদাগাস্কারের একটি Ploughshare কচ্ছপ ২৪,০০০ মার্কিন ডলারে বিক্রি হয়, যারা পরিসংখ্যান অনুসারে, পৃথিবীর বন্য পরিবেশের মধ্যে মাত্র ৪০০ এর মতো আছে।
হাতির দাঁত বা আইভরি উৎস দেশ থেকে খুবই কম দামে ক্রয় করে গন্তব্য দেশগুলোতে উচ্চমূল্যে বিক্রয় করা হয়ে থাকে। দাম উৎস দেশ এবং পণ্যের ধরনের উপর নির্ভর করে। আইভরির দাম এবং চাহিদা আকাশ ছোঁয়া এবং এটি একটি ক্রমবর্ধমান এবং খুব লাভজনক বাজারে পরিণত হয়েছে। চীন অবৈধ হস্তিদন্তের বৃহত্তম আমদানিকারক এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দ্বিতীয় অবস্থানে। বন্যপ্রাণী বিষয়ক সংস্থা সেভ দ্য এলিফ্যান্টসের প্রতিবেদন অনুসারে, চীনে হাতির কাঁচা দাঁতের দাম প্রতি কেজি ২,১০০ মার্কিন ডলার। ২০১০ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে প্রতি বছর গড়ে ৩৩,০০০ হাতি অবৈধ শিকারীদের দ্বারা হত্যা করা হয়েছে।

বন্যপ্রাণী চোরাচালান সরাসরি বিভিন্ন বাস্তুতন্ত্রের জীববৈচিত্র্যকে প্রভাবিত করে। নির্দিষ্ট কিছু প্রাণী পাচারকারীদের বেশি চাহিদার কেন্দ্রে থাকে, যার ফলে তাদের আবাসস্থলে ওই প্রজাতির একটি দৃশ্যমান হ্রাস ঘটে। গত শতাধিক বছর ধরে প্রায় কুড়িটি প্রাণী শিকার ও অবৈধ চোরাচালানের কারণে বিলুপ্ত হয়েছে যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য পশ্চিম আফ্রিকার কালো গন্ডার, পারফহয়ান ইবেক্স, যাত্রী কবুতর, কচ্ছপ এবং লাল-মাথা যুক্ত ম্যাকাও। অনেক প্রজাতিই বিপদাপন্ন প্রাণী হিসেবে স্বীকৃতি না পাওয়া পর্যন্ত তাদের সুরক্ষার কোন ব্যবস্থা থাকে না এবং এই সুরক্ষা বিলম্বের ফলে বাস্তুতন্ত্রের জীববৈচিত্র্যের উল্লেখযোগ্য ক্ষতি হয়। বিপন্ন প্রজাতি আইন-এর মতো আইন বিভিন্ন প্রজাতির মাছ, বন্যপ্রাণী এবং গাছপালা সংরক্ষণ এবং সংরক্ষণের জন্য আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মানব পরিবেশগত হস্তক্ষেপ নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে। এতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মধ্যে পরিবেশের ক্ষয়ক্ষতি পর্যবেক্ষণ ও নিয়ন্ত্রণে প্রচেষ্টা বাড়ে। জাতিসংঘের উদ্দেশ্য টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য হিসাবে উদ্যোগের মাধ্যমে আরও প্রাণীদের জন্য সুরক্ষিত বাসস্থান এবং বাস্তুসংস্থান তৈরি করা।

বন্যপ্রাণী পাচার একটি ক্রমবর্ধমান আন্তর্জাতিক সংকট, যা কেবলমাত্র পশুর অধিকার হরণ করে না, বিশ্বব্যাপী পরিবেশগত, সামাজিক এবং অর্থনৈতিক স্তরেও হুমকিস্বরূপ। এটি অবৈধ অর্থনীতিতে অবদান রাখছে এবং মানুষের কল্যাণে ক্ষতিকারক প্রভাব ফেলছে। বিপন্ন প্রজাতি আইন অপরাধ মোকাবেলা এবং বন্যজীবন সুরক্ষার জন্য যৌথ প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে অভিবাসী প্রজাতিগুলোর কনভেনশন (সিএমএস) এবং বিপন্ন প্রজাতির বন্যপ্রাণী ও উদ্ভিদের আন্তর্জাতিক ব্যবসা সংক্রান্ত কনভেনশন (সিআইটিইএস) এর মতো চুক্তি ও আইন কার্যকর করার কাজ করে যাচ্ছে। এই আইন ভাঙ্গার ফলে জরিমানার পরিমান অনেক কম। এই সীমিত শাস্তি ও জরিমানা এই আইনগুলোকে দুর্বল করেছে। অবশ্য এর মাঝেও কিছু ব্যতিক্রম রয়েছে। যেমন: বৈজ্ঞানিক উদ্দেশ্য বা প্রভাবিত প্রজাতির প্রকার বা বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় গবেষণা। বন্যজীবন ও বন্যজীবন সামগ্রীর অবৈধ বাণিজ্য বন্ধের লক্ষ্যে বিভিন্ন দেশের সরকার ও সংস্থার স্বেচ্ছাসেবক জোট হিসাবে ২০০৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় কোয়ালিশন অ্যাগেইনস্ট ওয়াইল্ডলাইফ ট্র্যাফিকিং (সিএডাব্লুটি)। তার কর্মকান্ডের মধ্যে রয়েছে বন্যপ্রাণী থেকে উৎপাদিত বিভিন্ন পণ্যের চাহিদা কমাতে জনসচেতনতা বৃদ্ধি, সরবরাহ সীমিত করার জন্য আন্তঃসীমান্ত আইন প্রয়োগকে আরও জোরদার করা এবং উচ্চপদস্থ রাজনৈতিক সমর্থন জড়িত করার প্রচেষ্টা।

ফ্রিল্যান্ড ফাউন্ডেশন এবং ট্র্যাফিক দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ২০০৫ সালে আসিয়ান ওয়াইল্ডলাইফ এনফোর্সমেন্ট নেটওয়ার্ক (আসিয়ান-ওয়েইন) প্রতিষ্ঠার জন্য দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় দেশগুলোর অ্যাসোসিয়েশনের সাথে কাজ করে। আসিয়ান-ওয়েইন আন্তঃসীমান্ত সহযোগিতা তদারকি করে এবং এর যৌথ আইন প্রয়োগের ক্ষমতা জোরদার করার লক্ষ্যে আসিয়ান সদস্যভুক্ত দেশসমূহ কাজ করে। এটি বিশ্বের বৃহত্তম আঞ্চলিক বন্যপ্রাণী আইন প্রয়োগকারী সহযোগিতা সংস্থা। ২০০৮ সালে, দক্ষিণ এশিয়ার পরিবেশ মন্ত্রীরা দক্ষিণ এশিয়া সমবায় পরিবেশ কর্মসূচির সমর্থনে সাওয়েইন তৈরির বিষয়ে সম্মত হন। এই সাওয়েইন দেশগুলির মধ্যে আফগানিস্তান, বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত, মালদ্বীপ, নেপাল, পাকিস্তান এবং শ্রীলঙ্কা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

লেখক: সহকারী কর্মকর্তা, ক্যারিয়ার এন্ড প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্ট সার্ভিসেস বিভাগ, সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps