মঙ্গলবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১১ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

ইনকিলাব বর্ষ শুরু সংখ্যা

প্রসিদ্ধ দরবারসমূহের পীর সাহেবগণের দোয়া ও শুভেচ্ছা

| প্রকাশের সময় : ৪ জুন, ২০২২, ১২:০৪ এএম

বাংলাদেশ পীর-আউলিয়ার দেশ। এ দেশে ইসলামের আগমন প্রথম যুগে হলেও এর বিকাশ হয় পরবর্তী হাজার বছরে ইসলাম প্রচারক, আলেম-ওলামা, পীর-মাশায়েখের মাধ্যমে। এতে ঐতিহ্যবাহী নানা ধারার খানকা ও দরবারের অবদান, ভূমিকা, প্রভাব অনস্বীকার্য। আধুনিক বাংলাদেশের কিছু প্রখ্যাত দরবারের পীর সাহেবগণের দোয়া ও শুভেচ্ছা বাণী দৈনিক ইনকিলাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর মুবারক মুহূর্তে আমাদের পথচলার শক্তি বৃদ্ধি করবে। মুসলিম চিন্তা-চেতনা, আকিদা-বিশ্বাস, তাহজিব-তামাদ্দুনের পতাকাবাহী দৈনিক ইনকিলাব ইসলাম প্রচার, সমাজ সংস্কার, দীনি শিক্ষার বিস্তার, জনকল্যাণ ও আত্মশুদ্ধির প্রতিটি প্রয়াসকে বিকশিত করার হাতিয়ার হিসেবে আত্মনিবেদিত। প্রসিদ্ধ দরবারসমূহের পীর-মাশায়েখের বাণী প্রিয় পাঠকের জন্য তুলে ধরা হলো।


ছারছীনা শরীফের পীর হযরত মাওলানা শাহ্ মোহাম্মাদ মোহেব্বুল্লাহ্
দৈনিক ইনকিলাব ৩৭তম বর্ষে পদার্পণ করতে যাচ্ছে জেনে আমি অত্যন্ত খুশি হলাম। পত্রিকাটি জন্মলগ্ন থেকেই দেশের কথা, জনগণের কথা; বিশেষ করে, মুসলিম উম্মাহর স্বার্থের কথা, ইসলামি আদর্শের কথা বলে আসছে। এবং জনপ্রিয়তা লাভে সক্ষম হয়েছে। ছারছীনার মরহুম পীর সাহেব শাহ্ আবু জাফর মোহাম্মদ সালেহ (রহ.) দৈনিক ইনকিলাবকে যে আদর্শ ও দর্শনে দেখতে চেয়েছিলেন, অত্যন্ত সুনামের সাথে ইনকিলাব তা পূরণে সক্ষম হয়েছে। আলহামদুলিল্লাহ।
আমি দোয়া করি, ইনকিলাব দীর্ঘজীবী হোক এবং আদর্শে অবিচল থেকে এই খিদমত জারি রাখতে সক্ষম হোক। আমীন।


ফুলতলীর পীর সাহেব হযরত আল্লামা ইমাদ উদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী
নাহমাদুহূ ওয়া নুসাল্লী আলা রাসূলিহিল কারীম। ‘দৈনিক ইনকিলাব’ আমাদের অন্তরে এমন স্বচ্ছ আবেগ সৃষ্টি করে- যাতে আমরা জন্মভূমিকে ভালবাসি, মানুষকে ভালবাসি, দ্বীনী কার্যক্রম ও প্রতিষ্ঠানগুলির উন্নতি কামনা করি, অনর্থক ঝগড়ায় লিপ্ত না হয়ে সময়কে সঠিক কর্মে ব্যয় করতে পারি। দোয়া রইল, ইনকিলাবের কাজে যারা শ্রম দান করছেন, আল্লাহতাআলা যেন, তাদের কার্যক্রম আরো সুন্দরভাবে পরিচালিত করার তৌফিক দান করেন।

 

নেছারাবাদের পীর সাহেব হযরত মাওলানা মুহম্মদ খলীলুর রহমান নেছারাবাদী
দৈনিক ইনকিলাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আন্তরিক অভিনন্দন ও মুবারকবাদ জ্ঞাপন করছি। সংবাদপত্র সমাজের দর্পণ, জাতির বাহন। সেই সংবাদপত্রকে হতে হয় ব্যাপক জনগোষ্ঠীর আশা-আকাক্সক্ষা, স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষা ও নির্ভীক সাংবাদিকতার প্রতীক। ইনকিলাব প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে দেশের সাংবাদিকতা জগতে সেই উদ্দেশ্যের অনেকাংশই পূর্ণ হয়েছে। দল-মত-ছেলছেলা নির্বিশেষে সর্বশ্রেণির মানুষের কথা বলার মাধ্যম হতে পেরেছে ইনকিলাব, এটা নিঃসন্দেহে একটি পত্রিকার সবচেয়ে বড় অর্জন। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই আমরা ইনকিলাবের সুখ-দুঃখের সঙ্গে জড়িয়ে আছি। জড়িয়ে আছেন এদেশের হক্কানী ওলামা, পীর-মাশায়েখ-আওলিয়ায়ে কেরাম। বিশেষত ইনকিলাব প্রতিষ্ঠায় ওয়ালেদে মুহতারম হযরত কায়েদ ছাহেব হুজুর রহ.-এর অবদান পত্রিকার অব্যাহত যাত্রাকে নিঃসন্দেহে দুর্বার করেছে। কোনো ব্যক্তি, দল কিংবা গোষ্ঠির পৃষ্ঠপোষকতা নয় বরং দেশ-জাতি ও উম্মাহর স্বার্থেই কেবল ইনকিলাব তার অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখবে, এই প্রত্যাশা করছি।


সোনাকান্দা দারুল হুদা দরবার শরীফের পীর শাহ সুফি আলহাজ অধ্যক্ষ মো. মাহমুদুর রহমান
দেশের শীর্ষস্থানীয় জাতীয় পত্রিকা ইনকিলাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আন্তরিক মোবারকবাদ ও হৃদয় নিংড়ানো ফুলেল শুভেচ্ছা রইলো। তিন যুগ ধরে এর ধারাবাহিক প্রকাশনা এক গৌরবোজ্জ্বল অর্জন। প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই ইনকিলাব দেশ, জাতি, সমাজ, সংস্কৃতি, সাহিত্য ও মুসলিম উম্মাহর একনিষ্ঠ বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর হিসেবে কথা বলে আসছে। কোনো রূপ জড়তাগ্রস্ততা ছাড়াই ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর স্বার্থের ঊর্ধ্বে থেকে বাংলাদেশে ইসলামী আর্দশ, সংস্কৃতি, সভ্যতা ও ইসলামী জাতীয়তাবাদকে তুলে ধরতে ইনকিলাব পারঙ্গম। মাদরাসা শিক্ষার স্বীকৃতি, উন্নয়ন, প্রচার ও প্রসার এবং দাবি আদায়ের মুখপত্র হিসেবে এর অবদান অবিস্মরণীয়। ইনকিলাব সবসময়ই দেশের সকল হকপন্থী পীর-মাশায়েখ, উলামায়ে কিরামের ঐক্য প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা রেখে আসছে। ইনকিলাব তার অতীত ঐতিহ্যের ধারাহিকতা বজায় রাখবে, আন্তরিকভাবে এই দোয়া ও শুভ কামনা রইলো।


মৌকারা দরবার শরীফের পীর হযরত মাওলানা শাহ মুহাম্মদ নেছারউদ্দীন ওয়ালিউল্লাহী
দেশের শীর্ষ স্থানীয় জাতীয় পত্রিকা দৈনিক ইনকিলাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আন্তরিক মুবারকবাদ জানাই। এ দীর্ঘ সময়ব্যাপী ধারাবাহিক প্রকাশনা নিঃসন্দেহে একটি জাতীয় দৈনিকের জন্যে গৌরবময় অর্জন।

প্রতিষ্ঠাকাল থেকে ইনকিলাব দেশ, জাতি, সমাজ, সংস্কৃতি, ইসলাম ও উম্মাহর বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর হিসেবে কথা বলেছে। সংকীর্ণতা, ব্যক্তি বা গোষ্ঠীস্বার্থের ঊর্ধ্বে থেকে বাংলাদেশে ইসলামী আদর্শ, সংস্কৃতি, সভ্যতা ও ইসলামী জাতীয়তাবাদকে তুলে ধরেছে। মাদরাসা শিক্ষার স্বীকৃতি, উন্নয়ন ও দাবি আদায়ের আন্দোলনে সামনে থেকে অবদান রেখেছে। সাধারণ শিক্ষার বিষয়েও রয়েছে পত্রিকাটির বিশেষ অবদান।

আল্লাহতাআলার দরবারে ইনকিলাবের সার্বিক কল্যাণ, উত্তোরোত্তর সমৃদ্ধি, প্রতিষ্ঠাতা প্রখ্যাত আলেম ও ইসলামী চিন্তাবিদ মরহুম আলহাজ মাওলানা এম এ মান্নান (রহ.)’র মাগফিরাত ও মর্যাদা বৃদ্ধি এবং প্রিয় ভাই সম্পাদক আলহাজ এ এম এম বাহাউদ্দীনের নেক হায়াত কামনা করছি।


মশুরীখোলা দরবারের পীর সাহেব আল্লামা শাহ মুহাম্মদ আহছানুজ্জামান
দৈনিক ইনকিলাব প্রতিষ্ঠার পর থেকে ইসলামের প্রচার ও প্রসারে অনন্য ভূমিকা পালনের পাশাপাশি বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখে আসছে। মাওলানা এম এ মান্নান (রহ.) এর প্রতিষ্ঠিত দৈনিক ইনকিলাব এদেশের ইসলামপ্রিয় জনগণের অন্তরে জায়গা করে নিতে সক্ষম হয়েছে। পরবর্তীতে তাঁর সুযোগ্য সন্তান আলহাজ এ এম এম বাহাউদ্দীন এ ধারা অব্যাহত রেখেছেন। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আমি ইনকিলাবের দীর্ঘায়ূ ও সাফল্য কামনা করছি।


ফান্দাউক দরবার শরীফের পীর আলহাজ্ব মাওলানা মুফতি সৈয়দ সালেহ আহমাদ মামুন আল হোসাইনী
ইসলাম, মুসলমান ও দেশ-জাতির কল্যাণে নিবেদিত দেশের শীর্ষস্থানীয় ও বহুল প্রচারিত দৈনিক ইনকিলাব দীনদরদী মুসলমান, উলামায়ে কেরাম, হক্কানী দরবারসমূহ এবং বস্তনিষ্ঠ ও সত্য সংবাদ প্রত্যাশীদের অন্যতম বিশ্বস্ত মুখপত্র। প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই ইনকিলাব দেশ-জাতি, ইসলাম ও মুসলিম উম্মাহর পক্ষে একনিষ্ঠ ভূমিকা রেখে আসছে। ইনশাআল্লাহ, ভবিষ্যতেও দৈনিক ইনকিলাব আপন আলোয় উজ্জ্বল থেকে অবদান রাখবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। আমি পত্রিকাটির দীর্ঘ পথচলা ও সাফল্য কামনা করি।

 

জৈনপুরী পীর সাহেব আল্লামা সৈয়দ মাহবুবুর রহমান
দৈনিক ইনকিলাব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে অদ্যাবধি দেশ, জাতি ও দ্বীনের সেবায় নিয়োজিত থেকে অকুতভয়ে সত্যের বাণী প্রচার করে অন্যায়ের বিরুদ্ধে এবং ন্যায়ের পক্ষে সেবা করে যাচ্ছে। পত্রিকাটির প্রতিষ্ঠাতা বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সভাপতি, মাদরাসা শিক্ষার এবং বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা সুযোগ্য মন্ত্রী, মরহুম হযরত মাওলানা আব্দুল মান্নান সাহেব আমার অতি প্রিয় ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন। তিনি ও তাঁর বড়ভাই ওলিয়ে কামিল হজরত মাওলানা মরহুম আব্দুস সালাম সাহেব আমার প্রতিষ্ঠিত মোহাম্মাদপুরস্থ আদর্শ ইসলামি মিশন মহিলা কামিল মাদরাসা, এতীমখানা, হিফজখানা ও রাহমানিয়া জৈনপুরী খানকা শরীফ কমপ্লেক্সে তাশরীফ এনে দোয়া করে গিয়েছেন। আমি নিজে মরহুম এম এ মান্নান সাহেবের জীবদ্দশায় যতবার দেখা করেছি, তিনি অতি সম্মানের সাথে আমাকে আপ্যায়ন ও আন্তরিকতার সাথে সহযোগিতা করতেন, যা কখনো ভোলা যায় না। পত্রিকার মাননীয় সম্পাদক তাঁর সুযোগ্যপুত্র, আমাদের নয়নমণি বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সুযোগ্য সভাপতি এ এম এম বাহাউদ্দীন সাহেব স্বীয় পিতার মতো এই পত্রিকার মাধ্যমে দেশ ও জাতির বিশেষ করে মাদরাসা শিক্ষার রূহকে তাজা রেখেছেন। বাতিলের বিরুদ্ধে সোচ্চার এবং মানবের সত্যিকার অধিকার আদায়ের সংগ্রামে অতন্দ্র প্রহরির কাজ করে যাচ্ছেন। তাকে আন্তরিক ধন্যবাদ। আমি হকের প্রচারক মজলুম ও নিপীড়িত মানুষের মুখপত্র ইনকিলাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট সবাইকে শুভেচ্ছা ও আন্তরিক মোবারকবাদ জানাচ্ছি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন